ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ আষাঢ় ১৪২৭, ০৯ জুলাই ২০২০, ১৭ জিলকদ ১৪৪১

স্বাস্থ্য

অনলাইনের দুধে ব্যাকটেরিয়া

কবির হোসেন, নিউজরুম এডিটর | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৩-২৬-১০ ০৩:৫৩:৪৬ এএম
অনলাইনের দুধে ব্যাকটেরিয়া

ঢাকা: যেসব মা বিভিন্ন কারণে শিশুকে বুকের দুধ খাওয়াতে পারেন না তারা নির্ভর করেন অনলাইনের দুধের উপর। কিন্তু আধুনিক মায়েদের এই দুধেও ভেজাল রয়েছে।

সম্প্রতি একটি গবেষণায় দেখা গেছে, যেসব দুধ ইন্টারনেটে বিক্রি করা হয় তাতে ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া রয়েছে।

সোমবার শিশুরোগ বিষয়ক জার্নাল পেডিয়াট্রিকস এ গবেষণাটি প্রকাশিত হয়। যুক্তরাষ্ট্রের ওহিও রাজ্যের পেডিয়াট্রিকস বিভাগের বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সারাহ খেইম এর নেতৃত্বে একদল গবেষক এ বিষয়ে একটি গবেষণাপত্র পেশ করেন।

গবেষকরা কয়েকটি অনলাইন সাইট থেকে ১০১টি মাতৃদুগ্ধের নমুনা সংগ্রহ করেন ও সেগুলো পরীক্ষা করেন। গবেষকরা দেখতে পান সংগৃহীত নমুনার ৬৪ ভাগ দুধে staph ব্যাকটেরিয়া, ৩৬ ভাগ দুধে strep ব্যাকটেরিয়া এবং এদের তিনভাগের একভাগ অন্যান্য ব্যাকটেরিয়া দ্বারা আক্রান্ত। এছাড়া ৭৪ ভাগ দুধে মিল্ক ব্যাংকের দুধের গুণাগুণ নেই। আবার এদের মধ্যে তিন প্রকার নমুনায় salmonella পাওয়া গেছে।

খেইম বলেন, স্বাভাবিক মাত্রায় staph এবং strep ক্ষতিকারক কোন উপাদান নেই। তবে অনলাইন দুধে উচ্চমাত্রায় এই দুটি ভাইরাস পাওয়া গেছে যা অত্যন্ত ক্ষতিকারক।

অন্যদিকে অপাস্তুরিত দুধের নমুনায়ও ব্যাকটেরিয়া মুক্ত নয়। তবে অনলাইন দুধের চেয়ে এটি কিছুটা নিরাপদ। এর ২৫ ভাগ staph, ২০ ভাগ strep এবং ৩৫ ভাগ অন্যান্য ব্যাকটেরিয়া রয়েছে।

অনলাইনে বিক্রি হওয়া দুধে ব্যাকটেরিয়া কিভাবে প্রবেশ করে সেটির ব্যপারে খুব নিশ্চিত হওয়া যায় নি। তবে ধারণা করা হচ্ছে, যারা দুধ প্রদান করেছেন তাদের ত্বক, যে পাম্প দিয়ে দুধ সংগ্রহ করা হয়েছে সেটি থেকে কিংবা বোতলজাত করার সময় কোনভাবে ব্যাকটেরিয়া দুধে প্রবেশ করে থাকতে পারে।

কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের নিওনাটোলজি এবং পেরিনাটোলজি বিভাগের পরিচালক রিচার্ড এ পলিন বলেন, এই ব্যাকটেরিয়া শিশু রোগের অন্যতম কারন।

বাংলাদেশ সময়: ০৩৫৩ ঘণ্টা, অক্টোবর ২৬, ২০১৩
কেএইচ/আরকে

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa