bangla news

করোনা, আর কতো নিবি?

অমর্ত্য মুখোপাধ্যায়, অতিথি লেখক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২০-০৫-১৬ ২:১৩:২৫ পিএম
প্রখ্যাত সাহিত্যিক দেবেশ রায়, ফাইল ফটো

প্রখ্যাত সাহিত্যিক দেবেশ রায়, ফাইল ফটো

দেবেশ রায় চলে গেলেন! দেবেশ তাঁর বহু উপন্যাসে, যেমন 'যযাতি' (১৯৭৩) 'আপাতত শান্তিকল্যাণ হয়ে আছে' (১৯৭৩), 'মানুষ খুন করে কেন' (১৯৭৬), এবং প্রতিবেদন ও বৃত্তান্ত সিরিজে 'মফস্বলি বৃত্তান্ত' (১৯৮০), 'তিস্তাপারের বৃত্তান্ত' (১৯৮৮), 'আত্মীয় বৃত্তান্ত' (১৯৯০), 'খরার প্রতিবেদন' (১৯৯৩), 'সময় অসময়ের বৃত্তান্ত' (১৯৯৩),'দাঙ্গার প্রতিবেদন' (১৯৯৪),'একটি ইচ্ছামৃত্যুর প্রতিবেদন' (১৯৯৫), 'শিল্পায়নের প্রতিবেদন' (১৯৯৬) 'ইত্যাদিতে প্রান্তিক মানুষের ছবি এঁকেছেন। সেখানে বাঘারুকে পার্টির মিছিলে যেতে হয় কেবল মালিক গয়ানাথের নির্দেশে। নইলে সে উত্তরখণ্ডের মিছিল বা বামফ্রন্টের মিছিল কোনটাতেই যেতে চায় না। কিন্তু বাঘারু যখন মাদারির সঙ্গে তিস্তাপার ও আপলচাঁদ ছেড়ে চলে যাচ্ছে তিস্তাব্যারেজ ও তার থেকে আসা উন্নয়নের স্বপ্নের আধুনিকতা প্রত্যাখ্যান ক’রে, তখন বাঘারুকে ‘না’ করে দেওয়া গয়ানাথের মুরুব্বি রাষ্ট্র ও সরকারের সম্পর্কে বাঘারুর মৌন নিয়েই আমাদের স্ববিচার করতে হয়। এই চিত্রখণ্ডত্বের কারণ কি এই যে এগুলি মূলপ্রবাহ আর পার্শ্বপ্রবাহের সাহিত্যের প্রতিনিধিত্ব করছে? অন্তেবাসী ও প্রান্তেবাসী মানুষের কথায় দিল্লির নর্থব্লক ব কলকাতার রাইটার্স/নবান্নর কথা ঢোকানো সহজ নয়? সেটা হতে পারে। পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘নিম্নবর্গ কখনোই সমগ্র সমাজের হয়ে কথা বলতে পারবে না। নিম্নবর্গের ইতিহাস তাই অনিবার্যভাবেই আংশিক; অসংলগ্ন, অসম্পূর্ণ’।

কিন্তু ‘বাংলা উপন্যাস’ প্রবন্ধে দেবেশ রায়ের মতের আমি অনুসারী যে "সত্য এই যে বাংলা ভাষায় কোনদিনই উপন্যাসের এমন আলাদা ধারা তৈরি হয়ে ওঠেনি যেখানে জনপ্রিয় আর বিশিষ্টের মধ্যে কোনো পার্থক্য করা যায়। এই পার্থক্য শিল্পের দিক থেকে অর্থহীন। ... বাংলা ভাষায় উপন্যাসের ফর্ম যে তার স্বকীয় আধুনিকতা খুঁজে পেল না, সেই সঙ্কট যেমন জনপ্রিয় তেমনি বিশিষ্ট, এই দুই ধরণের ঔপন্যাসিকেরই সঙ্কট, যদি সে-রকম কোনো ভাগ কল্পনাও করে নেয়া যায়।" তাহলে এই খণ্ড বা টুকরোগুলির কী আলাদা স্বয়ংসম্পূর্ণ অর্থ আছে? মানে, উত্তর-আধুনিকতার ঢঙে বলতে হবে সত্য বলে কিছু নেই, সবই প্রেক্ষিত? এই কথাটার উত্তরও দেবেশ রায় দিয়েছেন ‘উপন্যাসের জনসংযোগ’ প্রবন্ধে, থিওডর ডবলিউ অ্যাডর্নোর মিনিমা মোরালিয়া-র আলোচনা প্রসঙ্গে। সেখানে দেকার্তের ডিসকোর্স অন মেথড-এর একটি সুপারিশ, যে বিষয়টিকে যতখানি সম্ভব ছোটোছোটো অংশে ভাগ করে নিতে হবে, কারণ ‘যে-উপাদানগুলি দিয়ে বিষয়টি তৈরি সেগুলোকে ব্যাখ্যা করলেই বিষয়টিকে ব্যাখ্যা করা হয়ে যাবে’, এ ব্যাপারে অ্যাডর্নোর এই আপত্তির কথা বলেছেন যে "টুকরোগুলো মিলে তো সমগ্রটি তৈরি হয় না, বরং সমগ্রটি তৈরি হয়ে গেলেই টুকরোগুলোর অর্থ বোঝা যায়, নইলে তো সেগুলি অবান্তর!"

এই সমগ্রতার সন্ধান এই সময়কালের কোনো বাংলা উপন্যাসে আমি পাইনি। খণ্ডচিত্রর জায়গায় সমগ্র বলতে আমি গোটা পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে কাহিনীবিস্তারের কথা বলছি না। ১৯৫০-২০০০ কালপর্বের আগের বাংলা সাহিত্যে ধনতন্ত্রের অভিঘাতে সামন্ততান্ত্রিক শৃঙ্খলার ভাঙন তারাশঙ্কর দেখিয়েছিলেন ধাত্রীদেবতায় ‘লাঘাটা বন্দর’-এর পাশে ‘সাত আনির জমিদারি’-তে, ও কালিন্দী-তে কালিন্দীর চরে; সাবেকি ভারতীয় গ্রামীণ সমাজ আর তার নৃতাত্ত্বিক-কার্ষ বৈশিষ্ট্য কেমন করে নতুন শিল্পসমাজের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে তার মনকেমন ইতিবৃত্ত হাঁসুলী বাঁকের উপকথা-য় ‘কোপাই নদীর প্রায় মাঝামাঝি জায়গায় হাঁসুলী বাঁক’-এর পাশে ‘জাঙল’ গ্রামে। গ্রামীণ সমাজের উপর শিল্পায়নের প্রভাব যেহেতু ‘আটচালা’ আর ‘চণ্ডীমণ্ডপ’-এর পতনের মতো বিশেষ স্স্থানিকতায় বিধৃত ফলে তাকে ধরতেই হয়েছিল ‘মহাগ্রাম’, তার ভিতরে ‘শিবকালীপুর’, অথবা ‘পঞ্চগ্রাম’-এর ভাঙাকাঁচে, পশ্চিমবঙ্গের কোনো ‘topos’-এ নয়। একই ভাবে কন্নড় লেখক রাও বাহাদ্দুরের গ্রামায়ণ–এ বিধৃত ‘পাদাল্লি’ নামের একটি গ্রামের রূপান্তরের আখ্যান, কেবল তার ৮৯টি অজস্র চরিত্রের পারস্পরিক সংঘাত-সম্পর্কের ভিত্তিতে। এই গ্রামিক মহাকাব্যে গ্রামই নায়ক, বনের মধ্যে গাছের মতো তার মধ্যেই মিশিয়ে আছে মানুষ। গ্রামজীবনের চালক শক্তিও তারা নয়, চালক বরং বন্যা, দুর্ভিক্ষ, মহামারী, আর সবার উপর মানুষের বোকামি ও অচেতনা।রাম স্বরূপ অনখী কোঠে কড়ক সিং-এ ‘কোটে’ ছাড়াও পাঞ্জাবের মালওয়া অঞ্চলে ‘কোটে’ এবং তার পাশাপাশি কয়েকটি গ্রামে ১৯৪০-৪২ থেকে ১৯৭৭ অবধি একটি জাঠ কৃষক পরিবারের তিন পুরুষের কাহিনীর মধ্যে দেখেছেন প্রাক-স্বাধীনতাকাল থেকে জনতা পার্টির অল্পকালের শাসনের পর ইন্দিরা গান্ধীর প্রত্যাবর্তন পর্যন্ত ৬০টি চরিত্রের আয়নায় পরিবর্তনশীল ভারত। বাংলা সাহিত্যে ১৯৫০ থেকে ২০০০ সালের মধ্যে এরকম কোনো উপন্যাস আছে কি? এই সাহিত্যের আনাড়ি ছাত্রের প্রশ্ন আপনাদের কাছে।

একথা বলছি আমি রাঢ় বঙ্গের দুশোবছরের বিবর্তনকে ফ্রেমবন্দী করা ভগীরথ মিশ্রর ১৯৯৬-এ প্রথম খণ্ড থেকে ২০০০ সালে পঞ্চম খণ্ডের মৃগয়া (২০০৮) উপন্যাসের কথা মনে রেখেও বলছি। সেখানে 'দহনপর্ব'-এর প্রস্তুতি পরিচ্ছেদে ‘উনিশশো ঊনপঞ্চাশের চোদ্দই আগস্ট’ মধ্যরাত্রে কৃষকরা রাষ্ট্রকে বলছে "এই স্বাধীনতা থেকে আমরা কী পেলাম? কেন আমাদের ভাগচাষের জমিন কেড়ে নেয়? কেন ভাগচাষীদের কাছ থিক্যে আধা ফসল লয়া সত্ত্বেও বাবুদের খাস-দখলের জমিন বেগার খাইট্যে চাষ কইর‍্যে দিতে হয়?" কিম্বা 'তস্কর' (১৯৯২) উপন্যাসে জোতদারদের মাথা বাণেশ্বর ঘোষ জানাচ্ছে, "পর পর দুটো যুক্তফ্রন্টই দেশ গাঁয়ের বারোটা বাজিয়ে দিয়েছে। সেই যে হরেকিষ্টো কোঙার মেদুনপুর শহরে মিটিং করে সব্বাইকে লাঠি-সড়কি ধরে বেনাম জমির দখল নিতে বললো, দেশ গাঁয়ের অধঃপতন শুরু হলো তখন থেকেই। ... (কম) জ্বালিয়েছে সাতষট্টি থেকে একাত্তর? শালা, নিজের ঘরে চোরটি সেজে বসে থাকা ... আর বিচার আচার? ... নামেই বিচার আসলে চলে মানী লোকের মান হরণের ব্যবস্থা। সুদ খাটাও ক্যানে? বন্ধক রাখো ক্যানে? দেশের ধান চড়া দামে বাইরে বিক ক্যানে? আরে, দেশ গাঁয়ের চিরকালের ধারাই যে ঐ ... ভাগ্যে বাহাত্তরে জিতলো দল, ভাগ্যে জরুরী অবস্থাটা জারী হইল দেশে। ... জরুরী অবস্থাটা জারী হতেই, পুলিশ দু-চারবার ভিড়কা ভিড়কি করতেই যে যার মুষার মতন গর্তে সেঁধিয়ালঅ।"

কী ক’রে মেলাই ভগীরথ মিশ্রের তস্কর–এ বামশাসন ও ইমার্জেন্সির চিত্রায়নের সঙ্গে জরুরী অবস্থার প্রতিবাদী গৌরকিশোর ঘোষের পশ্চিমবঙ্গ এক 'প্রমোদ তরণী, হা হা' গল্পগ্রন্থটিতে ১৯৬৭-৭১ কালে বামশাসনে কলকাতার চিত্রায়নকে? কিম্বা 'তস্কর'–এ বামশাসনের চিত্রায়নের সঙ্গে সমরেশ বসুর 'তিন পুরুষ' (১৯৮৬) ও 'শেকল ছেঁড়া হাতের খোঁজে' (১৯৮৪)উপন্যাসের প্রথমটিতে গান্ধীবাদী প্রথম পুরুষের পরে মার্কসবাদী দ্বিতীয় পুরুষের হাতে তাঁর এককালের অনুগামী মার্কসবাদী হয়েও তৃতীয় পুরুষের নিগ্রহের কথা, অথবা দ্বিতীয় উপন্যাসটিতে শ্রমিকের ঘরের থেকে আসা শ্রমিকনেতা নওয়াল আগারিয়ার পার্টি সম্পর্কে মোহভঙ্গের কথাকে। 'শেকল ছেঁড়া হাতের খোঁজে' উপন্যাসের সঙ্গে সমরেশ বসুর প্রিয়বন্ধু গৌরকিশোর ঘোষের ‘সাগিনা মাহাতো’ গল্পের বড় যে মিল! পার্টিজান সাহিত্যের দ্বিমেরুকরণে পুরসমাজের স্থান কোথায়? সমাজ/রাষ্ট্রে, পুরসমাজে, খণ্ডে-সমগ্রে, মেলানোর মশলার সন্ধান দেওয়ার চেষ্টা করতেন দেবেশ! চলে গেলেন!

অমর্ত্য মুখোপাধ্যায়, প্রাক্তন অধ্যাপক ও ডিন (আর্টস); কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়, কলকাতা

বাংলাদেশ সময়: ১৪১২ ঘণ্টা, মে ১৬, ২০২০
টিএ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   কলকাতা শিল্প-সাহিত্য করোনা ভাইরাস
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2020-05-16 14:13:25