ঢাকা, সোমবার, ২০ আষাঢ় ১৪২৯, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৪ জিলহজ ১৪৪৩

শিক্ষা

মাঠ দখল, শিক্ষার্থীদের খেলাধুলা বন্ধ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৫৪৫ ঘণ্টা, মে ২৩, ২০২২
মাঠ দখল, শিক্ষার্থীদের খেলাধুলা বন্ধ স্কুলের মাঠ দখল করে চারা রোপন করা হয়েছে। ছবি: বাংলানিউজ

কুড়িগ্রাম: জমি নিয়ে বিবাদে কুড়িগ্রামের শিয়ালকান্দা বহুমুখী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের চত্বরে নির্মাণসামগ্রী ফেলাসহ ১৫ শতক জমি নেট দিয়ে ঘিরে দখল করে গাছের চারা রোপন করায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।  

দখলকারীরা বিদ্যালয়ের বাউন্ডারির ভেতরে দখল করা জমিতে দোকানঘর নির্মাণের চেষ্টা ও নির্মাণসামগ্রী রাখায় বিঘ্ন ঘটছে শিশু শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার পরিবেশ।

জানা যায়, কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার রামখানা ইউনিয়নের নাখারগঞ্জ এলাকায় ৯৮ শতক জমিতে ১৯৯৩ সালে স্থাপিত হয় শিয়ালকান্দা বহুমুখী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়টি। জমিদাতাদের বিবাদের কারণে স্কুলটির মাঠ বেদখল হতে চলেছে।  

স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা জমিদাতা মৃত ফজলুল হক মেম্বার প্রতিবেশী মীর মতিয়ার রহমান নামে একজনের কাছ থেকে ৩২ শতক জমি রেওয়াজ বদল করে স্কুলকে দেন। এর মধ্যে ১৫ শতক স্কুলের নামে লিখে দেওয়া হলেও ১৭ শতক জমি লিখে দেওয়া হয়নি।

ওই ১৭ শতক জমির বদলি হিসেবে যে জমিটি মতিয়ার রহমান দীর্ঘ ২৭ বছর ধরে ভোগদখল করে আসছিলেন সেই জমিটিও গত বছর পুনরায় দখল করে নেয় স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা জমিদাতার স্বজনরা। ফলে ১৭ শতক জমি না পেয়ে স্কুল মাঠের রেজিস্ট্রি না করে দেওয়া ১৭ শতক জমি আবারও দখলে নেয় মীর মতিয়ার রহমানের ছেলে মীর শাহ আলম।  

বিদ্যালয়ের মাঠ দখলকারী মীর শাহ আলম জানান, স্কুলের জমিদাতারা আমার বাবার কাছ থেকে জমি নিয়ে বদলি হিসেবে যে জমি দিয়েছে তা লিখে দেয়নি। ফলে জমিদাতার মৃত্যুর পর তার স্বজনরা সেই জমি দখলে নিয়েছে। এ নিয়ে স্কুল কর্তপক্ষের কাছে ধর্না দিয়েও জমি না পেয়ে এই কাজ করতে বাধ্য হয়েছি। প্রধান শিক্ষক মুহা. জালাল উদ্দিন সরকার বাংলানিউজকে জানান, আমাদের সঙ্গে কোনো ধরনের আলোচনা না করেই হঠাৎ করে স্কুল মাঠের ১৫ শতক জমি ঘিরে নেয় মীর শাহ আলম নামে এ ব্যক্তি। সেখানে তারা ৬০টি গাছের চারা রোপন করাসহ ইট ফেলে দোকানঘর নির্মাণের কাজ শুরু করেন। পরে পুলিশ এসে কাজ বন্ধ করে দেয়। বিষয়টি সমাধানে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে।

বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হাফিজ আল আসাদ সুমন বাংলানিউজকে জানান, আমরা দ্রুত এর সমাধানের চেষ্টা করছি।

অভিভাবকরা জানান, স্কুল কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা ও গাফিলতির কারণে এই অপ্রীতিকর অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। যারা জমি দখলকারীদের ১৭ শতক জমি বুঝিয়ে দিলে এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হতো না। আমরা চাই মাঠের আগে পরিবেশ দ্রুত ফিরিয়ে আনা হোক।

রামখানা ইউনিয়নের শিয়ালকান্দা সাত নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুস সালাম জানান, স্কুলে গোপনভাবে গভর্নিং কমিটি গঠন ও তিনজনকে নিয়োগ দেওয়াকে কেন্দ্র করে জমিদাতা ও এলাকাবাসীর মধ্যে বিরোধকে কেন্দ্র করে এই পরিস্থিতির উদ্ভব হয়েছে। সবাই মিলে বসে এটার সমাধান করা দরকার।

কুড়িগ্রাম জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শামসুল আলম বিষয়টি নিয়ে বাংলানিউজকে জানান, জমির মীমাংসা না হওয়া পর্যন্ত নিয়োগ বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে। এছাড়াও স্কুলে জমি সংক্রান্ত যে সমস্যা রয়েছে তা সমাধানে সব ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হবে। যাতে মাঠের পরিবেশ বিঘ্নিত না হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৪৫ ঘণ্টা, মে ২৩, ২০২২
এফইএস/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa