ঢাকা, শনিবার, ১০ আশ্বিন ১৪২৮, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬ সফর ১৪৪৩

আইন ও আদালত

সেই মানিককে ৬ মাসের জামিন দিলেন হাইকোর্ট

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪২৮ ঘণ্টা, জুন ২৮, ২০২১
সেই মানিককে ৬ মাসের জামিন দিলেন হাইকোর্ট

ঢাকা: মাদক মামলায় মানিক মিয়ার বদলে গ্রেফতার শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুরের মানিক হাওলাদারকে ছয় মাসের জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে এই মামলার নথি (সিডি) হাইকোর্টে দাখিল করতে সিরাজগঞ্জের জেলা জজকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সোমবার (২৮ জুন) বিচারপতি জেবিএম হাসানের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে আবেদনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী পার্থ সারথী রায়। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুর্টি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায়।  

এর আগে গত ৮ মার্চ এক মানিকের বদলে অন্য মানিক জেল খাটছেন, এমন অভিযোগের ঘটনার বিচারিক তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

সে অনুসারে শরীয়তপুরের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. শামসুল আলম বিচারিক অনুসন্ধান প্রতিবেদন দেন।  

প্রতিবেদনে বলা হয়, মামলার আসামি মানিক মিয়া ও গত বছরের ২৮ নভেম্বর গ্রেফতার মানিক হাওলাদার একই ব্যক্তি নন। তারা সম্পূর্ণ ভিন্ন ব্যক্তি। ওয়ারেন্টভুক্ত মানিক মূলত শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার মালতকান্দির ইব্রাহিম মৃধার ছেলে। অপরদিকে গ্রেফতার মানিক হাওলাদার শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার, চর সখিপুরের আলম চান বেপারী কান্দির নজরুল ইসলাম হাওলাদারের ছেলে।

আরও পড়ুন>>এই মানিক সেই মানিক নয়: বিচারিক প্রতিবেদন

পরে তুষার কান্তি রায় বলেন, আদালত মানিক হাওলাদারকে ছয় মাসের জামিন দিয়েছেন। সিরাজগঞ্জ থেকে মামলার নথি তলব করেছেন। পাশাপাশি মুল আসামির সাজা পরোয়ানাসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে শো’কজ করেছেন। এছাড়া ৮ সপ্তাহের জন্য শুনানি মুলতবি করেছেন।

আইনজীবীরা জানান, ২০০৯ সালে একটি গাড়িতে ফেনসিডিল পাওয়ার অভিযোগে ওই বছরের ২ জুন সিরাজগঞ্জের সলঙ্গা থানায় চারজনের বিরুদ্ধে করা মামলা হয়। পরে ওই মামলার আসামি মানিক মিয়াকে ২০০৯ সালের ৩ জুন গ্রেফতার করেন পুলিশ। কিছুদিন কারাভোগের পর একই বছর হাইকোর্ট থেকে জামিন পান মানিক।

মামলার বিচার শেষে ২০১৯ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি সিরাজগঞ্জ আদালতে রায় ঘোষণা করেন। রায়ে চার আসামিকে চার বছরের কারাদণ্ড দেন।

আসামিরা হলেন- ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গার মন্টু শেখ ওরফে জামাল উদ্দিন ও সোহরাব হোসেন, পটুয়াখালী বাউফল থানার জামাল হোসেন ও শরীয়তপুর জেলার সখিপুর থানার মানিক মিয়া।

মানিক হাওলাদারের ছোট ভাই রতন হাওলাদার জানান, আমাদের বাড়ি হচ্ছে শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুরের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের আলম চাঁন বেপারী কান্দি গ্রামে। আমার বাবার নাম নজরুল ইসলাম আর মায়ের নাম রেজিয়া বেগম।

অন্যদিকে মামলার যে প্রকৃত আসামি মানিক মিয়া। তার বাবার নাম ইব্রাহিম মৃধা, মায়ের নাম লুতফা বেগম। গ্রাম হচ্ছে মালতকান্দি। সখিপুরের ৬ নম্বর ওয়ার্ড। গত বছরের ২৮ নভেম্বর সাজাপ্রাপ্ত মানিক মিয়ার জায়গায় শুধু নামের মিল থাকায় মানিক হাওলাদারকে শরীয়তপুর থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এরপর মানিক হাওলাদারের স্ত্রী স্বামীর মুক্তি চেয়ে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন।

বাংলাদেশ সময়: ১৪২৬ ঘণ্টা, জুন ২৮, ২০২১
ইএস/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa