ঢাকা, বুধবার, ৫ আষাঢ় ১৪৩১, ১৯ জুন ২০২৪, ১১ জিলহজ ১৪৪৫

লাইফস্টাইল

আকর্ষণীয় ফিগার পেতে স্কিপিং করুন দুই পদ্ধতিতে

নিউজ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮১৬ ঘণ্টা, মে ২১, ২০২৪
আকর্ষণীয় ফিগার পেতে স্কিপিং করুন দুই পদ্ধতিতে

স্কিপিং খুব ভালো শরীরচর্চা। সুস্বাস্থ্য পেতে এই ব্যায়ামের জুড়ি মেলা ভার।

প্রতিদিন নিয়ম করে ৩০ মিনিট স্কিপিং করলেই শরীরে অতিরিক্ত মেদ জমার সুযোগ থাকে না। স্কিপিংয়ের প্রকারভেদ রয়েছে, সেগুলো হচ্ছে বেসিক জাম্প হলো মাথার ওপর দিয়ে দড়ি ঘুরিয়ে এনে লাফ দিয়ে পায়ের নিচ দিয়ে বের করা। এক্ষেত্রে দুই পা-ই একত্রে ওপরে ওঠাতে হয়।

অলটারনেট ফুট জাম্প হলো এক পা এক পা করে দড়ি পার করতে হয়। ক্রিস ক্রস হচ্ছে দুই হাতকে পরস্পরের বিপরীত দিকে নিয়ে দড়ি লাফ দেওয়া। এছাড়া সাইড উইং, ফ্রন্টব্যাক ক্রস, ডাবল আন্ডার ইত্যাদি দড়ি লাফও রয়েছে। ওজন কমাতে ও আকর্ষণীয় শরীর পেতে স্কিপিং করার দুটি সহজ পদ্ধতি দেওয়া হলো।

দুই পায়ে লাফ

দুই পায়ে লাফটা হলো সবচেয়ে সহজ ও সাধারণ পদ্ধতি। অর্থাৎ দুই পায়ে ক্রমাগত লাফাতে হবে একটানা ১০ মিনিট। এরপর স্ট্যামিনা থাকলে ধীরে ধীরে বাড়িয়ে নিতে পারেন সময়। তবে কয় দিন অভ্যাস করলে সময় বাড়ানো যায় সহজেই।

এক পায়ে লাফ

স্কিপিং রোপে দুই পায়ের মতো এক পা এক পা করে লাফাতে পারেন। এতে কোমরের মাংসপেশির ব্যায়াম হবে ভালো করে। এই পদ্ধতিতে ক্রমাগত দৌড়ানোর মতো করে মেঝেতে একবারে একটি করে পা ফেলতে থাকবেন। আর সেই সঙ্গে দড়িটাকে ব্যালেন্স করে ঘুরাতে হবে। এভাবে ক্রমাগত ১০ মিনিট করবেন।

উপকারিতা

অতিরিক্ত ওজন ও পেটের মেদ কমাতে মাত্র ৩০ মিনিট দড়ি লাফিয়ে আপনি ৩৫০ ক্যালোরি কমাতে পারবেন। ১০ মিনিট দড়ি লাফাতে যে শারীরিক পরিশ্রম হয়, তা আট মাইল দৌড়ানোর সমান। পুরো শরীরের অতিরিক্ত ওজন বা পেট যেটাই কমাতে চান, সেটা নিয়মিত স্কিপিংয়ের মাধ্যমে সম্ভব। তবে প্রথমদিকে শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিক রেখে যতটা স্কিপিং করা সম্ভব, ততটা স্কিপিং করুন। দম অনুযায়ী আস্তে আস্তে সময়টা বাড়ান।

হার্ট ও ফুসফুসের কার্যক্ষমতা বহু গুণে বাড়িয়ে দেবে নিয়মিত দড়ি লাফের অভ্যাস। দম বাড়াতে, শ্বাস-প্রশ্বাস নেওয়া ও ছাড়ার ক্ষেত্রে দড়ি লাফ বেশ কার্যকর।  শরীরে দ্রুত রক্ত সরবরাহ করবে, যা আপনার শরীরের বিভিন্ন অংশের টিস্যুগুলোয় প্রয়োজনীয় অক্সিজেন ও পুষ্টি-উপাদান পৌঁছে দেবে।

নিয়মিত স্কিপিংয়ের ফলে শরীরের ওপরের ও নিচের অংশ অর্থাৎ কোমর থেকে পায়ের পাতার মাংসপেশির গঠন সুন্দর ও দৃঢ় হয়।  যেহেতু দড়ি লাফানোর জন্য হাত ও কাঁধ ব্যবহার করা হয়, তাই ওপরের অংশও বলিষ্ঠ হয়।

স্কিপিংয়ের সময় মস্তিষ্কের দুটি অংশই সমানভাবে সক্রিয় থাকে, ফলে মনোযোগ বাড়ে।
স্কিপিংয়ের ফলে হাড়ের ঘনত্ব বৃদ্ধি পায়, হাড়ের ক্ষয় রোধ করে এবং অস্টিওপোরোসিসের মতো সমস্যা হয় না।
দড়ি লাফের সময় শরীর থেকে ঘামের মাধ্যমে বিষাক্ত উপাদানগুলোর অনেকটাই বেরিয়ে যায়। এতে ত্বকের উজ্জ্বলতা ও মসৃণতা বৃদ্ধি পায়। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে।

কোথায় করবেন

দড়ি লাফ উঠান কিংবা ছাদেও করা সম্ভব। ওপরের দিকে যথেষ্ট পরিমাণে শূন্যস্থান থাকলে ঘরের ভেতরেও করা যায়।

সতর্কতা

পায়ের নিচ দিয়ে দড়ি আনার সময় যেন পায়ে পেঁচিয়ে না যায়। এছাড়া শরীরের ভারসাম্য ঠিক রাখার জন্য দৃষ্টি সব সময়ই সামনে থাকবে। আরামদায়ক ফ্ল্যাট জুতা ব্যবহার করতে হবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৮১০ ঘণ্টা, মে ২১, ২০২৪
এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।