ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ আশ্বিন ১৪২৯, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

ইসলাম

কাঠের তৈরি বিশাল আকৃতির কোরআন

ইসলাম ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২৭ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৮
কাঠের তৈরি বিশাল আকৃতির কোরআন কাঠে খোদাইকৃত কোরআন

পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বৃহৎ আকারের প্রচুর কোরআন রয়েছে। সেগুলো নিয়ে যথেষ্ট ফিচার-রিপোর্টও লেখা হয়। ফলে সেগুলোর ব্যাপারে মানুষের কিছুটা হলেও ধারণা তৈরি হয়েছে। কিন্তু কাঠে খোদাইকৃত পৃথিবীর সর্ববৃহৎ কোরআন শরিফের কথা হয়তো অনেকে জানেন না।

কাঠে খোদাইকৃত পৃথিবীর সর্ববৃহৎ কোরআনটি রয়েছে দূর প্রাচ্যের দেশ ইন্দোনেশিয়ার দক্ষিণ সুমাত্রা প্রদেশের পালেমবাঙ্গেতে। কাঠের ওপর খোদাইকৃত কোরআনটির প্রতি পৃষ্ঠার দৈর্ঘ্য ১.৭৭ মিটার এবং প্রস্থ ১.৪০ মিটার।

অর্থাৎ ৫.৮ ফুট দৈর্ঘ্য এবং ৪.৬ ফুট প্রস্থ।

এমন কোরআনের পাণ্ডুলিপি প্রস্তুতকারক সাফওয়াতিল্লাহ মোহজাইব বলেন, ত্রিশ পারা কোরআনের এই পাণ্ডুলিপিটি তৈরি করতে নয় বছর সময় লেগেছে। প্রয়োজনীয় কাঠ ও অর্থের অভাবেই মূলত কাজ নির্ধারিত সময়ে শেষ করতে দেরি হয়েছে।

সাফওয়াতিল্লাহ জানান, জাতীয় সংসদের উচ্চকক্ষের সাবেক স্পিকার মারজুকি আলিয়ে এবং নিম্নকক্ষের সাবেক চেয়ারম্যান তৌফিক কিমার মতো আরো কিছু দাতার সহায়তায় তিনি তার মহৎকর্ম সম্পন্ন করতে সক্ষম হন।
কাঠে খোদাইকৃত কোরআন পরিদর্শনে এক দর্শনার্থী২০০০ সালে প্রথম সফওয়াতিল্লাহর মাথায় এমন কাজ করার চিন্তা আসে। তখন তিনি পালেমবাঙ্গের মসজিদে ক্যালিওগ্রাফিবিষয়ক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করছিলেন। এক বছর পর তিনি কোরআনের প্রথম পৃষ্ঠার সুরা ফাতিহা খোদাই করে লিখতে আরম্ভ করেন।

কাঠ খোদাইয়ের পূর্বে সাফওয়াতিল্লাহ ভিন্ন একটি কার্ডবোর্ডে নকশা এঁকে বিশেষজ্ঞদের দেখাতেন। তাদের অনুমোদন পাওয়ার পর তিনি ট্রেসিং পেপারে নকশাটি ওঠাতেন এবং এরপর খোদাইয়ের কাজ শুরু করেন। এভাবে এক পৃষ্ঠা সমাপ্ত করতে এক মাসেরও বেশি সময় লেগে যেত তার।

কাঠের বৃহৎ পাণ্ডুলিপিটি তৈরিতে তিনি স্থানীয় টেমবেসু গাছের কাঠ ব্যবহার করেন। শক্ত, মজবুত, টেকসই ও দীর্ঘমেয়াদী হওয়ায় দক্ষিণ সুমাত্রায় বিভিন্ন স্থায়ী কাঠামো নির্মাণে এ কাঠ ব্যবহার করে থাকেন স্থানীয়রা।

পাঁচতলা বিশিষ্ট এ বিশাল কোরআনটি পেলামবাঙ্গের আল-ইহসানিয়া গান্দুস বোর্ডিং স্কুলের আল-কুরআন আল আকবর জাদুঘরে রাখা হয়েছে। ২০১১ সালে ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট সুসিলো বাম্বাং যুহোয়ানোও বৃহদাকারের এ কোরআন প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন।

প্রতিদিন কোরআনটির প্রদর্শনী দেখতে প্রচুর দর্শনার্থী হাজির হন। বর্তমানে ইন্দোনেশীয় নাগরিকদের কাছে আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দু এ কোরআন। সাফওয়াতিল্লাহর ভাষ্যানুযায়ী, ২০১২ সাল থেকে কমপক্ষে ১০ লাখ দর্শনার্থী কোরআনটি পরিদর্শন করেছেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৬০৮ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৮
এমএমইউ/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa