ঢাকা, সোমবার, ৯ বৈশাখ ১৪৩১, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১২ শাওয়াল ১৪৪৫

এভিয়াট্যুর

বাংলাদেশের সঙ্গে সরাসরি প্লেন যোগাযোগ স্থাপনে আগ্রহী সুইজারল্যান্ড

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬২৫ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২৪
বাংলাদেশের সঙ্গে সরাসরি প্লেন যোগাযোগ স্থাপনে আগ্রহী সুইজারল্যান্ড

ঢাকা: সুইজারল্যান্ড বাংলাদেশের সঙ্গে সরাসরি প্লেন যোগাযোগ স্থাপনে আগ্রহী বলে জানিয়েছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী মুহাম্মদ ফারুক খান।  

তিনি বলেন, আমরা আশা করছি আগামী দুই মাসের মধ্যে বাংলাদেশ ও সুইজারল্যান্ডের মধ্যে এয়ার সার্ভিস অ্যাগ্রিমেন্ট স্বাক্ষরিত হবে।

এরপর আমরা দুই দেশের মধ্যে সরাসরি প্লেন পরিচালনার বিষয়টি বিবেচনা করবো।

বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সচিবালয়ে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ে নিজ দপ্তরে বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত রেতো রেংগলির সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে মন্ত্রী এ কথা জানান।  

ফারুক খান বলেন, বাংলাদেশের অবস্থান আন্তর্জাতিক প্লেন চলাচল রুটের মধ্যে হওয়ায় আমরা এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশকে একটি অন্যতম প্রধান অ্যাভিয়েশন হাবে রূপান্তর করার জন্য কাজ করছি। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের থার্ড টার্মিনাল, কক্সবাজার বিমানবন্দরের রানওয়ে সম্প্রসারণ ও নতুন টার্মিনাল নির্মাণসহ দেশের সব বিমানবন্দরের অ্যাভিয়েশন অবকাঠামোর উন্নয়নকাজ চলমান রয়েছে। আমরা আশা করছি, আগামী অক্টোবরে থার্ড টার্মিনাল চালু হওয়ার পর আকাশপথের বিদ্যমান যাত্রী সংখ্যা ও কার্গোর পরিমাণ কয়েক বছরের মধ্যেই দ্বিগুণ হবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের পর্যটনের অপার সম্ভাবনাকে বাস্তবে রূপ দেওয়ার জন্য কাজ করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে পর্যটন মহাপরিকল্পনা চূড়ান্ত করা হয়েছে। এ বছরেই তার বাস্তবায়ন শুরু হবে। এছাড়া আমরা বিদেশি পর্যটকদের জন্য কক্সবাজারসহ দেশের আরও বেশ কিছু জায়গায় নিবিড় পর্যটন অঞ্চল তৈরি করছি। সেখানে সুইজারল্যান্ড বিনিয়োগ করলে আমরা তাদের সব সুযোগ-সুবিধা দেবো। পাশাপাশি আমরা ভিসা সহজিকরণ ও ই-ভিসা চালু করা নিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কাজ করছি। এখনই উত্তম সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমাদের অ্যাভিয়েশন ও পর্যটন শিল্পের সম্ভাবনাকে বাস্তব রূপ দেওয়ার।

সাক্ষাৎকালে বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত বলেন, এয়ার সার্ভিস অ্যাগ্রিমেন্ট নিয়ে বাংলাদেশ টিমের সঙ্গে কাজ করাটা ছিল আমাদের জন্য আনন্দের। বাংলাদেশ টিম নেগোসিয়েশনে প্রশংসনীয় দক্ষতা দেখিয়েছে। তাদের দক্ষতা ও সহযোগিতার জন্য সুইজারল্যান্ডের সিভিল অ্যাভিয়েশন কর্তৃপক্ষ তাদের ধন্যবাদ জানিয়েছে।  

রেতো রেংগলি বলেন, বাংলাদেশে গত ১৫ বছরে অভূতপূর্ব অর্থনৈতিক উন্নয়ন হয়েছে। আমরা আশা করছি, বাংলাদেশকে অ্যাভিয়েশন হাবে রূপান্তরের যে কাজ চলছে তা দ্রুত বাস্তবায়ন হবে। আমরা বাংলাদেশের পর্যটন শিল্পে বিনিয়োগের জন্য সুইজারল্যান্ডের বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে কথা বলবো। বিনিয়োগের জন্য একটি ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন যাতে বাংলাদেশ সফর করে সেই ব্যাপারে উদ্যোগ গ্রহণ করবো। এছাড়া পর্যটনের উন্নয়নের জন্য যে মাস্টারপ্ল্যান তৈরি করা হয়েছে তা আমরা বিনিয়োগকারীদের কাছে পাঠাবো।

বাংলাদেশ সময়: ১৬২৩ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২৪
জিসিজি/আরবি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।