ঢাকা, শনিবার, ১৬ শ্রাবণ ১৪২৮, ৩১ জুলাই ২০২১, ২০ জিলহজ ১৪৪২

জাতীয়

কিশোরীকে মারধর, আরেক টিকটক হৃদয় গ্রেফতার

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮০৫ ঘণ্টা, জুন ১৫, ২০২১
কিশোরীকে মারধর, আরেক টিকটক হৃদয় গ্রেফতার

ঢাকা: দিন-দুপুরে এক তরুণীকে ফুটওভারব্রিজে মারধর ও গালাগালির ঘটনায় সাদ্দাম হোসেন ওরফে হৃদয়কে গ্রেফতার করেছে যাত্রাবাড়ী থানা পুলিশ। দীর্ঘ প্রায় দুই মাস নজরদারির পর সোমবার (১৪ জুন) বিকলে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

হৃদয় টিকটকসহ বিভন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে তার বিকৃত অদ্ভুত স্টাইল প্রচার করে আসছিলেন। এর মাধ্যমে মেয়েদের কৌশলে আকৃষ্ট করে প্রেমের ফাঁদে ফেলে সর্বস্বান্ত করার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

পুলিশ সদরদপ্তর জানায়, গত ১৬ ফেব্রুয়ারি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিও বাংলাদেশ পুলিশের মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগকে পাঠান একজন সচেতন নাগরিক। ভিডিওটিতে দেখা যায়, কোনো একটি ওভারব্রিজের ওপর পথচারীদের উপস্থিতিতেই এক কিশোরীকে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গির পাশাপাশি গালাগালি করছে এবং নির্বিচারে মাথায় ও গালে আঘাত করছে এক যুবক।

ঘটনাস্থলে যুবকের সঙ্গে একটি মেয়েসহ আরও কয়েকজন উপস্থিত ছিলেন। জানা যায়, ঘটনাস্থল যাত্রাবাড়ী থানারন শনিরআখড়া ফুটওভার ব্রিজের উপর।

ভিডিওটি পাওয়ার পর যাত্রাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুলামের কাছে পাঠিয়ে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেয় মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগ। তাৎক্ষণিকভাবে অভিযুক্ত ও ভিকটিমকে খুঁজে বের করতে একটি টিমকে নিয়োজিত করেন ওসি।

ভিডিওতে কোনো নাম-ঠিকানা বা কোনো প্রাসঙ্গিক তথ্য না থাকায় গোয়েন্দা তৎপরতার মাধ্যমে অভিযুক্তের নাম পরিচয় বের করা হয়। জানা যায়, অভিযুক্ত যুবকের নাম সাদ্দাম হোসেন ওরফে হৃদয়। যাত্রাবা‌ড়ী এলাকায় তার বসবাস। তবে, তাৎক্ষণিকভাবে ভিকটিমের নাম পরিচয় শনাক্ত করা যায়নি।

ঘটনাস্থল বা সংশ্লিষ্ট এলাকায় ভিক‌টিম মে‌য়ে‌টি‌কে আগে কেউ কখনো দেখেনি। এরপর হৃদয়কে খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনতে পুলিশ নানা স্থানে অভিযান চালায়। কিন্তু, ঘটনার পরপরই হৃদয় নিজ এলাকা ছেড়ে ভিন্ন ভিন্ন স্থা‌নে অবস্থান ক‌রতে থাকে।

পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি) সোহেল রানা জানান, ঘটনাটি ঘটেছিল ১৪ ফেব্রুয়ারি ভ্যালেন্টাইনস-ডে এর দিন। ভাইরাল ভিডিওর সূত্র ধরে পরবর্তীতে ভিকটিমকে খুঁজে বের করে যোগাযোগ করা হয়। দীর্ঘ সময় ধরে বিষয়টির সঙ্গে লেগে থেকে যাত্রাবাড়ী থানার ওসি অপরাধীকে আইনের আওতায় এনে পেশাগত আন্তরিকতার পরিচয় দিয়েছেন। এ বিষয়ে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

হৃদয়‌কে গ্রেফতারের পর জানা যায়, সে টিকটকসহ বিভন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে তার বিকৃত অদ্ভুত স্টাইল প্রচার করে মেয়েদের কৌশলে আকৃষ্ট করে প্রেমের ফাঁদে ফেলে সর্বস্বান্ত করে আসছিলেন। এছাড়া বিভিন্ন সময় মেয়েদের জিম্মি করে টাকাপয়সা আদায় করতেন তিনি। মেয়েদের উত্যক্ত ও সম্ভ্রমহানি করা সাদ্দাম হোসেন ওরফে হৃদয় একটি হত্যা মামলার পলাতক আসামি বলেও জানা গেছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৫৫ ঘণ্টা, জুন ১৫, ২০২১
পিএম/ওএইচ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa