ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১৬ রবিউস সানি ১৪৪২

জাতীয়

ইরফানকে মঙ্গলবারই বরখাস্ত করা হবে: তাজুল ইসলাম

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৩৩৮ ঘণ্টা, অক্টোবর ২৭, ২০২০
ইরফানকে মঙ্গলবারই বরখাস্ত করা হবে: তাজুল ইসলাম

ঢাকা: ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিমকে আইনানুযায়ী মঙ্গলবারই (২৭ অক্টোবর) কাউন্সিলর পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। একইসঙ্গে পূর্ণাঙ্গ তদন্ত শেষে তাকে স্থায়ীভাবে বরখাস্ত করা হবে বলেও জানান তিনি।

মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ একটি গণতান্ত্রিক দেশ, সংবিধান ভিত্তিতে পরিচালিত। প্রধানমন্ত্রী ব্যক্তিগতভাবে খুব গুরুত্বের সহিত আইনের শাসনকে বিশ্বাস করেন। অপরাধীর পরিচয় যাই হোক না কেন? অপরাধ কাজ করলে তাকে শাস্তি পেতেই হবে। অপরাধী কোন দলের, কোন পদবিধারী এটা বিবেচনায় আনা হবে না।

তিনি বলেন, আপনারা যে কাউন্সিলরের কথা জানতে চাচ্ছেন তার অভিযোগটা আমাদের কাছে নথিভুক্ত হয়েছে। আমরা প্রসেস করছি, সম্ভবত আইনানুযায়ী আজকেই তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হবে। আইনে যেভাবে আছে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করার পড়ে তার বিষয়টি পূর্ণাঙ্গ তদন্ত করে বা সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া শেষে স্থায়ীভাবে বরখাস্ত করা হবে। তাকে বরখাস্ত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। অনেক কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে এ ধরনের অনেক অভিযোগ রয়েছে, হাজী সেলিমের ছেলের বিরুদ্ধেও রয়েছে।

কাউন্সিলররা যাতে প্রকৃত জনপ্রতিনিধি হতে পারেন সেবিষয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগ কী ব্যবস্থা নিচ্ছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি কোন শ্রেণি পেশাকে বা পদ পদবিকে ভিন্নভাবে বিবেচনা করবো না। দেশের সব পেশা ও সব ধরনের লোকের মধ্যে ভালো ও মন্দ দুই কাজের মিশ্রণ আমরা প্রত্যক্ষভাবে লক্ষকরি। অনেকেই ভালো কাজ করেন। সব কাউন্সিলররা খারাপ কাজ করেন এটা আমি মনে করি না। আবার কিছু কিছু কাউন্সিলর অনিময়, দৃষ্টিকটু ও নিন্দনীয় কাজের সঙ্গে কখনও সম্পৃক্ত হয়নি এটা বলা যাবে না। অপরাধীকে অবশ্যই তাদের আইনের আওতায় আনা হবে। আইনের ঊর্ধ্বে কেউ নয়।

তাজুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়ে মামলা হয়েছে এবং কোর্ট থেকে রায়ও হয়েছে। যেহেতু বিচারাধীন একটি বিষয় আমরা কোর্টের রায়টাকে আমলে নিয়ে আমাদের পরবর্তী পদক্ষেপগুলো নিতে হবে। আজকে আমরা শুধু আইনগত কী কী করার আছে সেটুকু করতে পারবো এবং করবো। সেটা হলো সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা। এরপর পরবর্তী প্রক্রিয়া শুরু হবে। একজন ব্যক্তি যখন সাময়িক বরখাস্ত হয় আমার মনে হয় এটা একটা বড় শাস্তি।

এদিকে, রোববার (২৫ অক্টোবর) রাতে সংসদ সদস্য হাজী মো. সেলিমের ‘সংসদ সদস্য’ লেখা সরকারি গাড়ি থেকে নেমে নৌবাহিনীর কর্মকর্তা ওয়াসিফ আহমেদ খানকে মারধর করা হয়। রাজধানীর কলাবাগান সিগন্যালের পাশে এ ঘটনা ঘটে।  

রাতে এ ঘটনায় জিডি হলেও সোমবার (২৭ অক্টোবর) ভোরে হাজী সেলিমের ছেলে ইরফানসহ সাতজনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। দুপুরে ইরফানকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। ওইদিন পুরনো ঢাকার তার বাসায় অভিযানও পরিচালনা করে র‌্যাব। অভিযানে ৩৮টি ওয়াকিটকি, পাঁচটি ভিপিএস সেট, অস্ত্রসহ একটি পিস্তল, একটি একনলা বন্দুক, একটি ব্রিফকেস, একটি হ্যান্ডকাফ, একটি ড্রোন এবং সাত বোতল বিদেশি মদ ও বিয়ার উদ্ধার করা হয়েছে। কাউন্সিলর ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী মোহাম্মদ জাহিদকে এক বছর করে জেল দেন র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। রাতেই তাদের কেরানীগঞ্জের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৩৩৩ ঘণ্টা, অক্টোবর ২৭, ২০২০
জিসিজি/ওএইচ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa