ঢাকা, বুধবার, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

বিনোদন

৭৩ বছরে বলিউডের ‘ড্রিম গার্ল’

বিনোদন ডেস্ক  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৩৩২ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৬, ২০২১
৭৩ বছরে বলিউডের ‘ড্রিম গার্ল’ হেমা মালিনী

যার নাম মনে পড়লেই হৃদয়ের ক্যানভাসে ভেসে ওঠে কাজল কালো দুটি চোখ, মিষ্টি হাসি আর নয়নাভিরাম চেহারার প্রতিমারূপী এক নারীর কথা। তিনি বলিউডের ‘ড্রিম গার্ল’ হেমা মালিনী।

 

শনিবার (১৬ অক্টোবর) এই অভিনেত্রীর জন্মদিন। ১৯৪৮ সালের এ দিনে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। জীবনের ৭৩ বছরে পা রাখলেন এ অভিনেত্রী। এই বয়সেও সজীব, চিরসবুজ। শুধু রূপালি পর্দা থেকে রাজনীতির আঙিনায় উজ্জ্বল তার জীবন।

ক্যারিয়ারের শুরুতে তারকাসুলভ চেহারা নেই বলে তামিল পরিচালক সিভি শ্রীধরের সিনেমা থেকে বাদ পড়েছিলেন হেমা মালিনী। পরে সেই চরিত্রে অভিনয় করেন জয়ললিতা।  

১৯৬৫ সালে ‘পার্ব বনবাসাম’ সিনেমায় ছোট্ট চরিত্রের মাধ্যমে প্রথম বলিউডে প্রবেশ। এর আগে তামিল ভাষার চলচ্চিত্র ‘ইদু সাথিয়া’তে পার্শ্ব চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন হেমা মালিনী। নায়িকা চরিত্রে তার অভিষেক হয় ১৯৬৮ সালে ‘স্বপ্ন কা সওদাগর’ সিনেমা দিয়ে।  

মহানায়ক রাজ কাপুরের সঙ্গে জুটি বেঁধে করা ‘স্বপ্ন কা সৌদাগর’ এর পর তাকে সবাই হিন্দি চলচ্চিত্র শিল্পের ‘ড্রিম গার্ল’ বা ‘স্বপ্নের তরুণী’ নামে অভিহিত করে। চলচ্চিত্রটির সাফল্যের পর আর পেছন ফেরে তাকাতে হয়নি তাকে হেমা মালিনীকে।  

আশি ও নব্বই দশকে বলিউডের বক্স অফিসের তুরুপের তাস হয়ে ওঠেন হেমা মালিনী। তার অভিনীত ‘ক্রান্তি’, ‘নসীব’, ‘সত্তে পে সত্তা’, ‘এক নাহি পেহেলি’, ‘রামকালি’, ‘সীতাপুর কি গীতা’, ‘জামাই রাজা’, ‘আলিবাবা অউর ৪০ চোর’, ‘সম্রাট’, ‘আন্ধা কানুন’, ‘দরদ’, ‘কুদরত’, ‘হাম দোনো’, ‘রাজপুত’, ‘বাবু’, ‘দুর্গা’সহ বহু সিনেমা সুপারহিট হয় ওই সময়ে।  

স্বামী ধর্মেন্দ্রের সঙ্গে হেমা মালিনী

অভিনেতা ধর্মেন্দ্র, অমিতাভ বচ্চন, রাজেশ খান্নার মতো তারকাদের সঙ্গে জুটি বেঁধে অভিনয় করেছেন হেমা মালিনী। ক্যারিয়ারে সর্বমোট ১১ বার ফিল্ম ফেয়ার পুরস্কারে সেরা অভিনেত্রী হিসেবে মনোনয়ন পান। ২০০০ সালে তিনি পদ্মশ্রী সম্মাননা লাভ করেন।

ধমেন্দ্রের সঙ্গে হেমা মালিনী প্রথম অভিনয় করেন ১৯৭০ সালে ‘তুম হাসিন ম্যায় জাওয়ান’ সিনেমায়। তারা বেশ কয়েকটি সিনেমা জুটি হয়ে অভিনয় করেছেন। অভিনয় করতে গিয়েই দু’জনের প্রেম হয়। হেমা মালিনীকে কাছে পেতে আগের স্ত্রী, সন্তান এবং কী ধর্মও ত্যাগ করেছিলেন ধমেন্দ্র।  

হেমা মালিনী ২০০৪ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে বিজেপিতে যোগ দেন। ২০০৯ সাল পর্যন্ত রাজ্যসভার সদস্য ছিলেন তিনি। ২০১০ সালে তাকে বিজেপির সাধারণ সম্পাদক বানানো হয়। চার বছর পর মথুরার জয়ন্ত চৌধুরীকে বিশাল ভোটের ব্যবধানে হারিয়ে লোকসভার সদস্য হন এ অভিনেত্রী।

হেমা মালিনী অভিনয় আর নাচের বাইরে দর্শকদের মুগ্ধ করতেন অসাধারণ ফ্যাশন সেন্স দিয়েও। সত্তর দশকে নায়িকাদের বেলবটম প্যান্ট পরার চল তিনিই শুরু করেছিলেন। সে সময় হেমা মালিনীকে দেখে তরুণীদের মধ্যে বেলবটম প্যান্ট, ফুলহাতা শার্ট আর মাথায় লম্বা টুপি পরার প্রচলন হয়েছিল।  

বাংলাদেশ সময়: ১৩৩২ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৬, ২০২১ 
এনএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa