ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ ফাল্গুন ১৪২৭, ০৫ মার্চ ২০২১, ২০ রজব ১৪৪২

নির্বাচন ও ইসি

ফেনী পৌরনির্বাচন: বিএনপির দাবি ৭৫ শতাংশ ভোট তারাই পাবে

সোলায়মান হাজারী ডালিম, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯৪০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৯, ২০২১
ফেনী পৌরনির্বাচন: বিএনপির দাবি ৭৫ শতাংশ ভোট তারাই পাবে

ফেনী: আসন্ন ৩০ জানুয়ারি ফেনী পৌরসভা নির্বাচন। এই ভোটকে ঘিরে পৌর এলাকার অলি-গলিতে চষে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা।

প্রচার-প্রচারণায় মাঠে সরব রয়েছেন আওয়ামীলীগ ও বিএনপির মেয়র প্রার্থীরা।

গণসংযোগ ও প্রচারণায় বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী জেলা বিএনপির সদস্য সচিব আলাল উদ্দিন আলাল বলেছেন, দীর্ঘসময় এই দেশের মানুষ ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত। অনেকেই ভোটার হয়েছেন। গত ১২ বছর কেউ ভোট দিতে পারেননি। এই পরিস্থিতিতে জনগণের মুখোমুখি হয়েছি। চরম প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে আমাদের ভোট করতে হচ্ছে। জনগণ ভোট দিতে পারলে আমরা ৭৫ শতাংশ ভোট পেয়ে ধানের শীষকে বিজয়ী করতে পারব।

তিনি আরও বলেন, গত এক যুগে ধরে স্বৈরাচারী এ সরকার জনগণের সব নাগরিক অধিকার হরণ করেছে। উন্নয়নের নামে লুটপাট চালিয়েছে। তাই এ নির্বাচন মানুষের ভোটের অধিকার ফেরানোর নির্বাচন। নির্বাচনে ফেনীর একটা নিজস্ব স্টাইল আছে, দেশব্যাপী যা ফেনী স্টাইল নামে পরিচিত। সে স্টাইলটা হলো জোর জবরদস্তি এবং জনগণের ভোটের অধিকার হরণের স্টাইল। ট্রাংক রোডের মতো একটি স্থানে হাজারো মানুষের সামনে উশৃঙ্খল আওয়ামী কর্মীরা পোস্টার জ্বালিয়ে দিচ্ছে। দলীয় নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে হামলা করছে। প্রশাসন তথা নির্বাচন কমিশন এমনকি থানা পুলিশের বারবার অভিযোগ দেওয়া হলেও চোখেপড়ার মতো ভূমিকা দেখিনি। তবে কথা দিচ্ছি, ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত আমরা ভোটের মাঠে থাকবো।

তিনি বলেন, আমাদের নির্বাচনী প্রচারণায় হামলা হয়েছে। বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের মাইক ভাঙচুর হয়েছে।

আলাল আরও বলেন, যদিও নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নেই। তবুও যত দিন যত যুগ লাগুক ভোটাধিকারহীন দেশে ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনা পর্যন্ত মাঠে থাকবো। অবিচার, অন্যায় ও জুলুমের পরিবর্তনের জন্য ধানের শীষ প্রতীকের পক্ষে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

তিনি বলেন, পরিবর্তন দরকার। পরিবর্তন এসে দরজায় কড়া নাড়ছে। ৩০ জানুয়ারি ভোটাররা ঘর থেকে বের হয়ে আসলে এই নগরের পরিবর্তন হয়ে যাবে। পরিবর্তনের দরজা খুলে যাবে। নির্বাচিত হলে নাগরিকদের প্রতি প্রতিশ্রুতির ব্যাপারে বিএনপির এ মেয়র প্রার্থী বলেন, নাগরিকদের কাছে আমার প্রতিশ্রুতি ফেনী পৌরসভা হবে জনগণের আস্থা আর নির্ভরতার স্থান।

বিএনপির এসব অভিযোগের ব্যাপারে আওয়ামীলীগ প্রার্থী ও ফেনী পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজী বলেন, বিএনপির অভিযোগ ভিত্তিহীন। তারা ভোটের জন্য নির্বিঘ্নে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছে। কোনো ধরনের হামলার শিকার হয়নি তারা। আওয়ামীলীগের ঘাঁটি বলে খ্যাত শহরের মাস্টার পাড়াতে গিয়েও তারা নির্বাচনী প্রচারণা করে এসেছে। এমন পরিবেশ তারা আগে তৈরি করতে পারেনি। শহরের রামপুরে আওয়ামীলীগ প্রার্থীরা গিয়ে ভোট চাইতে পারত না। এখন সে সংস্কৃতির পরিবর্তন হয়েছে। শহরজুড়ে শান্তির সুবাতাস বইছে।

নির্বাচনের পরিবেশের ব্যাপারে জানতে চাইলে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন পাটওয়ারী জানান, এখন পর্যন্ত ফেনীতে নির্বাচনের সুষ্ঠ পরিবেশ রয়েছে। নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে।

তিনি বলেন, ২য় ধাপের দাগণভূঁঞা পৌর নির্বাচনের মত ফেনী পৌরসভায়ও অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য আমরা কাজ করছি। এ লক্ষ্যে সব ধরনের পদক্ষেপ নির্বাচন কমিশনের রয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৪০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৯, ২০২১
এসএইচডি/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa