ঢাকা, বুধবার, ২১ শ্রাবণ ১৪২৭, ০৫ আগস্ট ২০২০, ১৪ জিলহজ ১৪৪১

বাজেট

২২ হাজার কোটি টাকার ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-১২-০৬ ০২:৩৫:২০ এএম
২২ হাজার কোটি টাকার ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন

ঢাকা: আগামী বছরের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত আন্তর্জাতিক দরপত্রের মাধ্যমে ৭ দশমিক ৯০৭  থেকে ৮ দশমিক ৮০২ মিলিয়ন ব্যারেল তেল আমদানির প্রস্তাবসহ মোট প্রায় ২২ হাজার কোটি টাকার ২২টি ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি।

বুধবার (০৫ ডিসেম্বর) সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সভাপতিত্বে কমিটির শেষ সভায় এ প্রস্তাবগুলোর অনুমোদন দেওয়া হয়।

সভা শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোসাম্মৎ নাসিমা বেগম অনুমোদিত বিভিন্ন প্রস্তাব নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেছেন।

 

তিনি জানান, আজ (বুধবার) ছিল ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির শেষ সভা। সভায় মোট ১৩টি প্রস্তাব উপস্থাপন করা হলে ১২টির অনুমোদন দেওয়া হয়। এছাড়া টেবিলে আরো ১০টি প্রস্তাব উপস্থাপন করা হয়। সেগুলো সব কয়টির অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

মোসাম্মৎ নাসিমা বলেন, আগামী বছরের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত আন্তর্জাতিক দরপত্রের মাধ্যমে ৭ দশমিক ৯০৭ থেকে ৮ থেকে ৮০২ মিলিয়ন ব্যারেল তেল আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। তিনটি লটে ডিজেল, জেট এ-১, মোগ্যাস  এবং ফার্নেস অয়েল রয়েছে। ডিজেলের প্রিমিয়ার ধরা হয়েছে ২ দশমিক ৮৬, জেটএ ৩ দশমিক ৬৬, ফার্নেস অয়েল ২২, মোগ্যাস ৪ দশমিক ২১ মার্কিন ডলার। এতে মোট ব্যয় হবে ৮ হাজার ২৫৪ কোটি টাকা।

‘দি আরব ও আবুধাবি থেকে ১৩ লাখ মেট্রিকটন অপরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানি করবে সরকার। এতে ব্যয় হবে ৬ হাজার ৫৫৬ কোটি টাকা। এর মধ্যে সৌদি থেকে আনা হবে ৭ লাখ মেট্রিকটন আর আবুধাবি থেকে আনা হবে ৬ লাখ মেট্রিকটন।  

সভায় অনুমোদিত অন্যান্য প্রস্তাবগুলো হলো- সাসেক সড়ক সংযোগ প্রকল্প, এলেঙ্গা-হাটিকামরুল-রংপুর মহাসড়ক চার লেনে উন্নীতকরণ শীর্ষক প্রকল্পের প্যাকেজ এমপি ০১ এর লট ডব্লিউপি ০৬ এর ক্রয় প্রস্তাবে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে মোট ব্যয় হবে ৬৭৫ কোটি ১৭ লাখ টাকা।  

রাষ্ট্রীয় চুক্তির আওতায়  মরক্কো ও তিউনিশিয়া থেকে আড়াই লাখ করে মোট ৫ লাখ মেট্রিকটন  টিএসপি ও ডিএমপি সার আমদানি প্রস্তাব অনুমোদন করেছে কমিটি। এতে মোট ব্যয় হবে ২ হাজার ৩৬৯ কোটি ৫ লাখ টাকা।

এছাড়া এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের (এডিবি) অর্থায়নে বাংলাদেশ রেলওয়ের রোলিং স্টক অপারেশন উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য ৪০টি ব্রডগেজ ইলেকট্রিক লোকোমোটিভ সংগ্রহের প্রস্তাবেও অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। মোট ব্যয় হবে এক হাজার ১২৩ কোটি ৫ লাখ টাকা।  

অনুমোদন পেয়েছে খুলনা থেকে মোংলা পোর্ট পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণ শীর্ষক প্রকল্পটিও। আগে ২৯১ কোটি ২২ লাখ টাকা ব্যয় হলেও বেড়ে তা দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৩৬৭ কোটি টাকা।  

এছাড়া পায়রা গভীর সমুদ্র বন্দরের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য পায়রা বন্দরের ডিটেইল মাস্টার প্ল্যান প্রণয়নে পরামর্শক নিয়োগে ব্যয় ধরা হয়েছে ১২৪ কোটি ৯৬ লাখ টাকা।

বাংলাদেশ সময়: ২১২৮ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০৫, ২০১৮
জিসিজি/এমএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa