ঢাকা, সোমবার, ১৩ আশ্বিন ১৪২৭, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯ সফর ১৪৪২

অর্থনীতি-ব্যবসা

সরকার ডিজিটাল সেবা পুরোপুরি সমর্থন দিচ্ছে

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৬ ঘণ্টা, আগস্ট ১০, ২০২০
সরকার ডিজিটাল সেবা পুরোপুরি সমর্থন দিচ্ছে আসাদুল ইসলাম

ঢাকা: অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সিনিয়র সচিব আসাদুল ইসলাম বলেন, সরকার ডিজিটাল অর্থায়ন পরিষেবা এগিয়ে নিতে পুরোপুরি সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে এবং প্রয়োজনীয় আইনী ও নিয়ন্ত্রণমূলক উন্নতি করে দ্রুত অগ্রসর হওয়ার জন্য প্রস্তুত।

সোমবার (১০ আগস্ট) অনলাইনে রিসার্জেন্ট বাংলাদেশ ইনিশিয়েটিভ ও ডেলোয়েট আয়োজিত ‘আর্থিক পরিষেবায় ডিজিটাল উদ্ভাবন: কোভিড পরবর্তী পৃথিবীতে সাফল্যের চাবিকাঠি’ নামক একটি সংলাপে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, বেসরকারি খাত এবং বিশ্বব্যাপী সেরা অনুশীলনের সহায়তায় সরকারের সক্ষমতা বাড়ানোর প্রয়োজনীয়তার উপর গুরুত্বারোপ করেছেন।

পলিসি এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান ড. মাসরুর রিয়াজ স্বাগত বক্তব্যে বলেন, কোভিড ডিজিটাল আর্থিক সেবার প্রতিদানকে ত্বরান্বিত করে যা ইতোমধ্যে আর্থিক অন্তর্ভুক্তিকে এগিয়ে নিতে সহায়তা করে। বাংলাদেশ আর্থিক উন্নয়নে ব্যাপক অগ্রগতি অর্জন করছে, দ্রুত গতিতে ডিজিটাল ফিনান্স গ্রহণের ফলে ব্যাংকিং সেক্টরে সাম্প্রতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় এবং আর্থিক অন্তর্ভুক্তিকে দ্রুত সমাধানে সহায়তা করছে।

প্যানেল ও উন্মুক্ত অধিবেশন পরিচালনা করেছেন এমসিসিআইয়ের সভাপতি ও বিকাশ’র পরিচালক ব্যারিস্টার নীহাদ কবির।  

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সদস্য আফতাবুল ইসলাম বলেন, যে কোভিড পরবর্তী পরিবর্তনগুলি বাস্তব এবং আর্থিক পরিষেবাকে ডিজিটালাইজেশনের দিকে আমাদের অগ্রসর হতে হবে প্রক্রিয়াটিতে কোনও বিলম্ব না করেই।

অ্যাসোসিয়েশন অফ ব্যাংকার্স বাংলাদেশের চেয়ারম্যান এবং ইস্টার্ন ব্যাংকের এমডি আলী রেজা ইফতেখার বলেন, ডিজিটাল উপায় গ্রাহকদের কাছে পৌঁছানোর জন্য ব্যয় হ্রাস করতে এবং ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করবে। তিনি কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলিতে ব্যাংকগুলি দ্বারা রিটার্ন জমা দেওয়ার ডিজিটালাইজড জমা গ্রহণের আহ্বান জানান।

বিকাশের চেয়ারম্যান সমিরন আবেদ বলেন, বিকাশ ইতোমধ্যে ব্র্যাকের মাইক্রো ফিনান্স ক্লায়েন্টের লেনদেনকে সমর্থন করছে এবং তিনি আশা করেন আগামী বছরে এই সংখ্যা দ্বিগুণ হবে।

মাস্টারকার্ড ইন্টারন্যাশনালের কান্ট্রি ম্যানেজার সৈয়দ মোহাম্মদ কামাল বলেন, ডিজিটাল আর্থিক পরিষেবাগুলিতে উত্সাহ দেওয়ার উপর জোর দিয়েছিলেন।

ডি-মানির সহ-প্রতিষ্ঠাতা সোনিয়া বশির কবির বলেন, নতুন প্রজন্মের তরুণ জনসংখ্যা এবং কুটির এবং মাইক্রো শিল্প উভয়ই আর্থিক পরিষেবাতে প্রযুক্তির ব্যবহার বৃদ্ধির মাধ্যমে আরও ভাল সেবা দিতে পারে।

সভায় ব্যাংক ও নন-ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সিইও, বোর্ডের সদস্য এবং ডিজিটাল ফিনান্স সেবার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ, নীতি বিশেষজ্ঞ ও উন্নয়ন অংশীদারগণ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, চলমান করোনা সংকট সরকার, বাজার, ব্যবসা-বাণিজ্য এবং ব্যক্তির উপর অভূতপূর্ব চাপ সৃষ্টি করছে। করোনা নামের এই মহামারি পরবর্তী পৃথিবীতে ডিজিটাল আর্থিক পরিষেবার (ডিএফএস) জন্য দুর্দান্ত সুযোগ বয়ে আনতে পারে। লেনদেনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ইতোমধ্যেই সাফল্য অর্জন করায়, এখন সময় এসেছে সুবিধাজনক নিয়ম কানুন, ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা কাঠামো, ডিজিটাল অবকাঠামো, কার্যকর ডেটা বিশ্লেষণ এবং সক্ষমতা বৃদ্ধি করে দ্রুত অগ্রসর হবার।

সভায় মূল প্রবন্ধটি উপস্থাপন করেন দক্ষিণ এশিয়ার জন্য ডেলয়েট ইন্ডিয়ার আর্থিক পরিষেবা শিল্প নেতা সঞ্জয় দত্ত। সমাপনী বক্তব্য দেন অ্যাপেক্স গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ নাসিম মনজুর।

বাংলাদেশ সময়: ১৯২৫ ঘণ্টা, আগস্ট ১০, ২০২০
এসই/এনটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa