ঢাকা, সোমবার, ২ বৈশাখ ১৪৩১, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৫ শাওয়াল ১৪৪৫

ইসলাম

আখেরি মোনাজাতে শেষ হলো বিশ্ব ইজতেমা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১১৪৮ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২৪
আখেরি মোনাজাতে শেষ হলো বিশ্ব ইজতেমা ফাইল ছবি

গাজীপুর: আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হলো তাবলীগ জামাত আয়োজিত এবারের বিশ্ব ইজতেমা।

রোববার (১১ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টা ১৭ মিনিটে শুরু হয় আখেরি মোনাজাত।

আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করেন নিজামুদ্দিনের অনুসারী ভারতের মাওলানা ইউসুফ বিন সাদ কান্ধলভী। মোনাজাত শেষ হয় ১১টা ৪৩ মিনিটে।

এ সময় আমিন আমিন ধ্বনিতে কম্পিত হয় পুরো ইজতেমা ময়দান। তুরাগ তীরে সমবেত হয়ে অশ্রুভেজা চোখে লাখ লাখ মুসল্লি দেশ জাতি ও মুসলিম উম্মাহর ঐক্য-শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করেন। আল্লাহর দরবারে দুই হাত তুলে প্রতিপালকের কাছে ক্ষমা চেয়ে কান্নার বুক ভাসায় দেশ-বিদেশের লাখো মুসল্লি। গোটা দুনিয়ায় পথভ্রষ্ট মুসলমানের সঠিক পথে চলা এবং তাবলীগের কাজে সবাইকে নিয়োজিত হওয়ার তাওফিক কামনা করে মহান আল্লাহর রহমত, মাগফিরাত ও নাজাত প্রার্থনা করা হয়। ইহলৌকিক ও পারলৌকিক কল্যাণ কামনায় দেশ-বিদেশের লাখ লাখ মুসল্লি স্রষ্টার দরবারে কান্নাকাটি করেন। লাখো কণ্ঠে উচ্চারিত হয় আমিন-আমিন।  

রোববার (১১ ফেব্রুয়ারি) বাদ ফজর বয়ান করেন ভারতের মাওলানা মুফতি মাকসুদ। পরে তার বয়ান বাংলা তরজমা করেন মাওলানা আব্দুল্লাহ। এর পরেই হেদায়েতের বয়ান ও আখেরি মোনাজাত শুরু হয়। বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করেন নিজামুদ্দিনের অনুসারী মাওলানা ইউসুফ বিন সাদ।

প্রতি বছর গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগ তীরে অনুষ্ঠিত হয় বিশ্ব ইজতেমা। দেশের লাখ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসুল্লি টঙ্গীর তুরাগ তীরে ইজতেমায় অংশ নেন। এছাড়াও সৌদি আরব, মালয়েশিয়া, ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, ভুটান, শ্রীলংকা, কাতার ও আফগানিস্তানসহ বিভিন্ন দেশের হাজার হাজার মুসুল্লি বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নেন। এক ময়দানে থাকা-খাওয়া এবং রাত্রিযাপনসহ আল্লাহকে রাজি খুশি করাতে আমল করেন এসব মুসল্লিরা। ইজতেমা ময়দানে বসে শুনেন বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় সব  মাওলানাদের বয়ান। তাবলীগ জামাত আয়োজন করে এই বিশ্ব ইজতেমার। এটি ৫৭তম বিশ্ব ইজতেমা। দুই পর্বে অনুষ্ঠিত হয় বিশ্ব ইজতেমা। প্রথম পর্বে শুরায়ে নিজাম অনুসারী মুসল্লি এবং দ্বিতীয় পর্বে নিজামুদ্দিন অনুসারী মুসল্লিরা বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নেন।

গত ১ ফেব্রুয়ারি আম বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। পরে ৪ ফেব্রুয়ারি আখেরি মোনাজাতে শেষ হয় প্রথম পর্বের আনুষ্ঠানিকতা। এরপর গত ৮ ফেব্রুয়ারি শুরু হয় দ্বিতীয় পর্বের আনুষ্ঠানিকতা। আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে রোববার (১১ ফেব্রুয়ারি) শেষ হলো এবারের বিশ্ব ইজতেমা।

আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে রোববার সকাল থেকেই গাজীপুরসহ আশপাশ জেলা এবং দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে মুসল্লিরা আসতে শুরু করে ইজতেমার ময়দানে। অনেকেই তুরাগ নদীতে নৌকায় বসে বিভিন্ন কলকারখানা ও বাসা বাড়ির ছাদে মহাসড়কের ওপর ফ্লাইওভারসহ বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নিয়ে দুই হাত তুলে ফরিয়াদ জানান আল্লাহ দরবারে। সকাল থেকেই ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা বাস, ট্রাক, পিকআপ, অটোরিকশা, ট্রেন ও নৌকাসহ বিভিন্ন যানবাহনে এবং পায়ে হেঁটে ইজতেমা ময়দানে আসেন। হেদায়েতের বয়ান শেষে শুরু হয় আখেরি মোনাজাত।

নিজামুদ্দিনের অনুসারী বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের মিডিয়া সমন্বয়কারী মোহাম্মদ সায়েম জানান, দেশ-বিদেশের লাখ লাখ মুসল্লির আগমনে ভরে যায় ইজতেমার ময়দান। শান্তিপূর্ণভাবেই আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হলো এবারের বিশ্ব ইজতেমা। বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে অংশ নেওয়া সাত মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে।

আরও পড়ুন: বিশ্ব ইজতেমা: দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাত শুরু

বাংলাদেশ সময়: ১১৪৬ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২৪
আরএস/এসআইএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।