ঢাকা, বুধবার, ২১ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৫ আগস্ট ২০২০, ১৪ জিলহজ ১৪৪১

শিল্প

জাতীয় আয়ে শিল্পখাতের অবদান বেড়েছে ৩৩ শতাংশ: আমু

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-১২-০৬ ০৭:১৩:১৮ পিএম
জাতীয় আয়ে শিল্পখাতের অবদান বেড়েছে ৩৩ শতাংশ: আমু বক্তব্য রাখছেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা: গত পাঁচ বছরের ১৭ শতাংশ থেকে দেশের জাতীয় আয়ে শিল্পখাতের অবদান বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৩ দশমিক ৭১ শতাংশ। শিল্প মন্ত্রণালয়ের নানামুখী পদক্ষেপের ফলে দেশকে নতুন জায়গায় নিয়ে এসেছি বলে জানিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু।

বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) শিল্প মন্ত্রণালয়ের কনফারেন্স রুমে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান শিল্পমন্ত্রী।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ভারপ্রাপ্ত সচিব মো. আবদুল হালিম, মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন দফতর ও সংস্থার প্রধানরা।

শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেন, শিল্প মন্ত্রণালয়ে নানামুখী পদক্ষেপের ফলে রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প কারখানাগুলোর উৎপাদন ও কর্মক্ষমতার বাড়ানোর পাশাপাশি সামগ্রিকভাবে শিল্পখাতে ইতিবাচক পরিবর্তন ঘটেছে। এর ফলে বর্তমানে জাতীয় আয়ে শিল্পখাতের অবদান দাঁড়িয়েছে ৩৩ দশমিক ৭১ শতাংশ। যা ২০০৭-০৮ অর্থবছরে ছিলো ১৭ দশমিক ৭৭ শতাংশ। আমাদের মাথাপিছু আয় এখন ১৭৫১ মার্কিন ডলার। ২০০৮ সালে ছিলো ৯১৭ ডলার।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর রেখে যাওয়া স্বপ্ন দেশের অর্থনৈতিক মুক্তি। তার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন। তার এ সরকারের মেয়াদে রফতানি আয় ১৪ দশমিক ১১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার থেকে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৬ দশমিক ৬৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে।

রফতানি পণ্যবহুমুখীকরণ এবং রফতানিমুখী শিল্পস্থাপনে শিল্প মন্ত্রণালয় ক্যাটালিস্ট হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখায় এটি সম্ভব হয়েছে। এসময়ে শুধুমাত্র বিসিক শিল্পনগরীর রফতামুখী শিল্প ইউনিটগুলোতেই বছরে ২৫ হাজার ২৪২ কোটি টাকারপণ্য উৎপাদিত হচ্ছে বলে জানান তিনি।

আমু বলেন, বিসিকের মাধ্যমে ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পখাতে ৩৮ হাজার লোকের কর্মসংস্থার হয়েছে। ওষুদখাতের প্রসারের জন্য দেশের নগরীতে ৮২০টি শিল্প প্লটের রফতানি শিল্প পণ্য উৎপাদনের কাজ শুরু হয়েছে। তাতে আরও এক লাখ লোকের কর্মসংস্থান হবে।

দক্ষ নারী উদ্যোক্তা গড়ে তোলার জন্য বিসিক শিল্পনগরীতে ন্যূনতম শতকরা ১০ শতাংশ প্লট বরাদ্দ দেওয়ার পাশাপাশি এসএমই নারী উদ্যোক্তাদের জন্য সিঙ্গেল ডিজিট সুদে অর্থায়নের ব্যবস্থা করা হয়েছে উল্লেখ্য করে শিল্পমন্ত্রী বলেন, দেশেপ্রায় ১০ লাখ এসএমই উদ্যোক্তা গড়ে ওঠেছে। এসব এসএমই শিল্প ডিজিপিতে শতকরা ২৩ ভাগ এবং মোট শিল্পকর্মসংস্থানে শতকরা ৮০ শতাংশ অবদান রাখছে।

এছাড়াও বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশনের (বিসিআইসি) মাধ্যমে কৃষকদের সারের সব চাহিদা মেটানো হয়েছে। গত ৫ পাঁচ বছর দেশের কোথাও সারের কোনো সংকট হয়নি বলেও জানান শিল্পমন্ত্রী।

বাংলাদেশ সময়: ১৪১১ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০৬, ২০১৮
এমএফআই/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa