ঢাকা, রবিবার, ১২ আষাঢ় ১৪২৯, ২৬ জুন ২০২২, ২৬ জিলকদ ১৪৪৩

এভিয়াট্যুর

বিমানের ইন-ফ্লাইট সার্ভিসে নতুন মাত্রা

নিউজ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১০৫৫ ঘণ্টা, মার্চ ২৪, ২০১৭
বিমানের ইন-ফ্লাইট সার্ভিসে নতুন মাত্রা বিমানের ইন-ফ্লাইট সার্ভিসে নতুন মাত্রা (ছবি: সংগৃহিত)

ঢাকা: যাত্রী সেবার মানোন্নয়নে আগামী গ্রীষ্মকালীন শিডিউলে অর্থাৎ ২৬ মার্চ ২০১৭ থেকে নন-স্টপ ঢাকা-লন্ডন-ঢাকা রুটে বিজনেস ক্লাস যাত্রীদের জন্য বৈচিত্র্যময় সুস্বাদু খাবার ও ইন-ফ্লাইট এন্টারটেইনমেন্টের ডালি নতুন করে সাজিয়েছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। একইসঙ্গে সব আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে ডায়েবেটিক খাবার ও শিশুদের জন্য কিডস ফুডেরও ব্যবস্থা রাখবে তারা। তবে যাত্রীদের টিকিট বুকিংয়ের সময়ই তা জানাতে হবে।

বৃহস্পতিবার (২৩ মার্চ) বিমান ফ্লাইট ক্যাটারিং সেন্টারে (বিএফসিসি) এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানে প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও এ এম মোসাদ্দিক আহমেদ এ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি  সংবাদমাধ্যমকে জানানো হয়।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, প্রতি তিনমাস পরপর আন্তর্জাতিক সব সেক্টরে সব ফ্লাইটে যাত্রীদের পছন্দ ও সেবাদানের অভিনবত্বের বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে খাবার মেন্যু ও মিউজিক, মুভি, ভিডিও গেমসের মতো বিনোদনের বিষয়গুলো নতুন করে সাজাবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স।

অনুষ্ঠানে এএম মোসাদ্দিক আহমেদ বলেন, বিমান তার সার্ভিসের প্রতিটি ক্ষেত্রে ব্যাপক পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে নানারকম আকর্ষণীয় যাত্রী সেবা দেওয়ার জন্য উদ্যোগ নিয়েছে। এখন থেকে লন্ডন সেক্টরে বিমানের নন-স্টপ ফ্লাইটে বিজনেস ক্লাসের যাত্রীরা বিশ্বমানের যে কোনো এয়ারলাইন্সের মতো ‘এ লাকার্ট মেন্যু’র বিচিত্র খাদ্যসম্ভার থেকে পছন্দ অনুযায়ী খাবার নির্বাচন করতে পারবেন। এছাড়া এ রুটে বিজনেস ক্লাস যাত্রীরা ‘অল ডে ডাইনিং’ সুবিধার আওতায় ফ্লাইট চলাকালে যে কোনো সময় চাহিদা মতো খাবার খেতে পারবেন।

তিনি আরও বলেন, শিগগির সব আন্তর্জাতিক রুটে পর্যায়ক্রমে এ সুবিধা চালু করা হবে। বিমান তার যাত্রীদের উন্নতমানের সেবা দেওয়ার বিষয়ে অঙ্গীকারাবদ্ধ, এ সার্ভিস তারই প্রতিফলন।

বর্তমানে বিএফসিসি থেকে বিমানসহ মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্স, ক্যাথে প্যাসেফিক, টার্কিস এয়ারলাইন্স ও ড্রাগন এয়ারে খাবার সরবরাহ করা হচ্ছে। এছাড়া বিএফসিসি থেকে আরও ১৪টি বিদেশি এয়ারলাইন্স ক্যাজুয়াল মিলসহ কেবিন ড্রেসিংয়ের সুবিধা নিচ্ছে। বিএফসিসি প্রতিদিন ৮ হাজার ৫০০ মিল তৈরি করে থাকে। হজের সময় প্রতিদিন এ মিলের সংখ্যা দাঁড়ায় ১২ হাজারে।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন বিমানের গ্রাহক সেবা বিষয়ক পরিচালক আতিক সোবহান। উপস্থিত ছিলেন মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ ও উপ-মহাব্যবস্থাপক (বিএফসিসি) জামালউদ্দিন তালুকদার।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৪৮ ঘণ্টা, মার্চ ২৪, ২০১৭
ওএইচ/এইচএ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa