ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২ ভাদ্র ১৪২৯, ১৮ আগস্ট ২০২২, ১৯ মহররম ১৪৪৪

ফিচার

কোলাব্যাঙের কোলাহলে (ফটো ও ভিডিও স্টোরি)

ফটো ও স্টোরি: দীপু মালাকার, স্টাফ ফটো করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২২০৮ ঘণ্টা, মে ১৮, ২০১৭
কোলাব্যাঙের কোলাহলে (ফটো ও ভিডিও স্টোরি) কোলাব্যাঙের কোলাহলে

ঢাকাঃ বৃষ্টিস্নাত রাজধানীর এক মেঘলা আকাশের ভোর। ঢাকা শহরের ব্যস্ততা সবে মাত্র শুরু হয়েছে।  ঢাকার অদূরে বছিলা ব্রিজ পেরিয়ে কেরানীগঞ্জের দিকে হাঁটছি।  মেঘলা আকাশ।

ছবি তোলার জন্য আলোটা মোটেই ফুটছে না। ক্যামেরা ব্যাগেই বন্দী হয়ে ছিল।

কিন্তু কেরানীগঞ্জের ওয়াসপুরের ঘাটেরচর আসতেই কানে বাজতে থাকে ঘ্যাঙর ঘ্যাঙর ঘ্যাঙ। ব্যাঙ ডাকছে। একটু এগুতেই চোখ ছানাবড়া! আরে এযে দেখি ব্যাঙের কোলাহল। নতুন পানি পেয়ে হল্লা জুড়ে দিয়েছে কোলাব্যাঙ গুলো। ডাকাডাকি…লাফালাফি… ঝাপাঝাপি কি না করছে। দুটিতো পরম সুখে লিপ্ত ছিলো সঙ্গমেও।
 
কোলাব্যাঙের কোলাহলে
আর যায় কোথায়! ক্যামেরাবন্দি করে নিলাম। ফটো আর ভিডিওতে। দেখুনই না মজাটা! আর ওই যে ব্যাঙ দেখলে দুষ্ট খোকার দলের ঢিল ছোঁড়া! এমনই ভাগ্য পেয়ে গেলাম সে দৃশ্যও।  

ব্যাঙেদের কোলাহলে
ঘাটেরচরের ১নং ঘাটের চর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠ এটি। ভোর রাত্রির বৃষ্টিতে মাঠে গোড়ালি সমান পানি। আর তাতেই এই ব্যাঙদলের খেলা আর ঘ্যাঙর ঘ্যাঙর ডাক। আর ভালো করে তাকাতেই বুঝলাম শুধু খেলা বা ডাকাডাকি না এখানে অন্য কিছু হচ্ছে!
 
ব্যাঙেদের কোলাহলে
একটু সামনে এগিয়েই দেখা মিলল কোরাস দলের। সম্ভবত ব্যাঙের দল  ভালোবাসার আবেগে নিজের সংগীত প্রতিভা জাহির করছে।
 
ব্যাঙেদের কোলাহলে
পানিতে নেমে ছবি তুলছি দেখে স্থানীয় এক বয়োজ্যেষ্ঠ হাসি মুখে এসে কথা শুরু করে দেন। আব্দুল গনি উনার নাম। তার কাছেই জানতে পারলাম, স্থানীয় ভাষায় ব্যাঙগুলোকে ডাকা হয় বাউয়া ব্যাঙ বলে। আর এই মাঠে আছে আরও হরেক ব্যাঙ। বাওয়া ব্যাঙের হলুদ ব্যাঙ, কালো ব্যাঙ, কোট ব্যাঙ, ঘড় কুনি ব্যাঙ।

ব্যাঙেদের কোলাহলে
হাসতে হাসতে বলছিলেন, চৈত্র বৈশাখ ব্যাঙগুলান মাটির তলেই থাকে। আর জ্যৈষ্ঠ আষাঢ়ের বর্ষা শুরু হইতে উপরে আইসা পরে ডিম পারার লেইগা। দেখ না, একটা আরেকটারে ক্যামনে ভালবাসতাছে। অর্থাৎ ব্যাঙের সঙ্গমকাল এটি।
 
ব্যাঙেদের কোলাহলে
কোন ব্যাঙের কি রঙ জিজ্ঞাস করতেই বললেন, এমনিতে পুরুষগুলোর রঙ থাকে মেয়েদের মতই। কিন্তু বর্ষায় এরা সম্পূর্ণ হলদে হয়ে যায়।
 
ব্যাঙেদের কোলাহলে
তরুণ ব্যাঙগুলো যৌবন-জ্বালায় মিলন সঙ্গিনীকে ডাকছিল তারস্বরে। ডাকের সাথে নীল রঙের থলি ফুলে ফুলে উঠছিল।
 
ব্যাঙেদের কোলাহলে
পুরুষ বাউয়া ব্যাঙের মদির আহ্বানে কোন কোন তরুণী বাউয়া ব্যাঙ সাড়াও দিল। চোখের সামনে নির্লজ্জের মত চলতে থাকে কোলা ব্যাঙ দম্পতিদের রতিক্রীড়া। তাদের বিরক্ত না করে আমি নিরাপদ দূরত্বে দাঁড়িয়েই ছবি তুলি।
 
ব্যাঙেদের কোলাহলে
তবে এরকম উদ্দাম প্রেমের মাঝে কখনো কখনো অসূয়াপরায়ণ অন্য তরুণেরা বাধা দেয়। হাতাহাতি-মারামারি-লাফালাফিও চলতে থাকে।
 
ব্যাঙেদের কোলাহলে
কখনো আবার দলবদ্ধভাবেই চলতে থাকে যৌনমিলন – সঙ্গীবদলও হয়।
 
ঢিল ছুঁড়ে ব্যাঙদের ছত্রভঙ্গ
আর অন্যদিকে শিশুরা ব্যস্ত সেই পানিতে ঢিল ছুঁড়ে ব্যাঙদের ছত্রভঙ্গ করে দিতে। আব্দুল গনি কথা বলতে বলতেই উঠে গেলেন তাদের ধমকে থামতে। ফিরে এসে আক্ষেপের সুরে বলেন পুলাপাইনরা বুঝেও না, খেলার ছলেই মাইরা ফেলে ব্যাঙগুলান।

বাংলাদেশ সময়:  ০৩৫০ ঘণ্টা, ১৭ মে, ২০১৭
এমএমকে

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa