ঢাকা, মঙ্গলবার, ৭ আশ্বিন ১৪২৭, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩ সফর ১৪৪২

শিল্প-সাহিত্য

তারুণ্যের তুলিতে অহিংস গান্ধী

ফিচার রিপোর্টার | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০২২৪ ঘণ্টা, জানুয়ারী ৮, ২০২০
তারুণ্যের তুলিতে অহিংস গান্ধী

ঢাকা: কিছু মানুষ তাদের ব্যক্তিত্ব ও নেতৃত্বগুণ দিয়ে ছাপ রেখে যান বিশ্বের ইতিহাসে, মানুষের হৃদয়ে। এমন এক ব্যক্তিত্ব মহাত্মা গান্ধী, তাকে নিয়েই শুরু হলো শিল্পকর্মের সঙ্গে আলোকচিত্রের মিশেলে ‘গান্ধী-১৫০ আর্ট প্রদর্শনী’। 

মহাত্মা গান্ধীর সার্ধশত জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এ প্রদর্শনীতে ১৫ জন তরুণ শিল্পী তাদের তুলিতে এঁকেছেন অহিংস আন্দোলনের রূপকার মহাত্মা গান্ধীকে।

মঙ্গলবার (৭ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালার চার নম্বর গ্যালারিতে উদ্বোধন করা হয় এ প্রদর্শনীর।

আয়োজন করেছে ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশন ও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলনে মহাত্মা গান্ধী গবেষক ও কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, জামালপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য মির্জা আজম, নোয়াখালী-১ আসনের সংসদ সদস্য এইচ এম ইব্রাহিম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলার অধ্যাপক শিল্পী রোকেয়া সুলতানা এবং ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনের ডেপুটি হাই কমিশনার বিশ্বদীপ দে। স্বাগত বক্তব্য রাখেন শিল্পকলা একাডেমির চারুকলা বিভাগের পরিচালক আশরাফুল আলম পপলু।

...সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন, ঊনিশ শতকে অনেক বড় বড় নেতা বিভিন্ন পর্যায়ে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। তবে মহাত্মা গান্ধী অন্যরকম। তিনি গোটা দক্ষিণ এশিয়ার মানুষের মুক্তির জন্য এবং তাদের কল্যাণে শান্তিপূর্ণভাবে ও অহিংস পদ্ধতিতে আন্দোলন শুরু করেন, মানবজাতির ইতিহাসে যা অদ্বিতীয়।

গান্ধীর অহিংস আন্দোলনের বিষয়ে ফরাসি সাহিত্যিক রোমা র‌্যলাঁকে উদ্ধৃত করে তিনি বলেন, মাটির পৃথিবীতে এ ধরনের মানুষের জন্ম একবার-দু’বারের বেশি হয়নি। তিনি শুধু ভারতবর্ষের নয়, উপমহাদেশের সব মানুষের নেতা ছিলেন।

ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনের ডেপুটি হাই কমিশনার বিশ্বদীপ দে বলেন, এই শিল্পকর্মগুলো কেবল দর্শকদের মুগ্ধই করবে না, বরং গান্ধীজীর সাধারণ ও সত্যের প্রতি নিবেদিত জীবনের কথাও স্মরণ করিয়ে দেবে। একইসঙ্গে আমি আশা করি, যেসব তরুণ শিল্পী এই চিত্রকর্মগুলো এঁকেছেন, তারা গান্ধীর আদর্শকে তাদের জীবনের সঙ্গে জড়িয়ে নিয়ে এগিয়ে যাবেন।

...এই চিত্র প্রদর্শনীতে দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে শুরু করে ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের বিভিন্ন আন্দোলনে নেতৃত্ব দেওয়ার সময় মহাত্মা গান্ধীর জীবনের বিভিন্ন পর্যায় ফুটে উঠেছে। ৭ থেকে ১৬ জানুয়ারি পর্যন্ত দশদিনের এই প্রদর্শনী সাজানো হয়েছে ৩০টি চিত্রকর্ম, ১৮টি আলোকচিত্র ও ২টি ভাস্কর্যসহ মোট ৫০টি শিল্পকর্ম দিয়ে। প্রদর্শনী খোলা থাকবে প্রতিদিন বেলা ১১টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত।

এর আগে ১২ থেকে ১৫ ডিসেম্বর (২০১৯) মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে অনুষ্ঠিত একটি আর্ট ক্যাম্পের মাধ্যমে তৈরি করা হয়েছে এসব চিত্রকর্ম। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলার অধ্যাপক শিল্পী রোকেয়া সুলতানার তত্ত্বাবধানে ওই ক্যাম্পে বাংলাদেশের ১৫ জন তরুণ শিল্পী অংশ নেন।

বাংলাদেশ সময়: ২১১৭ ঘণ্টা, জানুয়ারি ০৭, ২০২০
এইচএমএস/এএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa