bangla news

ইনফেরিওরিটি কমপ্লেক্স কাটাতে উদ্যোগ নিন নিজেই

মনোকথা ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৬-০৪-২৯ ১:২৫:৪৮ এএম

নিজেকে নিয়ে আপনার ধারণা কেমন? সারাক্ষণই কি নিজেকে নিয়ে অস্বস্তিতে ভোগেন, অ্যাংজাইটি ও লজ্জাবোধ হয়? কারও সঙ্গে সহজভাবে কথা বলতে পারেন না বা আত্মবিশ্বাস ও সহজাত দক্ষতাগুলোর প্রকাশভঙ্গি কি সবসময়ই বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে? এর নাম ইনফেরিওরিটি কমপ্লেক্স।

ঢাকা: নিজেকে নিয়ে আপনার ধারণা কেমন? সারাক্ষণই কি নিজেকে নিয়ে অস্বস্তিতে ভোগেন, অ্যাংজাইটি ও লজ্জাবোধ হয়? কারও সঙ্গে সহজভাবে কথা বলতে পারেন না বা আত্মবিশ্বাস ও সহজাত দক্ষতাগুলোর প্রকাশভঙ্গি কি সবসময়ই বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে? এর নাম ইনফেরিওরিটি কমপ্লেক্স। যাকে বাংলায় বলে হীনমন্যতা।

ইনফেরিওরিটি কমপ্লেক্স একটি দীর্ঘমেয়াদী মানসিক প্রক্রিয়া যা দীর্ঘ সময়ের ধারাবাহিকতায় কারও চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের অংশ হয়ে দাঁড়ায়। এটি বাহ্যিক রূপ, বুদ্ধিমত্তা, ব্যক্তিত্ব, পড়াশোনা, যোগ্যতা, সামাজিক ও অর্থনৈতিক স্ট্যাটাসের বাস্তব বা কল্পনিক ক্রটি নিয়ে ব্যক্তির লালিত নিজস্ব ধারণা।

মনস্তাত্ত্বিক বৈশিষ্ট্যগুলোর মধ্যে ইনফেরিওরিটি কমপ্লেক্স অন্যতম ক্ষতিকর একটি যা ব্যক্তির জীবনকে জটিল করে তোলে। এতে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গিগুলোর অবক্ষয় হয়। তবে বৈজ্ঞানিক ও বাস্তবমুখী পদক্ষেপের মাধ্যমে এ সমস্যা থেকে বেরিয়ে আসা সম্ভব।

কগনিটিভ বিহেভিওরাল কোচিং (সিবিসি) ও কগনিটিভ বিহেভিওরাল থেরাপি (সিবিটি) টেকনিকের মাধ্যমে এ সমস্যা সমাধান করা যেতে পারে। এর মধ্যে ইনফেরিওরিটি কমপ্লেক্স দূর করতে সিবিটি অত্যন্ত কার্যকরী একটি মাধ্যম। এতে ব্যক্তির নিজেকে নিয়ে নেতিবাচক ধারণা, ভাবনা ও চিন্তাগুলো ধীরে ধীরে দূর করতে পারে। সিবিটি চিন্তা নিয়ন্ত্রণ ও ভাবনার প্যাটার্ন তৈরির মাধ্যমে অনুভূতিগুলোকে নিয়ন্ত্রণে আনে।

তবে নিজেকে নিজেই সবার আগে সাহায্য করতে হবে। দুটি বিষয় খেয়াল রাখা জরুরি-
•     মেন্টাল সেল্ফ ইমেজ –অপনার নিজের কাছে আপনার ইমেজ কেমন তা আপনার ইনফেরিওরিটি কমপ্লেক্স বাড়াতে বা দূর করতে সাহায্য করবে। নিজেকে ঘিরে যখন কারও ফলস বিলিভ (আমি অসুন্দর, অপদার্থ, সবার দ্বারা উপেক্ষিত) তৈরি হয় তখন তা ইনফেরিওরিটি কমপ্লেক্সের দিকে এগোতে থাকে। এসব ভাবনা থেকে যখন বেরিয়ে আসবেন তখন সহজে এ সমস্যার সমাধান হবে।
•     অন্যের দেওয়া ব্যাখ্যায় নিজেকে বিশ্লেষণ করবেন না - এ বিষয়টি খুব গুরুত্বপূর্ণ- অন্য কেউ আপনাকে নেতিবাচকভাবে ব্যাখ্যা করছে আর আপনি তাতেই নিজেকে সাজিয়ে তুলছেন। এটা ভুল। অন্যের ব্যাখ্যার সত্যতা কতটুকু বা কতটুকু কাল্পনিক তা আপনিই ভালো জানেন। নিজেকে বিশ্বাস করুন।


মনে রাখুন, সুখী ও ভালো থাকার শুরু আপনার কাছ থেকেই।

বাংলাদেশ সময়: ১১২৫ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৯, ২০১৬
এসএমএন/এটি

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2016-04-29 01:25:48