ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ আশ্বিন ১৪২৯, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

দিল্লি, কলকাতা, আগরতলা

আগরতলায় উপনির্বাচনের প্রচার করে গেলেন ত্রিণমূল কংগ্রেসের অভিষেক

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮২৮ ঘণ্টা, জুন ১৪, ২০২২
আগরতলায় উপনির্বাচনের প্রচার করে গেলেন ত্রিণমূল কংগ্রেসের অভিষেক

আগরতলা (ত্রিপুরা): ত্রিপুরা রাজ্যের চারটি বিধানসভা আসনের উপনির্বাচনে দলের প্রার্থীদের সমর্থনে প্রচার চালালেন তৃণমূল কংগ্রেস দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।  

মঙ্গলবার (১৪ জুন) দুপুরে তিনি বিশেষ প্লেনে আগরতলা এসে পৌঁছান।

তাকে স্বাগত জানাতে রাজধানীর এমবিবি বিমানবন্দরের উপস্থিত ছিলেন দলের ত্রিপুরা প্রদেশ কমিটির সভাপতি সুবল ভৌমিক, সংসদ সদস্য সুস্মিতা দেব, দলের মুখপাত্র কুনাল ঘোষসহ নেতাকর্মীরা।  

বিমানবন্দরে উপস্থিত নেতারা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে পুষ্পস্তবক দিয়ে স্বাগত জানান। এরপর তিনি সোজা চলে আসেন আগরতলা শহরের একটি হোটেলে। সেখান কিছুক্ষণ বিশ্রাম নেন এবং এরপর রাজধানীর গান্ধীঘাট এলাকায় যান। এই জায়গা থেকে দলের প্রার্থীদের নিয়ে একটি বিশাল মিছিল শুরু হয়।

মিছিলটি হরিগঙ্গা বসাক রোড, পুরাতন মোটর স্ট্যান্ড, বনমালীপুর, অভয়নগর ইত্যাদি রাস্তা হয়ে জিবি বাজার পর্যন্ত আসে। মিছিলে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় একটি খোলা গাড়িতে রোড শো করে আসেন। সঙ্গে ছিলেন আগরতলা বিধানসভা কেন্দ্রের প্রার্থী পান্না দে এবং টাউন বড়দোয়ারি কেন্দ্রের প্রার্থী সংহিতা বন্দোপাধ্যায়সহ অন্যান্য নেতারা।

সবশেষে জিবি বাজারে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। এই সভায় প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।  

বক্তব্যে তিনি বলেন, ত্রিপুরা রাজ্যে এক নতুন সূর্যোদয় ঘটানোর জন্য মমতা ব্যানার্জির আদর্শকে সামনে রেখে এবং এই রাজ্যের আপামর জনগণকে সঙ্গে নিয়ে তিনি যাত্রা শুরু করেছিলেন গত বছরের আগস্ট মাসে। এরপর যত দিন যাচ্ছে বিজেপি এ রাজ্যে সন্ত্রস্ত হয়ে উঠেছে।  

অভিষেক বলেন, বিজেপি যতই আটকানোর চেষ্টা করো কিছুই করতে পারবে না। তিনি তার শরীরে শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে ত্রিপুরার মাটিতে পরিবর্তন আনবেন।

সেইসঙ্গে অভিষেক দাবি করেন, গত নভেম্বর মাসেই তিনি জানিয়ে দিয়েছিলেন বিপ্লব দেবের মুখ্যমন্ত্রীত্বের অন্তিম সময় চলে এসেছে। তার কথা ইতোমধ্যে প্রমাণিত। তৃণমূল কংগ্রেসের রাজনৈতিক কাজকর্মের জন্য বিপ্লব দেবকে ক্ষমতা থেকে সরাতে বাধ্য হয়েছে বিজেপি।  

সেইসঙ্গে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের আরও দাবি, বিজেপি দলের নৌকা ফুটো হয়ে গিয়েছে। তাই এখন এই নৌকা দ্রুতগতিতে ডুবছে। এখন যতই চেষ্টা করা হোক এবং নৌকার ক্যাপ্টেন পরিবর্তন করা হোক না কেন তাকে আর রক্ষা করা যাবে না।

অভিষেক অভিযোগ করেন, চার বছরে বিজেপি ত্রিপুরা রাজ্য ধ্বংসস্তূপে পরিণত করেছে। এর আগে গত ৩৪ বছর এক মানিক রাজ্যকে ধ্বংস করেছে, তারপর চার বছর বিপ্লব দেব ধ্বংস করেছে। এখন এসেছে আরও এক নতুন মানিক ধ্বংস করার জন্য।

অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন বিজেপির বিসর্জনের ঘণ্টা বেজে গিয়েছে। ২০২৩  সালে বিজেপি পরিবর্তন হবে এবং রাজ্যের ক্ষমতায় আসছে তৃণমূল কংগ্রেস দল। তখন তারা ত্রিপুরা রাজ্যকে বাংলার মতো ঢেলে সাজাবেন।  

আগামী ২৩ জুন উপনির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের উভয় প্রার্থীকে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান অভিষেক। তিনি আগামী ২০ জুন আবার রাজ্যে প্রচারের জন্য আসছেন বলেও জানিয়েছেন।

এদিন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের দলীয় কর্মসূচিকে ঘিরে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে কর্মীসমর্থকরা উপস্থিত হয়। কর্মসূচি শেষে তিনি আবার কলকাতা ফিরে যান।  

বাংলাদেশ সময়: ১৮২৫ ঘণ্টা, জুন ১৪, ২০২২
এসসিএন/এসএ
 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa