ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৮ মে ২০২৪, ১৯ জিলকদ ১৪৪৫

জাতীয়

গাবতলী বেড়িবাঁধ এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় রিকশাচালক নিহত

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৮৪১ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৫, ২০২৪
গাবতলী বেড়িবাঁধ এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় রিকশাচালক নিহত

ঢাকা: রাজধানীর গাবতলী বেড়িবাঁধ এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় রেজাউল (৪০) নামে এক ব্যক্তি মারা গেছে। নিহত ব্যক্তি পেশায় রিকশাচালক হলেও ঘটনার সময় তিনি সড়ক দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন।

রোববার (১৪ এপ্রিল) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত সাড়ে ১২টার দিকে তিনি মারা যান। এর আগে রাত ৮টার দিকে গাবতলী বেড়িবাঁধ স্লুইসগেট সংলগ্ন রাস্তায় এই দুর্ঘটনাটি ঘটে। ঘটনার পরপর কাজী শামস দীন হাবিব নামে আরেক পথচারী রেজাউলকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল নিয়ে যায়। সেখান থেকে চিকিৎসকদের পরামর্শে আবার তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে সেখানে রেজাউল মারা যায়।

উদ্ধারকারী কাজী শামস দীন হাবিব জানান, গাবতলী বেড়িবাঁধ স্লুইসগেটের পাশের সড়ক দুর্ঘটনাটি ঘটলেও কোন গাড়ি তাকে ধাক্কা দিয়েছে এটা জানা যায়নি। তবে ঘটনাস্থলের লোকজনের মুখ থেকে শোনা যায় সিটি কর্পোরেশনের একটি ময়লার গাড়ির ধাক্কা দিয়েছে তবে তিনি সেটা দেখেনি।
 
তাছাড়া ঘটনাস্থলের কিছুটা দূরে সিটি কর্পোরেশনের ময়লার ডিপো আছে।

তিনি আরো জানান, দুর্ঘটনার পরপরই লোকটাকে বাঁচানোর জন্য প্রথমে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানকার চিকিৎসকরা তাকে কোন চিকিৎসা না দিয়েই ঢাকা মেডিকেল নিয়ে যেতে বলে। পরে ঢাকা মেডিকেল নিয়ে আসলে সে মারা যায়।

এছাড়া তিনি আরো জানান, ঘটনার পরপরই লোকটাকে নিয়ে যখন হাসপাতালে উদ্দেশ্যে রওনা দেই তখন ৯৯৯ ফোন দেওয়া হয়েছিল। সেখান থেকে একজন বলেছিল, সংশ্লিষ্ট থানায় যোগাযোগ করতে। তখন রেজাউল রক্তাক্ত অবস্থায় অটোরিকশার ভিতরে আমার কোলে ছিল। ওই অবস্থায় আর কোথাও যোগাযোগ করার সময় ছিল না। তাই নিজেই তাকে বাঁচানোর চেষ্টা করেছি কিন্তু বাঁচাতে পারেনি। সড়ক দুর্ঘটনার কারণে লোকটি মুখমণ্ডল থেঁতলে গিয়েছিল।

তিনি আরো জানান, নিহত পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ হয়েছে তার বাড়ির দিনাজপুর বিরামপুর এলাকায়। তার দুই সন্তান স্ত্রী ও পরিবারের অন্যান্যরা সবাই গ্রামের বাড়িতে থাকেন।

ঢাকা মেডিকেল পুলিশ ক্যাম্প ইনচার্জ (ইন্সপেক্টর) বাচ্চু মিয়া জানান, রেজাউলের মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য জরুরি বিভাগের মর্গে রাখা হয়েছে।

এজেডএস/এমএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।