ঢাকা, শনিবার, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৫ মে ২০২৪, ১৬ জিলকদ ১৪৪৫

আন্তর্জাতিক

আত্মীয়করণ! জামাতাকে উপদেষ্টা বানালেন ট্রাম্প

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৫৫৪ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১০, ২০১৭
আত্মীয়করণ! জামাতাকে উপদেষ্টা বানালেন ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তার মেয়ে-জামাই জেরাড কুশনারকে যুক্তরাষ্ট্র প্রেসিডেন্টের জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টার পদে বসাচ্ছেন। ক্ষমতা গ্রহণ প্রক্রিয়ার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট টিম সোমবার এই ঘোষণা দিয়েছে।

ট্রাম্প কন্যা ইভাঙ্কার স্বামী কুশনার গত নির্বাচনের সাফল্যে দৃশ্যপটের বাইরে থেকে বড় ভূমিকা রেখেছেন এমনটাই বলা হয়। ধারনা করা হচ্ছে তারই পুরস্কার দিচ্ছেন শ্বশুর ডোনাল্ড ট্রাম্প।

বলা হয়েছে নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্টের ভেতরের লোক হিসেবে হোয়াইট হাউসের চিফ অব স্টাফ রেইন্স প্রিবাস ও চিফ স্ট্রাটেজিস্ট স্টিভ ব্যানোনের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করবেন কুশনার।

ট্রাম্প নিজেও এক বিবৃতিতে জেরাড কুশনারের প্রশংসা করেছেন। তিনি বলেন, জেরাড পুরো ক্যাম্পেইনে আস্থার সাথে কাজ করেছেন। আমার প্রশাসনের নেতৃত্ব পর্যায়ে তাকে পেয়ে আমি গর্বিত।

ট্রাম্প আরও বলেন, জেরাড ব্যবসায় যেমন তেমনই রাজনীতিতে অবিশ্বাস্য রকমের সফল একজন। আমার যেসব উচ্চাভিলাষি এজেন্ডা রয়েছে সেগুলো বাস্তবায়নে তিনি অমূল্য একজন সদস্য হবেন।  

আর কুশনার এক বিবৃতিতে বলেন, নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ও আমেরিকার জনগণের ভালোবাসায় আমি বাড়তি শক্তি পাচ্ছি।

এদিকে রাজনৈতিক বিশ্লেষক-পর্যবেক্ষকরা ট্রাম্পের এই সিদ্ধান্তে বিষ্মিত হয়েছেন। তবে সম্প্রতি কুশনার ও ইভাঙ্কা তাদের তিন সন্তান নিয়ে হোয়াইট হাউজের কাছাকাছি একটি ছয় বেডরুমের বাড়িতে ওঠার পর থেকে ধারনা করা হচ্ছিলো হোয়াইট হাউজে বড় পদ পেতে যাচ্ছেন এই দম্পতি।

কুশনারের আইনজীবীদের বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে, হোয়াইট হাউজে পাওয়া এই কাজের জন্য কুশনার কোম্পানিজ এর সিইও’র পদ থেকে সরে দাঁড়াবেন তিনি।
এদিকে মিডিয়াগুলো এই খবরও দিচ্ছে যে শিগগিরই পারিবারিক রিয়েল এস্টেট কোম্পানির পদ ছাড়ছেন ইভাঙ্কা ট্রাম্পও। তবে কুশনারের মতো ট্রাম্প প্রশাসনের কোনও আনুষ্ঠানিক পদ তিনি নাও নিতে পারেন।
জামাতাকে হোয়াইট হাউজের ওয়েস্ট উইংয়ে বসানোর জন্য ট্রাম্পকে অবশ্য আটকে দিতে পারতো দেশটির আইন। ফেডারেল ল’ তে বলা হয়েছে প্রেসিডেন্টসহ কোনও সরকারি কর্মকর্তাই তার পরিবারের সদস্যদের সরকারি চাকরিতে নিতে পারবেন না। কিন্তু ট্রাম্পের ভাগ্য ভালো- কারণ এই আইনের আওতামুক্ত করা হয়েছে হোয়াইট হাউজকে।
সেটাও হয়েছে বেশি দিন আগে নয়। ১৯৯৩ সালে প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন যখন তার স্ত্রী হিলারি ক্লিনটনকে হোয়াইট হাউজ হেলথ কেয়ার টাস্ক ফোর্সের দায়িত্ব দেন তখন সেই প্রশ্ন উঠেছিলো। কিন্তু কেন্দ্রীয় আপিল আদালত সেবার রায় দিলো হোয়াইট হাউজ এর আওতামুক্ত। আর তার কারণও ছিলো যে পদটি ছিলো বিনা বেতনের।

তাহলে প্রশ্ন উঠেছে ট্রাম্পের জামাতাও কি প্রশাসনের এই দায়িত্ব বিনা বেতনে পালন করবেন?

বাংলাদেশ সময় ১১৪৬ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১০, ২০১৭
এমএমকে 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।