ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

জাতীয়

ট্রেনে হারানো ল্যাপটপ ফিরে পেলেন যাত্রী

টিপু সুলতান, উপজেলা করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০০১৪ ঘণ্টা, অক্টোবর ২০, ২০২১
ট্রেনে হারানো ল্যাপটপ ফিরে পেলেন যাত্রী

পাবনা (ঈশ্বরদী): প্রায় দশ মাস আগের কথা। ২০২০ সালের ২৯ ডিসেম্বর।

পাকশি বিভাগীয় রেলওয়ের সান্তাহার জংশন রেলস্টেশন থেকে ঢাকাগামী আন্তঃনগর নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনের এসি চেয়ারকোচে যাচ্ছিলেন কোর ডেভেলস লিমিটেডের চেয়ারম্যান, সফটওয়্যার প্রকৌশলী ট্রেনযাত্রী মাহাবুব শুভ।

ঢাকার বিমানবন্দর স্টেশনে তাড়াহুড়ো করে নামার সময় ভুলক্রমে ট্রেনে ফেলে রেখে গিয়েছিলেন ল্যাপটপের ব্যাগটি। ট্রেন ছেড়ে যাওয়ার পর কমলাপুর স্টেশনে দ্রুত লোকজন পাঠিয়েও ব্যাগটি পাওয়া যায়নি।

প্রকৌশলী মাহবুব শুভ ধরে নিয়েছিলেন, কোনো ট্রেন যাত্রীই তার ল্যাপটপটি নিয়ে চলে গেছে। সুতরাং আর পাওয়া যাবে না। হঠাৎ দীর্ঘ ১০ মাস পর ট্রেনে হারানো ল্যাপটপটি পাওয়া গেছে শুনে একটু অবাক হয়েছিলেন! অবশেষে ১০ মাস পর হারিয়ে যাওয়া ল্যাপটপসহ ব্যাগটি পেয়ে খুশিতে আত্মহারা সফটওয়্যার প্রকৌশলী ট্রেনযাত্রী মাহাবুব শুভ।

মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) রাতে ঢাকা বিমানবন্দর রেলস্টেশনে দাঁড়িয়ে এভাবে তার অনুভূতি বাংলানিউজকে জানালেন সফটওয়্যার প্রকৌশলী মাহাবুব শুভ।

এর আগে মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) বিকেলে ঢাকার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ম্যানেজার মো. সোহেল সারওয়ার এর মাধ্যমে নীলসাগর এক্সপ্রেসের ট্রেন পরিচালক (গার্ড) শহিদুল ইসলাম ল্যাপটপের মালিক মাহাবুব শুভর হাতে হারানো ল্যাপটপসহ ব্যাগটি তুলে দেন।

সততার পরিচয় বহনকারী সেই আন্তঃনগর নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনের পরিচালক শহিদুল ইসলাম পাকশি বিভাগীয় রেলওয়ের আওতায় পার্বতীপুর হেড-কোয়ার্টারের দায়িত্বে রয়েছেন।

কমলাপুর বাণিজ্যিক কর্মকর্তা (ডিসিও) শওকত জামিল মোহসী বাংলানিউজকে জানান, ১০ মাস ধরে সততার পরিচয় দিয়ে সামাজিক গণমাধ্যমে বিভিন্নভাবে খোঁজ করেছেন, প্রকৃত ওই ল্যাপটপ মালিকের। ল্যাপটপের হার্ডডিক্সের মাধ্যমে ছবি দিয়ে রেলওয়ের গ্রুপে একটি ছবি পোস্ট করেন ওই ট্রেন পরিচালক। পরবর্তী সময়ে বিভিন্নভাবে যোগাযোগের চেষ্টা করে,হারিয়ে যাওয়া ল্যাপটপ মালিকের এক বন্ধুকে খুঁজে পান। অবশেষে সেই ট্রেন যাত্রীর এক বন্ধুর মাধ্যমে যোগাযোগ করে ১০ মাস পর পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পার্বতীপুর হেডকোয়ার্টারের ট্রেন পরিচালক শহিদুল ইসলাম ল্যাপটপটি প্রকৃত মালিকের হাতে তুলে দিয়ে এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

অনুভূতি জানিয়ে প্রকৌশলী মাহাবুব শুভ বাংলানিউজকে জানান, আমি আশা ছেড়ে দিয়েছিলাম সত্যিই! বিশ্বাসই হয়নি যে ফিরে পাব ল্যাপটপটি। লোভ বিসর্জন দেওয়া ভালো মানুষ এখনো আছে, এটা আরেকটিবার প্রমাণিত হয়েছে।  

প্রথমে মনে হয়েছিল,হঠাৎ যখন ফোন পেলাম। আমার হারানো ল্যাপটপটি পাওয়া গেছে। আমি প্রথমে সন্দেহ করেছিলাম, কোন বিপদে পড়ি কিনা? তারপরে যখন হুবুহু কথাগুলো মনে পড়ে তখন ভালো লেগেছে।  

তিনি আরও বলেন, আমার ভালো লাগছে, কারণ আমার অনেক গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্টসহ আমি ল্যাপটপটি ফিরে পেয়েছি, সত্যিই আমি মুগ্ধ, সততার পরিচয় দেখে।

পাকশি বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা (ডিটিও) আনোয়ার হোসেন বাংলানিউজকে জানান, এটা অনেক সম্মানজনক বিষয়। দায়িত্ববোধ থেকেই সততার পরিচয় দিয়েছেন ট্রেন পরিচালক (গার্ড) শহিদুল ইসলাম পাকশি বিভাগীয় রেলওয়ের পার্বতীপুর হেড-কোয়ার্টারের দায়িত্বে রয়েছেন। এটা পাকশি বিভাগীয় রেলওয়ের জন্য গর্বের। তার মহৎ কাজ, সততা রেলওয়ের ভাবমূর্তি অনেকাংশে বাড়িয়ে দিয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ০০১৩ ঘন্টা, অক্টোবর ১৩, ২০২১
এমএমএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa