ঢাকা, শুক্রবার, ১৩ মাঘ ১৪২৯, ২৭ জানুয়ারি ২০২৩, ০৪ রজব ১৪৪৪

আন্তর্জাতিক

নেপালে অলি-প্রচন্দ’র ৮৬, দেউবার ঝুলিতে মাত্র ১৩ আসন

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৩০৪ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১০, ২০১৭
নেপালে অলি-প্রচন্দ’র ৮৬, দেউবার ঝুলিতে মাত্র ১৩ আসন  নেপালের নির্বাচনে কার কতো আসন।

ঢাকা: নেপালের নির্বাচনে ক্ষমতাসীন কংগ্রেসের বিপর্যয় এখন নিশ্চিতই বলা চলে। ভোট গণনা যতো শেষের দিকে এগুচ্ছে ততোই পোক্ত হচ্ছে বাম জোটের অবস্থান। কমিউনিস্ট পার্টি অব নেপাল-ইউনাইটেড মার্কসিস্ট লেনিনিস্ট (সিপিএন-ইউএমএল) ও মাওবাদী কেন্দ্র’র গড়া বাম জোটের চেয়ে ক্ষমতাসীনদের পিছিয়ে পড়ার ব্যবধান প্রতি মুহূর্তেই বাড়ছে।

দাদেলধুরা-১ আসনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পর বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শের বাহাদুর দেউবা ৭ হাজারেরও কম ভোট নির্বাচিত হলেও তার দলের অনেক হেভিওয়েট ক্যান্ডিডেটই বাম জোটের অখ্যাত প্রার্থীদের কাছে ধরাশায়ী হয়েছেন।

বাম জোটের শীর্ষ নেতা ইউএমএল প্রধান কেপি শর্মা অলি নির্বাচিত হয়েছেন বিপুল ভোটের ব্যবধানে।

মাওবাদী কেন্দ্র প্রধান পুষ্প কমল দাহাল নিজের আসনে এগিয়ে থেকে জয়ের পথেই হাঁটছেন।  

এ পর্যন্ত গণনা শেষ হওয়া ফেডারেল পার্লামেন্টের ১১১ আসনের মধ্যে মাত্র ১৩টিতে জিতেছে ক্ষমতাসীন নেপালি কংগ্রেস। আর প্রভিনশিয়াল অ্যাসেম্বলি’র ১৫৪ আসনের ভোট গণনা শেষে সাকুল্যে ২৫ আসনে জিততে পেরেছে তারা।  

এ পর্যন্ত জয়-পরাজয় নির্ধারণ হয়ে যাওয়া ফেডারেল পার্লামেন্টের ২০৬ আসনের মধ্যে ১১২ আসনে জিতে সবার ‍উপরে অবস্থান নিয়েছে কমিউনিস্ট পার্টি অব নেপাল-ইউনাইটেড মার্কসিস্ট লেনিনিস্ট (সিপিএন-ইউএমএল)। ৪৯ আসনে জিতে দ্বিতীয় অবস্থানে আছে তাদেরই নির্বাচনী মিত্র পুষ্প কমল দাহাল প্রচন্দে’র নেতৃত্বাধীন কমিউনিস্ট পার্টি অব নেপাল-মাওয়িস্ট সেন্টার(মাওবাদী কেন্দ্র)।

এর মানে, ঘোষিত ফেডারেল ‍পার্লামেন্টে ১১১ আসনের ফলাফলে বাম জোটই পেয়েছে ৮৬ আসন। আর ১২ আসন নিয়ে এ পর্যন্ত ১৩ আসন পাওয়া কংগ্রেসের গায়ে গায়ে ‍ছুটছে ‍অন্যান্য দলের প্রার্থীরা।

এছাড়া ইউএমএল এগিয়ে আছে আরো ১৭ আসনে। মাওবাদীদের এগিয়ে থাকা আরো ১০ ‍আসন ধরলে বামজোটের এগিয়ে থাকা আসন সংখ্যা দাঁড়ায় ২৭। এদের নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হলেও কংগ্রেস এগিয়ে আছে মাত্র ১০টি আসনে। আর ১৫ আসনে এগিয়ে আছে অন্যান্য দলের প্রার্থীরা।

প্রভিনশিয়াল অ্যাসেম্বলির ফল ঘোষিত ২০৬ আসনের মধ্যে ১৬১টিই ঝুলিতে পুরেছে বাম জোট। কংগ্রেস জিতেছে মাত্র ২৫টি আসনে। ২০টি আসনে অন্য দলের প্রার্থীরা জয়ী হয়েছে। আর গণনা চলতে থাকা আসনগুলোর মধ্যে বামজোট ৫৯ আসনে এগিয়ে থাকলেও মাত্র ১৭টিতে এগিয়ে আছে কংগ্রেস।

গত ২৬ নভেম্বর প্রথম দফার ভোট হয় নেপালে। দ্বিতীয় দফার ভোট হয় ৭ ডিসেম্বর। বর্তমানে সব আসনের ভোট গণনা চলছে। ভোট শেষ হওয়ার পর সব কেন্দ্র থেকে ব্যালট বাক্স নিয়ে এসে কেন্দ্রীয়ভাবে নেপাল নির্বাচনের ভোট গণনা করা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৯০০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১০, ২০১৭
জেডএম/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa