ঢাকা, বুধবার, ৪ মাঘ ১৪২৮, ১৯ জানুয়ারি ২০২২, ১৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

শিক্ষা

ব্যর্থ হলে পদত্যাগ করা উচিত- জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোট

জাবি প্রতিনিধি | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬৫০ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৫, ২০১২
ব্যর্থ হলে পদত্যাগ করা উচিত- জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোট

জাবি: ‘শিক্ষক সমাজ’ ব্যানারের শিক্ষকদের আন্দোলনের দাবি যদি যৌক্তিক হয়, তাহলে বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যের উচিত নিজ দায়িত্বে পদত্যাগ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম ফিরিয়ে দেওয়া।

বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিক সমিতিতে এক সংবাদ সম্মেলনে ‘জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোট-এর সভাপতি কলি মাহমুদ এ কথা বলেন।



কলি মাহমুদ বলেন, ``ক্যাম্পাসে ক্লাস-পরীক্ষা না হওয়ায় শিক্ষার্থীরা দীর্ঘ মেয়াদে সেশন জটে পড়তে যাচ্ছেন। উপাচার্যকে ক্যাম্পাসে সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে পদক্ষেপ নিতে হবে। আর তা না পারলে তার পদত্যাগ করা উচিত। ``

তিনি আরও বলেন, ``আমাদের গ্রীষ্মকালীন ছুটি একাডেমিক ক্যালেন্ডারে নির্ধারিত জুন মাসের পরিবর্তে মে মাসে দেওয়ার প্রচেষ্টা চলছে। ``

তিনি এর তীব্র নিন্দা জানান এবং জুন মাসেই গ্রীষ্মকালীন ছুটির দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে বিশ্ববিদ্যালয়ের অচলাবস্থা নিরসন, নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের ব্যবস্থা ও সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করাসহ মোট ১১ দফা দাবি ঘোষণা করে এ দাবি বাস্তবায়নের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে ১০ দিন সময় বেঁধে দেন ‘জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোট’-এর নেতাকর্মীরা।

এ সময়ে মধ্যে যথাযথভাবে দাবি আদায় না হলে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানান তারা।

‘জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোট’-এর নেতাকর্মীদের দাবিগুলো হলো- বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান অচলাবস্থা নিরসন করে নিয়মিত ক্লাস পরীক্ষা অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করা এবং এর জন্য উপাচার্য হিসেবে সব ব্যবস্থা গ্রহণ, সব আবাসিক হলের সিট বরাদ্দ প্রশাসনিকভাবে করা এবং সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত ও অছাত্রদের হল থেকে বের করে দেওয়া, ক্যাম্পাসে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের ব্যবস্থা করা ও বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র নির্মাণের সিদ্ধান্ত বাতিল করা, পূর্ণাঙ্গ মেডিকেল সেন্টার নির্মাণ, বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো লেক ও জমি ইজারা না দেওয়া এবং এরই মধ্যে দেওয়া লেক ও জমির ইজারা বাতিল করা, বিশ্ববিদ্যালয়ের যেকোনো গুরুত্বপূর্ণ ও শিক্ষার্থী সম্পর্কিত বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের সময় বিভিন্ন ছাত্র প্রতিনিধির মতামত গ্রহণ, স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে ক্লাসে উপস্থিতির নম্বর বাতিল ও পরীক্ষার খাতা মূল্যায়নের জন্য দ্বিতীয় কোনো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পরীক্ষক নিয়োগ করা এবং বিভাগ উন্নয়ন ফি বাতিল ও শিক্ষক মূল্যায়ন পদ্ধতি চালু করা, ক্যাম্পাসের সব খাবার দোকানের খাবারের মূল্য হ্রাস করে সমমূল্য ধার্য করা, টিএসসিতে জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোট-এর স্থায়ী রুম বরাদ্দ দেওয়া, মুক্তমঞ্চ অবিলম্বে সংস্কার ও আধুনিকায়ন নিশ্চিত করা, গাড়ি, মাইক ও মঞ্চ বুকিংয়ের জন্য যাবতীয় প্রশাসনিক জটিলতা দূর করা এবং জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোটভূক্ত প্রত্যেক সংগঠনের বার্ষিক অনুদান সর্বনিম্ন ৩০ হাজার টাকা করে দেওয়া।
 
সংবাদ সম্মেলনে ‘জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোট’-এর সভাপতি কলি মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক শাকিলা শারমিনসহ জোট ও জোটের অন্তর্ভূক্ত ১০টি সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় প্রতিবাদী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও সাধারণ শিক্ষর্থীদের সঙ্গে মতবিনিময় কর্মসূচি পালন করবেন জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোটের নেতা কর্মীরা।

এর আগে সকাল ১১য় দাবি আদায়ের লক্ষে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল ও উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি পেশ করেন ‘জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোট’-এর নেতাকর্মীরা।
 
বাংলাদেশ সময়: ১৬৪৪, এপ্রিল ২৫, ২০১২
সম্পাদনা: আশিস বিশ্বাস, সিনিয়র নিউজরুম এডিটর;

জুয়েল মাজহার, কনসালট্যান্ট এডিটর।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa