ঢাকা, সোমবার, ১ বৈশাখ ১৪৩১, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৫ শাওয়াল ১৪৪৫

এভিয়াট্যুর

বিআইটিএফ-২০১৫

বাংলা’র ‘শিশিরবিন্দু’ দেখাবে পর্যটন

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১০৫০ ঘণ্টা, মে ২৩, ২০১৫
বাংলা’র ‘শিশিরবিন্দু’ দেখাবে পর্যটন ছবি : রাজীব/বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র থেকে: ‘বহু দিন ধরে বহু ক্রোশ দূরে, বহু ব্যয় করি বহু দেশ ঘুরে, দেখিতে গিয়াছি পর্বতমালা, দেখিতে গিয়াছি সিন্ধু। দেখা হয় নাই চক্ষু মেলিয়া, ঘর হতে শুধু দুই পা ফেলিয়া, একটি ধানের শিষের উপরে একটি শিশিরবিন্দু।



এভাবে অল্প কথায় অনেক কিছু বুঝিয়ে গিয়েছেন কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। একই কথা বলছে বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনও। এই সোনার বাংলার শিশিরবিন্দুর সৌন্দর্যও দেখাতে চায় সংস্থাটি।

‘সকল দেশের রাণী, সে যে আমার জন্মভূমি’- এমন বিশ্বাস নিয়ে এগুচ্ছে সংস্থাটি। বিদেশ নয়, বাংলাদেশের সর্বত্র যে সৌন্দর্য ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে, সেটাই কুড়িয়ে নেওয়ার সুযোগ করে দেয় সরকারি এ সংস্থা।

বৃহস্পতিবার (২১ মে) থেকে শুরু হওয়া বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক পর্যটন মেলায় স্টল রয়েছে পর্যটনের। শুক্রবার (২২ মে) মেলার দ্বিতীয় দিনে দেখা যায়, আগতরা আগ্রহী দৃষ্টিতে দেখছেন স্টলে জামদানি বোনার চিত্র। শনিবার (২৩ মে) মেলার তৃতীয়দিনেও দেখা যাবে একজন জামদানি শিল্পী একমনে কাজ করছেন স্টলে বসেই।

পাশেই বসা পর্যটনের ম্যানেজার (মার্কেটিং) পারভেজ এ চৌধুরী। তিনি বাংলানিউজকে বলেন, দেশের সৌন্দর্য যদি না দেখি, বাইরের সৌন্দর্য কখনো প্রাণ ভরবে না, এক ধরনের অতৃপ্তি থাকবে। বাইরের কাউকে বাংলাদেশ ভ্রমণের আমন্ত্রণ জানানোর আগে নিজেদের উচিত নিজের দেশটিকে দেখা। আর বাইরের দেশের সৌন্দর্য দেখতে যাওয়ার আগেও উচিত নিজের দেশটিকে ভালো করে দেখা।

তিনি বলেন, অনেকেই ভালো করে বলতে পারেন না, বাংলাদেশে দেখার মতো কী কী আছে! কক্সবাজার, সুন্দরবন ছাড়া আর কোনো নাম তাদের মুখে আসে না। কিন্তু বাংলাদেশ পুরোটাই যে দেখার মতো সুন্দর, সেটি বোঝার জন্য আগে আমাদের সেটি বিশ্বাস করতে হবে।

পর্যটন নিজেদের প্রচারে বলছে, পৃথিবী যদি একটি বই হয়ে থাকে, তবে এতে বিচরণ না করে পাঠ সম্পন্ন হবে না। পৃথিবীর প্রতিটি কোণেই ভিন্ন স্বাদের সৌন্দর্য লুকিয়ে রয়েছে।

পারভেজ বলেন, দেশের ভেতরেই বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান, প্রত্যন্ত গ্রামগুলো ঘুরে দেখা, সেখানে দিনরাত কাটিয়ে বাসিন্দাদের জীবনযাত্রা দেখার অভিজ্ঞতা দিতে চায় এ সংস্থা। চীনের এথনিক ভিলেজ দেখতে হাজার হাজার টাকা খরচ করে যান অনেকেই। কিন্তু বাংলাদেশের গ্রামগুলোতে এর চেয়ে ভালো অভিজ্ঞতা হতে পারে- এটাই অনেকে বোঝেন না।

‘আমরা চাই, মানুষ গ্রামে যাক, মাঠে লাঙল দিতে দেখুক, নিজেও হাত লাগাক, বাছুরকে দূরে রেখে কীভাবে তার মায়ের দুধ দোয়ানো হয়, সেটি দেখুক। এভাবেই প্রতিটি জীবনযাত্রার অভিজ্ঞতা নিয়ে আসুক মানুষ’- বলেন তিনি।   

মেলা উপলক্ষে পর্যটন দিচ্ছে বিশেষ একটি ‘প্রিভিলেজ কার্ড’। ৩০০ টাকায় এটি সংগ্রহ করে সংস্থার দেওয়া সেবা আরও সাশ্রয়ে পাওয়া যাবে। পারভেজ জানান, মেলাতেই এ কার্ডের অনেক ক্রেতা পাওয়া গেছে।

পর্যটনের হোটেল-মোটেল রয়েছে- কক্সবাজার (শৈবাল-০৩৪১-৬৩২৭৪, প্রবাল- ০৩৪১-৬৩২১১, উপল-০৩৪১-৬৪২৫৮), রাঙ্গামাটি-০৩৫১-৬৩১২৬, সিলেট-০৮২১-৭১২৪২৬, মংলা-০৪৬৬২-৭৫১০০, রংপুর-০৫২১-৬৩৬৮১, রাজশাহী-০৭২১-৭৭৫৪৯২, কুয়াকাটা-০৪৪২৮-৫৬০০৪, দিনাজপুর-০৫৩১-৬৪৭১৮, বগুড়া-০৫১-৬৭০২৪-২৭, টেকনাফ-০৩৪২৬-৭৫১০৪, খাগড়াছড়ি-০৩৭১-৬২০৮৪-৮৫, টুঙ্গিপাড়া-০৬৬৫৫৫৬৩৪৯, বেনাপোল-০৪২২৮-৭৫৪১১, জাফলং-০১৭১২৩২৮৮২০, ঢাকা (হোটেল অবকাশ-৫৮৮১১১০৯), বান্দরবানে-০৩৬১-৬২৭৪১-২।  

ঢাকার মহাখালীতে হোটেল অবকাশ, এটি সেন্ট্রাল রিজার্ভেশন হিসেবে কাজ করে (ফোন-৯৮৯৩৭১০, ৯৮৯৯২৮৮, ৫৮৮১১১০৯, এক্সটেনশন-১৪৩)।

পর্যটনের ঢাকা থেকে একটি ট্যুর প্যাকেজ রয়েছে রাঙ্গামাটির সৌন্দর্য, দিনাজপুরের লিচু, রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের আম, মাওয়া-বরিশাল-কুয়াকাটা, বান্দরবান, মৌলভীবাজার-সিলেট, কক্সবাজার, বগুড়া-মহাস্থানগড়-পাহাড়পুর উপভোগের।

সাশ্রয়ী এসব প্যাকেজে অংশ নিতে চাইলে যোগাযোগ করা যাবে ০১৯১৫-৫৯৯৩৯৫ নম্বরে।

বাংলাদেশ সময়: ১০৪৯ ঘণ্টা, মে ২৩, ২০১৫
এসকেএস/জেডএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।