ঢাকা, শুক্রবার, ১৩ মাঘ ১৪২৯, ২৭ জানুয়ারি ২০২৩, ০৪ রজব ১৪৪৪

স্বাস্থ্য

সমালোচনাকারীরা আগে ভ্যাকসিন নিচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭৫৯ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২১
সমালোচনাকারীরা আগে ভ্যাকসিন নিচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী কৈশোর স্বাস্থ্য এবং সুস্থতা বিষয়ক সমীক্ষা প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক | ছবি: রাজীন চৌধুরী

ঢাকা: যারা করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন নিয়ে সমালোচনা করেছিলেন তারাই এখন আগে ভ্যাকসিন নিচ্ছেন বলে উল্লেখ করেছেন স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে রাজধানীর ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে কৈশোর স্বাস্থ্য এবং সুস্থতা বিষয়ক এক সমীক্ষা প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, করোনায় আমরা অনেক ভালো আছি। আমাদের অর্থনৈতিক অগ্রগতি ভালো আছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় করোনাকালে ৯ মাস কাজ করেছে। করোনাকালে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের লোকজন রাস্তায় কাজ করেছে এবং তারাই আবার মানুষের সমালোচনা-কটাক্ষ শুনেছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের লোকজন কাজ করেছে বলেই ১৭ কোটি লোকের মধ্যে মাত্র ৮ হাজার লোকের মৃত্যু হয়েছে। আমেরিকায় পৌনে ৫ লাখ লোক মারা গেছে। ভারতে পৌনে ২ লাখ লোক মারা গেছে।

করোনার ভ্যাকসিন প্রসঙ্গ উল্লেখ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন বিষয়েও অনেক সমালোচনা করা হয়েছে। অনেকে বলেছেন ভ্যাকসিন আসবেই না বাংলাদেশে, ভ্যাকসিন আসলেও কার্যকরী হবে না। যারা সমালোচনা করেছে এখন তারাই আগে ভ্যাকসিন নিচ্ছে।

জাহিদ মালেক আরও বলেন, স্বাস্থ্য ভালো না থাকলে সবকিছুই বৃথা হয়ে যাবে। যদি আমরা করোনা ভাইরাসকে কন্ট্রোল করতে না পারতাম, তাহলে আজকে এখানে আপনারা সার্ভে রিপোর্ট প্রকাশ করতে পারতেন না। এখানে কোনো মিটিং করতে পারতেন না। ভয়ে আমরা কেউ আসতাম না। মানুষের যাতায়াত বন্ধ হয়ে যেত। হাসপাতালে জায়গা হতো না। রাস্তাঘাটে লোকজন মরে পড়ে থাকত।

কিশোরদের স্বাস্থ্য প্রসঙ্গ উল্লেখ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আমাদের ছেলে-মেয়েরা কী করছে, কোথায় যাচ্ছে—এসব বিষয়ে অভিভাবকদের খেয়াল রাখতে হবে। কোনকিছুই অতিরিক্ত ভালো না। আমাদের খাবার-দাবারেও ব্যালেন্স ফুড গ্রহণ করতে হবে। শুধু ফাস্টফুড না, সেই সাথে ফলমূল শাকসবজিও খেতে হবে। আমাদের ছেলে-মেয়েরা এখন মোবাইলে গেম খেলে। কিন্তু তারা মাঠে যায় না। মাঠের আলো-বাতাস তাদের গায়ে লাগে না। এদিকেও আমাদের খেয়াল রাখতে হবে। আমরা আমাদের ছেলেমেয়েদের যেভাবে গাইড করব পরবর্তীতে তারা সেভাবেই গড়ে উঠবে।

তিনি আরও বলেন, বই পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। বর্তমান সময়ের ছেলেমেয়েরা বই পড়েই না। লাইব্রেরিতে যায় না। একটা আইপ্যাডের মধ্যেও ৫০০ বই রাখা যায়। কিন্তু বই পড়তে আমরা ছেলেমেয়েদের দেখি না। এই বিষয়টাও আমাদের খেয়াল রাখতে হবে।

রিপোর্ট প্রকাশ অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আব্দুল মান্নান, স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব আলিনুর, নিপোর্ট-এর ডিরেক্টর জেনারেল সুশান্ত কুমার সাহা,  ইউএসএআইডির জনসংখ্যা, পুষ্টি ও শিক্ষা অফিসের পরিচালক জারজিস সিধওয়া প্রমুখ।

আরও পড়ুন: করোনা ভ্যাকসিনের অনস্পট রেজিস্ট্রেশন বন্ধ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বাংলাদেশ সময়: ১৭৫৪ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২১
আরকেআর/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa