bangla news

টেকসই উন্নয়ন বাস্তবায়নে দরকার রাজনৈতিক সদিচ্ছা

205 |
আপডেট: ২০১৫-১০-১৪ ৪:২৮:০০ এএম
ছবি: সোহাগ / বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: সোহাগ / বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

টেকসই উন্নয়নে (এসডিজি) রাজনৈতিক সদিচ্ছাকেই সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। বুধবার (১৪ অক্টোবর) জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স হলে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ‘ভয়েস’ আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করা হয়।

ঢাকা: টেকসই উন্নয়নে (এসডিজি) রাজনৈতিক সদিচ্ছাকেই সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

বুধবার (১৪ অক্টোবর) জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স হলে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ‘ভয়েস’ আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করা হয়।
 
সংস্থার প্রধান নির্বাহী আহমেদ স্বপন মাহমুদ সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলেন, গত সেপ্টেম্বরে জাতিসংঘ সম্মেলনে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধানরা ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত বিশ্ব গড়ে তুলতে ২০৩০ সাল পর্যন্ত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার পূর্ণাঙ্গ দলিল স্বাক্ষর করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বক্তব্যে বৈশ্বিক উন্নয়ন পরিকল্পনার সঙ্গে সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী উন্নয়ন পরিকল্পনার সমন্বয়ের দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। যা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে সমন্বয় করা হবে।
 
তবে বিশিষ্টজনরা মনে করেন, প্রধানমন্ত্রীর এ বক্তব্য বাস্তবায়ন প্রতিশ্রুতি নানা চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হবে। যদিনা এসডিজিতে সমাজের সব মানুষকে অর্ন্তভুক্ত না করা যায়। যদিও সহশ্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বাংলাদেশের অবদান নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়।

বিশেষ করে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, মাতৃ মৃত্যুরোধ, জেন্ডার বৈষম্যে সমতা অর্জনে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি করেছে বলে সংবাদ সম্মেলনে দাবি করা হয়।
 
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, আমরা প্রত্যাশা করি, সরকার জাতীয় ও স্থানীয় পর্যায়ে এ উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়নে একটি সুর্নিদিষ্ট, কার্যকরী, অংশগ্রহণমূলক, স্বচ্ছ ও প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামোসহ একটি সমন্বিত পরীক্ষণ ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। যাতে কেউ এ প্রক্রিয়া থেকে বাদ না পড়েন। প্রান্তিক ও দরিদ্র জনগোষ্ঠীর অংশগ্রহণ যেন সহজেই পরিমাপযোগ্য হয়, সে বিষয়ে কৌশল গ্রহণ করতে হবে। যদিও সরকার এরইমধ্যে একটি কৌশল গ্রহণের ঘোষণা দিয়েছে।
 
সংবাদ সম্মেলনে দাবি করা হয়, এ বিষয়ে যেনো সরকার শিগগিরই জাতীয় পর্যায়ে গঠনমূলক সংলাপ শুরু করে। বিশেষ করে নারী ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠী যারা উন্নয়নের বাইরে রয়েছেন তাদের উন্নয়নে উন্মুক্ত বিতর্ক, সংসদে আলোচনা ও স্থানীয় এবং জাতীয় পর্যায়ে সম্মেলন আয়োজন করা দরকার।
 
সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটির নির্বাহী প্রধান বলেন, পরিকল্পনা বাস্তবায়নে অবশ্যই জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে। উন্নয়ন সহযোগী দেশগুলোর পাওনা হিসেবে উন্নত দেশের প্রতিশ্রুত অর্থ ছাড় নিশ্চিত করতে হবে।
 
তিনি বলেন, সরকার যদি জনগণের ঘাড়ে ট্যাক্সের বোঝা চাপিয়ে উন্নয়ন করতে চায় তাহলে জনগণের টাকার সদব্যবহার ও দুর্নীতির ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স নিশ্চিত ও সুশাসন নিশ্চিত করতে হবে।
 
অনুষ্ঠানে উন্নয়ন কর্মী শামসুজ্জোহা বলেন, এসডিজি বাস্তবায়নে নাগরিক সমাজকে ভূমিকা পালন করতে হবে।
 
বাংলাদেশ সময়:১৪৩০ ঘণ্টা, অক্টোবর ১৪, ২০১৫
আরএম/জেডএস

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2015-10-14 04:28:00