ঢাকা, সোমবার, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ১০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

বিনোদন

মিঠুনের পর প্রসেনজিতের বাড়িতে বিজেপি

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৫৫০ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০২১
মিঠুনের পর প্রসেনজিতের বাড়িতে বিজেপি অমিত শাহের বই প্রসেনজিৎ’কে উপহার দিচ্ছেন অনির্বাণ গঙ্গোপাধ্যায়

কলকাতা: রাজনীতিতে বন্ধু-শত্রু বলে হয়তো কোনও কিছুই হয় না। বিশেষ করে পশ্চিমবাংলার রাজনীতিতে তো নয়ই! 

এই যেমন চির প্রতিদ্বন্দ্বী বাম-কংগ্রেস।

এবার জোট বেঁধে বিজেপি-তৃণমূলের বিরুদ্ধে মাঠে নেমেছে। অপরদিকে, রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন যত এগিয়ে আসছে তত বিজেপি দলে ভিড় বাড়ছে তৃণমূল কংগ্রেসেরে নেতা-নেত্রীদের। আর তাতে পিছিয়ে নেই টলিউড স্টুডিও পাড়া।

বর্তমানে বাংলা বিনোদন জগতের কলাকুশলীরা এখন তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন। বাম আমল থেকে রাজনীতির শতহস্ত দূরে আছেন টলিউড কিং অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। কিন্তু এবার তাকে নিয়েও জল্পনার পারদ তুঙ্গে উঠতে শুরু করেছে বাংলার রাজ্য রাজনীতিতে। কারণ, সরস্বতীর পূজার দিন প্রসেনজিৎ-এর বাড়িতে বিজেপি নেতার আগমনই এ জল্পনা আরও তীব্র করেছে।

তবে রাজনৈতিকভাবে প্রসনজিৎ নিজে কোনো দল না করলেও তার বাবা অর্থাৎ অভিনেতা বিশ্বজিৎ চট্টোপাধ্যায় ২০১৮ সালে বিজেপিতে নাম লিখিয়েছেন। তার কিছুদিন পরে একসময় মমতার ঘনিষ্ঠ বর্তমানে বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের সঙ্গে বিমানে দেখা হয়েছিল প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের। ‘হঠাৎ দেখা’ বলা হলেও তা পরিকল্পিত মিটিং ছিল মনে করেছিলেন অনেকে। ফলে তখন থেকেই বিজেপিতে যাওয়ার জল্পনার আঁচ পাওয়া যাচ্ছিল।

এরপর গত বছর আন্তর্জাতিক কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবের চেয়ারম্যান পদ থেকে আচমকাই ইস্তফা দেন প্রসেনজিৎ। তখন থেকেই মমতার সঙ্গে দূরত্ব বাড়তে শুরু করেছে অভিনেতার। এরপরই মঙ্গলবার সরস্বতী পূজা উপলক্ষে প্রসেনজিৎ-এর বাড়িতে দেখা গেল বিজেপি নেতা অনির্বাণ গঙ্গোপাধ্যায়কে। অমিত শাহের একটি বই প্রসেনজিৎ’কে উপহারও দেন তিনি। হাসি হাসি মুখে সেই বই গ্রহণ করেন প্রসেনজিৎ।

তবে এখানেই শেষ নয়, ২৩ জানুয়ারি ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর অনুষ্ঠানেও প্রসেনজিৎ-এর উপস্থিতি চোখে পড়েছিল। মূলত এই ধরনের অনুষ্ঠানে আগে তাকে দেখা যেত না। এর পাশাপাশি প্রসেনজিৎ-এর সঙ্গে সাক্ষাৎ প্রসঙ্গে অনির্বাণ জানিয়েছেন, খুব তাৎপর্যপূর্ণ ও গঠনমূলক আলোচনা হয়েছে। তাতেই জল্পনা আরও গাঢ় হয়েছে।

কলকাতায় যখন প্রসেনজিৎ-এর বাড়িতে বিজেপির হানা ঠিক তখন একই দিনে মুম্বাইতে অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তীর বাড়িতে উপস্থিত হয়েছিলেন বিজেপির মূল সংগঠন আরএসএস  প্রধান মোহন ভাগবত। মঙ্গলবার সকালে একসঙ্গে প্রাতরাশও করেছিলেন দু’জনে।

তাহলে কি বিধানসভা ভোটের আগে বিজেপির দিকে পা বাড়াচ্ছেন মিঠুন? পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হতে চলেছেন মিঠুন? স্বাভাবিকভাবেই মিঠুন-ভাগবতের ওই সাক্ষাৎ ঘিরে চর্চা শুরু হয়েছে। যদিও মিঠুন নিজে এরকম কোনও সমীকরণ মানতে চাননি। অভিনেতার বক্তব্য, এটা ছিল সৌজন্যমূলক সাক্ষাৎ।  

এই সাক্ষাতের পর বিজেপির পশ্চিমবঙ্গের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়  বলেছেন, মিঠুনদার মতো ব্যক্তিত্ব দলে যোগদান করতে চাইলে তাকে অবশ্যই স্বাগত জানানো হবে। কারণ তিনি বাংলায় অত্যন্ত শ্রদ্ধাশীল ব্যক্তি। তাকে মানুষ ভালোবাসেন।

এক সময় বাম নেতাদের অতি ঘনিষ্ঠ মিঠুন চক্রবর্তী ২০১৬ সালে তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে রাজ্যসভার সদস্য হয়েছিলেন। বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের শাসকদলের সঙ্গে তার সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করেছেন। ঘটনাচক্রে বিধানসভা নির্বাচনের আগে একের পর এক তৃণমূল নেতা দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন। তারই মধ্যে আরএসএস প্রধানে সঙ্গে মিঠুনের এই সাক্ষাৎ আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে চলে এসেছে।

তবে বিজেপি সূত্রের খবর, বাংলা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে তৃণমূল কংগ্রেসের একক ক্ষমতা ভাঙতে বড় মাপের তারকাদের দলে টানার চেষ্টা চলছে। অনেকেই এসেছেন। আরও আসবেন। প্রসেজিৎ এরপর অভিনেত্রী ঋতুপর্ণাও বিজেপির টার্গেটে আছেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৫০ ঘণ্টা, জানুয়ারি  ১৭, ২০২১
ভিএস/জেআইএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa