ঢাকা, শনিবার, ৯ চৈত্র ১৪২৫, ২৩ মার্চ ২০১৯
bangla news

মন্ত্রীর না!

|
আপডেট: ২০১৫-১১-২৯ ৫:১৯:০০ এএম
ছবি: রাজীব- বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: রাজীব- বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

পদ্মার ওপারে জাজিরা পয়েন্টে নদী শাসন কাজে নিয়োজিত ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সিনোহাইড্রোর সভাকক্ষ। সেখানে চলছে উচ্চ পর্যায়ের এক সভা। যার প্রাণকেন্দ্রে সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

পদ্মাপাড় (জাজিরা) শরীয়তপুর থেকে: পদ্মার ওপারে জাজিরা পয়েন্টে নদী শাসন কাজে নিয়োজিত ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সিনোহাইড্রোর সভাকক্ষ।

সেখানে চলছে উচ্চ পর্যায়ের এক সভা। যার প্রাণকেন্দ্রে সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। অগ্রভাগে সেতু মন্ত্রণালয়ের সচিব, পদ্মাসেতু প্রকল্প প্রধান, সেনাবাহিনীর ঊর্ধ্বর্তন কর্মকর্তা, শরীয়তপুর আর মাদারীপুর জেলার জনপ্রতিনিধি ও জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা।

হঠাৎ একজন মন্ত্রীকে পদ্মার এ পাড়ে বাংলো বাড়ি উপহার দেবার প্রস্তাব করতেই বিব্রত মন্ত্রী। বক্তার প্রস্তাবে হালি পানি পাবার আগেই মন্ত্রীর সরাসরি না।

‘আপনি নোয়াখালী জেলার জনপ্রতিনিধি হয়ে আমাদের জন্যে যা করছেন তা অবিস্মরণীয়। এই স্মৃতির স্বাক্ষর রাখতে আমরা নদীর এ পাড়ে আপনাকে একটি
বাংলো বাড়ি তৈরি করে দিতে চাই। যখন মনে হয় তখন আপনি এখানে আসবেন।’

তিনি মোবারক এ সিকদার। আওয়ামী লীগ নেতা ও জাজিরা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান।

তার কথা শেষ হবার আগেই মন্ত্রী কয়েকটি কথার প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, ‘আমি নোয়াখালীর এমপি। তবে মন্ত্রী দেশের, সকলের। এটা আমার দায়িত্ব। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অগ্রধিকার প্রকল্প। তাই এই সেতু প্রকল্পের অগ্রগতি দেখতে আমি ছুটে আসি।’

‘আপনি আমাকে বাড়ি দিতে চেয়েছেন, বাড়ি লাগবে কেন? আপনার বাড়ি আছে না! প্রয়োজনে সেখানেই যাবো আমি,’ সাফ জবাব মন্ত্রীর।

বাংলাদেশ সময়: ১৬১৭ ঘণ্টা, নভেম্বর ২৯, ২০১৫
এসআই/জেডআর/এসএ/এইচএ/এমএমকে/ এমএ/এএসআর

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
db