ঢাকা, শনিবার, ১৬ আশ্বিন ১৪২৯, ০১ অক্টোবর ২০২২, ০৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

ফুটবল

খুনিয়াপালং নিয়ে এখনই কোনও মন্তব্য নয়: সোহাগ

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, স্পোর্টস | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮২১ ঘণ্টা, জুলাই ২১, ২০২২
খুনিয়াপালং নিয়ে এখনই কোনও মন্তব্য নয়: সোহাগ

পর্যটন নগরী কক্সবাজারের রামু উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়নে হচ্ছে ফিফার অর্থায়নে ‘বাফুফে সেন্টার অব এক্সিলেন্স’। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) অনুকুলে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের কাছে ২০ একর জমি হস্তান্তর করেছে কক্সবাজার দক্ষিণ বনবিভাগ।

কক্সবাজারের রামুর খুনিয়াপালং ইউনিয়নের জঙ্গল খুনিয়াপালং মৌজার রিজার্ভ ফরেস্ট থেকে রাষ্ট্রপতির আদেশে ডি-রিজার্ভ করা ২০ একর জমি যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের কাছে সোমবার (৪ জুন) দুপুরে হস্তান্তর করা হয়। এরপর থেকেই সেই জমিতে সেন্টার অব এক্সিলেন্স নির্মানের বিপক্ষে কথা বলছেন পরিবেশবিদরা। তবে এই বিষয়ে এখনই কোনও মন্তব্য করতে চান না বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সাধারন সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ।  

তিনি বলেন, ‘এখনই আমি এটা নিয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাই না। আমরা সরকারের কাছে জমি চেয়েছিলাম সরকার আমাদের জমি দিয়েছেন। এখন এটা নিয়ে কোনও অভিযোগ থাকলে আমাদের বসার প্রয়োজন হলে আমরা বসবো আলোচনা করবো। আমাদের কোনও নির্দেশনা দেয়া হলে আমরা জানাবো। এখনও কোনো নির্দেশনা আমরা পাইনি। ’

খুনিয়াপালংয়ে যে সেন্টার অব এক্সিলেন্স গড়া হচ্ছে তা পরিবেশের ক্ষতি না করে গড়ে তোলা সম্ভব। যেহেতু এটা এক্সিলেন্স সেন্টার এটা কোনও স্টেডিয়াম না সেহেতু এটা পরিবেশের ক্ষতি না করেও গড়ে তোলা সম্ভব। এটা কি আলোচনা হলে বাফুফে তুলে ধরবে কিনা? 

এমন প্রশ্নের জবাবে সোহাগ বলেন, ‘যদি আমরাদের বসা হয় তাহলে মোটা দাগে সব কিছু নিয়েই আলোচনা করা হবে। সরকার থেকে আমাদের যে জায়গা ডি ফরেস্টেশন করে দিয়েছে, তার পক্ষে সব কিছুই আমরা বলবো। যুক্তি নিয়েই আমরা কথা বলবো। সরকারের সিদ্ধান্তের প্রতি আমরা শ্রদ্ধাশীল। সরকার আমাদের যে সিদ্ধান্ত দেবে তাই আমরা মেনে নেব। ’

বাংলাদেশ সময়: ১৮২১ ঘণ্টা, জুলাই ২১, ২০২২
এআর/আরইউ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa