ঢাকা, শনিবার, ৩ আশ্বিন ১৪২৮, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯ সফর ১৪৪৩

বিনোদন

‘অ্যাগ্রিকালচার’ শব্দকে গালি হিসেবে নাটকে ব্যবহারের অভিযোগ

বিনোদন ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১২৬ ঘণ্টা, জুলাই ২৯, ২০২১
‘অ্যাগ্রিকালচার’ শব্দকে গালি হিসেবে নাটকে ব্যবহারের অভিযোগ রাফসান, বান্নাহ ও সজল

‘ঘটনা সত্য’ নাটকে বিশেষ শিশুদের ভুলভাবে ব্যাখ্যা করার বিতর্কের মধ্যে আরেকটি নাটক নিয়ে সমালোচনা শুরু হয়েছে। এবার জনপ্রিয় নির্মাতা মাবরুর রশিদ বান্নাহ পরিচালিত ‘দ্য টিচার’ নাটকে ‘অ্যাগ্রিকালচার’ শব্দকে গালি হিসেবে ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে।

কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশের পক্ষ থেকে এই অভিযোগটি করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) প্রতিষ্ঠানটির দফতর সম্পাদক কৃষিবিদ এম এম মিজানুর রহমান স্বাক্ষরিত একটি প্রতিবাদ লিপি বেসরকারি টেলিভিশন এনটিভিকে পাঠানো হয়েছে। এতে তীব্র ক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানানো হয়েছে। নাটকটি অনলাইন থেকে সরিয়ে নিয়ে সংশ্লিষ্টদের ক্ষমা চাওয়ার দাবি জানানো হয়েছে।

প্রতিবাদ লিপিতে বলা হয়, বর্তমান বাংলাদেশের অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি হলো কৃষি (অ্যাগ্রিকালচার)। স্বাধীনতার পর যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশ যখন চরম খাদ্যঘাটতির দেশ ছিল, বর্তমানে সেখানে প্রায় ২০ কোটি মানুষের দেশ যা এখন খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণই নয়, বরং কৃষক ও কৃষিবিদদের অক্লান্ত পরিশ্রমে খাদ্য উদ্ধৃত দেশে পরিণত হয়েছে। সরকারের নেতৃত্বে কৃষি ও কৃষি বিজ্ঞানী এবং বাংলার কৃষকের নিরলস পরিশ্রমে কৃষি আজ এক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে গেছে। সামগ্রিক কৃষি সেক্টরেও এসেছে অভূতপূর্ব সাফল্য। বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের কৃষি এখন রোল মডেল। বর্তমানে আমরা শুধু খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করিনি, খাদ্য রপ্তানির দেশের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছি যা বিশ্বের কাছে বিস্ময়কর। তাই প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে যেখানে কৃষি অদম্য সফলতা পাচ্ছে, সেখানে এরকম একটি ডায়ালগ কুরুচির পরিচায়ক। কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ এই নাটকটি প্রচারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে। একইসঙ্গে নাটকের নির্মাতাসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়ার জোর দাবি জানানো হলো।

এমন ভুলের জন্য অবশ্য ক্ষমা চেয়েছেন নির্মাতা বান্নাহ। বিষয়টিকে অনাকাঙ্ক্ষিত ভুল বলে দাবি করছেন তিনি। বান্নাহ বলেন, ‘শব্দপ্রয়োগ জনিত এই বিষয়টি ভুল হয়েছে। যেটি আমি স্বীকার করি। কৃষি, কৃষক বা কৃষি সংশ্লিষ্ট প্রত্যেকটি মানুষের প্রতি আমার আপ্রাণ শ্রদ্ধা, সম্মান ও ভালোবাসা। আমার দাদাও একজন কৃষক ও একজন স্কুল শিক্ষক ছিলেন। আমার পরিবারের মূলে, রক্তে, শিরাতে রয়েছে কৃষি। ’

তিনি আরও জানান, বিষয়টি একজন দর্শক তার নজরে আনার সঙ্গে সঙ্গে তিনি ইউটিউব থেকে নাটকের বিতর্কিত অংশটি ফেলে দিয়েছেন। একইসঙ্গে এই নির্মাতা তার বেশিরভাগ কাজই সমাজ ও দেশের মানুষের জন্য সঠিক, সৎ ও গঠনমূলক বার্তা থাকে বলেও দাবি করেছেন। এছাড়া তার কাজে কেউ ভুল ম্যাসেজ পাক এটি মোটেও কাম্য নয় বলেও জানান তিনি।  

নিজের গল্প ও চিত্রনাট্যে মাবরুর রশিদ বান্নাহ ‘দ্য টিচার’ নাটকটি নির্মাণ করেছেন। এতে অভিনেতা আব্দুন নূর সজলের সঙ্গে অভিনয় করেছেন ‘ফুড ব্লগার’ হিসেবে পরিচিতি ইফতেখার রাফসান ওরফে রাফসান দ্য ছোটভাই। মূলত তার মুখেই সংলাপটি শোনা যায়।

নাটকটির অভিযুক্ত দৃশ্যে দেখা যায়, দুই বন্ধুর কথোপকথন। যেখানে এক বন্ধু নানাভাবে বোঝায় মেয়েদের কীভাবে রাজি করাতে হয়। বিষয়টি পছন্দ হয় না অপর বন্ধুর। তখন তিনি বলেন, ‘তুই একটা অ্যাগ্রিকালচার। ’

আর এর মাধ্যমে দেশের কৃষি ও কৃষকদের সরাসরি অবমাননা করা হয়েছে বলে অভিযোগ। ঈদুল আযহা উপলক্ষে ২৫ জুলাই এনটিভিতে প্রচার হয় ‘দ্য টিচার’। একই দিন সেটি ইউটিউব চ্যানেলেও প্রকাশ পায়।

তবে ‘দ্য টিচার’ ছাড়াও ঈদে প্রচারিত বান্নাহ’র ‘মায়ের ডাক’ ও ‘সুইপার ম্যান’ নামের দুইটি নাটক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রশংসিত হয়েছে।
  
বাংলাদেশ সময়: ২১২৬ ঘণ্টা, জুলাই ২৯, ২০২১
জেআইএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa