ঢাকা, বুধবার, ২১ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৫ আগস্ট ২০২০, ১৪ জিলহজ ১৪৪১

নির্বাচন ও ইসি

নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করে নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট করছে

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৭-২৭ ১০:৫৬:৩০ এএম
নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করে নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট করছে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলছেন বিএনপি প্রার্থী মজিবর রহমান সরওয়ার-ছবি-বাংলানিউজ

বরিশাল: বরিশাল সিটি করপোরেশন (বিসিসি) নির্বাচনের বিএনপির মেয়র প্রার্থী মো. মজিবর রহমান সরওয়ার বলেছেন, তিনটি চাঁদাবাজির মামলা করে মিথ্যা অজুহাত দেখিয়ে আমাদের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। পুলিশ আমাদের নেতাকর্মীদের সে মামলায় গ্রেফতার করে নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ নষ্ট করছে।

শুক্রবার (২৭ জুলাই) দুপুরে বরিশাল নগরের কাশিপুরস্থ আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ের সভাকক্ষে সিটি করপোরশেন নির্বাচনের মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদারের সঙ্গে মতবিনিময় সভা শেষে মজিবর রহমান সরওয়ার একথা বলেন।

এসময় তিনি বলেন, বেছে বেছে আমাদের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করাটা সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষ্যে একটি বড় অন্তরায়।

নির্বাচনের দায়িত্বে যারা থাকবে তারা যদি গ্রেফতার হয় তবে নির্বাচন করবে কে এমন প্রশ্ন তুলে সরওয়ার বলেন, তিনটি থানায় তিনটি মামলা দিয়ে রেখেছে। অথচ হাইকোর্টের নির্দেশনা রয়েছে নট টু হ্যারেজ, নট টু অ্যারেস্ট। প্রশাসন হাইকোর্টের আদেশ মানছে না, তাহলে নির্বাচন সুষ্ঠু হবে কিভাবে।

তিনি বলেন, বিষয়টি নির্বাচন কমিশনারকে জানিয়েছি। তিনি বলেছেন (নির্বাচন কমিশনার) প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা করে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

সরওয়ার বলেন, আওয়ামী লীগ বিজয় নিশ্চিত করার জন্য আমাদের নেতাকর্মীদের বিরত রাখার লক্ষ্যে ষড়যন্ত্র করেছে।
 
তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনার বরিশালে নির্বাচনী পরিবেশ কেমন রয়েছে তা নিয়ে সবার সঙ্গে আলোচনা করেছেন। সবাই যার যার অবস্থান থেকে বলেছেন। এছাড়া সভায় আইন-কানুনের বিষয়েও কথা হয়েছে।

বিসিসি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. মুজিবুর রহমান তালুকদারের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিতি ছিলেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার।

এসময় বিএনপির মেয়র প্রার্থী মজিবর রহমান সরওয়ার ছাড়াও আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ, জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী ইকবাল হোসেন (তাপস), ইসলামী আন্দোলনের মেয়র প্রার্থী ওয়াইদুর রহমান মাহবুব, বাসদের মেয়র প্রার্থী ডা. মনিষা চক্রবর্তী, সিপিবির মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট আবুল কালাম আজাদসহ নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে তিনটি মামলার মধ্যে কাউনিয়া থানায় বেল্লাল মিয়া নামে এক ব্যক্তি একটি চাঁদাবাজির মামলা করেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন ওসি (তদন্ত) গোলাম কবির।

পাশাপাশি বিএনপির নেতাকর্মী ও থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার (২৬ জুলাই) থেকে শুক্রবার (২৭ জুলাই) দুপুর পর্যন্ত বিএনপির প্রায় ১৫ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়া বিএনপির বেশ কিছু নেতাকর্মীর বাসায় তল্লাশি চালানো হয়েছে।  

বাংলাদেশ সময়: ১৬৫৫ ঘণ্টা, ২৭ জুলাই, ২০১৮
এমএস/আরআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa