ঢাকা, মঙ্গলবার, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২১ মে ২০২৪, ১২ জিলকদ ১৪৪৫

আন্তর্জাতিক

সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচিকে ভিন্ন মত দমনে ব্যবহার করছে চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০৪২ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২২, ২০২০
সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচিকে ভিন্ন মত দমনে ব্যবহার করছে চীন

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক একজন সমাজ বিজ্ঞানী দাবি করেছেন, চীনের সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচির ভূমিকা পাল্টে গেছে। ‘ডিবাও’ নামের ওই কর্মসূচি দরিদ্রদের সহায়তা দেওয়া থেকে সরে এসেছে।

এই কর্মসূচি এখন ভিন্নমত দমন করার জন্য আংশিকভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে।

জীবনযাত্রার ন্যূনতম মান নিশ্চিত করতে ও আয় বৈষম্য কমাতে ‘ডিবাও’ চীনের একমাত্র সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি।

দ্য সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট জানাচ্ছে, এই প্রকল্পে নিঃশর্ত নগদ স্থানান্তর এবং সুবিধা প্রদান করা হয়েছে, যাদের আয় স্থানীয় সরকার দ্বারা নির্ধারিত সীমার মধ্যে পড়ে।

সম্প্রতি জেনিফার প্যান নামের এক লেখক ‘ওয়েলফেয়ার ফর অটোক্র্যাটস’ নামের একটি বই প্রকাশ করেছেন। যেখানে তিনি চীনের ‘দমনমূলক সাহায্যের’ ধারণা ব্যাখ্যা করেছেন। তিনি মনে করেন, এই ব্যাখ্যার মাধ্যমে হয়তো তিনি একটা আঘাত করতে পেরেছেন।  

স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের কমিউনিকেশনের সহকারী অধ্যাপক প্যান বলেন, সময়ের সাথে সাথে, বিশেষ করে ১৯ সালে ফালুন গং বিক্ষোভের পর, আপনি একটি পরিবর্তন দেখতে পাচ্ছেন যে চীনা সরকার স্থিতিশীলতা নিয়ে কী ভাবছে- এটা কতটা গুরুত্বপূর্ণ, অর্থনৈতিক উন্নয়নের সাথে তার সম্পর্ক এবং কিভাবে তা অনুসরণ করা যায়।

তাই জননিরাপত্তার ব্যাপক ব্যবস্থাপনা আছে এবং এই পরিবর্তনের কারণে ডিবাও ব্যক্তিকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য বিশেষভাবে ব্যবহার করা হয়।

প্যান বলেন, সময়ের সাথে সাথে কর্তৃপক্ষের কাছে এটা পরিষ্কার হয়ে যায়, নিরাপত্তা শুধু রাজনৈতিক শৃঙ্খলার নিশ্চয়তা দিতে পারে না। তখন বেইজিং নির্দিষ্ট নাগরিকদের নিয়ন্ত্রণ করতে ডিবাও ব্যবহার শুরু করে।  

দ্য সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট জানিয়েছে, স্থানীয় সরকারের তহবিল সংকটের কারণে ২০১১ সাল থেকে শহর এবং গ্রামাঞ্চলে ডিবাও কর্মসূচির সদস্য সংখ্যা কমে যাচ্ছে। তাছাড়া যারা মনে করেন, সরকারের সাহায্য নিলে কাজের উৎসাহ কমে যায়, তারা এ কর্মসূচি থেকে দূরে সরে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, ২০১৩ সালে যখন আমি ফিল্ডওয়ার্ক করছিলাম, তখন আমি স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলেছি। আমি যা বুঝেছি তা হলো, এই কর্মসূচি আদৌ মৌলিক অর্থনৈতিক অবস্থার ওপর ভিত্তি করে নয়।

বাংলাদেশ সময়: ২০২৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২২, ২০২০
নিউজ ডেস্ক

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।