bangla news

ঐতিহ্যবাহী কাঁসা-পিতলের বাহারি সম্ভার

হোসাইন মোহাম্মদ সাগর, ফিচার রিপোর্টার | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-১১-১৮ ৪:২৯:৩২ পিএম
কাঁসা-পিতলের পণ্য কিনতে আসা ক্রেতা। ছবি: জি এম মুজিবুর

কাঁসা-পিতলের পণ্য কিনতে আসা ক্রেতা। ছবি: জি এম মুজিবুর

ঢাকা: বাঙালি ঐতিহ্যের সঙ্গে কাঁসা-পিতলের রয়েছে আদি সম্পর্ক। আগে নিত্যদিনের ব্যবহারে থাকলেও এখন কাঁসা-পিতলের তৈরি সামগ্রী হয়ে উঠেছে ড্রয়িংরুমের আভিজাত্য প্রকাশক ধাতুতে। হালের আভিজাত্য প্রকাশক এ ধাতুর তৈরি তৈজসপত্র নিয়ে এবার উন্নয়ন মেলায় হাজির হয়েছে শরীয়তপুর ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি।

সোমবার (১৮ নভেম্বর) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলনকেন্দ্রে উন্নয়ন মেলায় অংশগ্রহণ করা এ স্টলটি ঘুরে দেখা যায়, কাঁসা-পিতলের বাহারি পণ্যের পসরা সাজিয়েছে তারা। বিভিন্ন ধরনের অলংকার ও গৃহস্থালির উপকরণও রয়েছে এরমধ্যে।

কাঁসা-পিতলের পণ্যের সমাহার। ছবি: জি এম মুজিবুর

স্টলের বিভিন্ন পণ্যের মধ্যে কাঁসা ও পিতলের নকশা করা থালা, কলস, গ্লাস, প্রদীপদানি, সুপারি কাটার জাঁতি, পানদানি ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। এছাড়া বিভিন্ন ধরনের শো-পিসের মধ্যে রয়েছে ঘোড়া, হাতি, ডলফিন, হাঁস, নৌকা, বাঘ ইত্যাদি।

স্টলের দায়িত্বরত আখতার মোহল খালেদা খানমের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তাদের কার্যক্রমের সদস্যরা এসব নিখুঁত ও অসাধারণ তৈজসপত্র তৈরি করেছেন। এগুলোর মধ্য দিয়ে গ্রাম-বাংলার পুরনো ঐতিহ্যকেই ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করেছেন তারা।

স্টলে সাজিয়ে রাখা পিতলের বাঘ। ছবি: জি এম মুজিবুর

তিনি জানান, ওজনভেদে প্রতিটি পণ্যের দাম পড়বে ছয়শ থেকে প্রায় ১০ হাজার টাকা। এরমধ্যে কাঁসার থালা ২২শ টাকা, গ্লাস ৮শ ৫০ টাকা, পানদানি ২২শ টাকা। আর শো-পিস এর মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে নকশা এবং ওজনের ওপর ভিত্তি করে।

পণ্য নিয়ে স্টলের দায়িত্বে থাকা ফরিদা ইয়াসমিন নার্গিস বলেন, এ শিল্পের সেই সুদিন আর নেই। লোহা, টিন, অ্যালুমিনিয়ামের সস্তা পণ্যের সঙ্গে দামের প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে পড়েছে পিতল-কাঁসার আভিজাত্য। যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে প্রযুক্তির সংযোগ ঘটেনি এ খাতে। অভাব রয়েছে পুঁজিরও। সেখান থেকে শরীয়তপুর ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি কাজ করে যাচ্ছে এ শিল্পটি নিয়ে। একই সঙ্গে নতুন প্রজন্মকে এ শিল্পের সঙ্গে পরিচয় করানোও এ উদ্যোগের অন্যতম অংশ।

স্টলে সাজিয়ে রাখা কাঁসা-পিতলের তৈজসপত্র। ছবি: জি এম মুজিবুর

শরীয়তপুর জেলার দু’টি উপজেলার মোট ১৫টি পরিবার এখনও এ পেশার সঙ্গে যুক্ত বলে জানান তিনি। তাদের পুঁজি দিয়ে পণ্য উৎপাদন এবং পরে তা বিক্রির ব্যবস্থা করা হয়।

মেলায় কাঁসা-পিতলের দোকানে ঘুরতে আসা ইব্রাহীম আহমেদ বলেন, আমার বাসায় এখনও কাঁসার প্লেট ছাড়া খাওয়া হয় না। এখান থেকে নতুন একটি গ্লাস কিনলাম। আধুনিক যুগে এসে এ জিনিসগুলো দেখাই যায় না। তবুও আমাদের প্রজন্মকে চেনানোর জন্য হলেও নিজেদের প্রয়োজনেই ঐতিহ্যবাহী এ জিনিসগুলো আমাদের বাঁচিয়ে রাখা উচিত।

বাংলাদেশ সময়: ১৬২৭ ঘণ্টা, নভেম্বর ১৮, ২০১৯
এইচএমএস/এবি/এএ
 

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-11-18 16:29:32