bangla news

অস্তিত্ব সংকটে সিলেট শিক্ষাবোর্ডের ছয় কলেজ

702 |
আপডেট: ২০১৫-০৮-০২ ১০:৪০:০০ পিএম

চার বার মেধা তালিকা প্রকাশ করার পরও সিলেট শিক্ষাবোর্ডের কয়েকটি কলেজে ভর্তির ব্যাপারে আগ্রহ দেখায়নি শিক্ষার্থীরা। যে কারণে অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে ছয়টি কলেজ। এ ব্যাপারে সিলেট শিক্ষাবোর্ডের কাছে ব্যাখা চেয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

সিলেট: চার বার মেধা তালিকা প্রকাশ করার পরও সিলেট শিক্ষাবোর্ডের কয়েকটি কলেজে ভর্তির ব্যাপারে আগ্রহ দেখায়নি শিক্ষার্থীরা। যে কারণে অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে ছয়টি কলেজ।

এ ব্যাপারে সিলেট শিক্ষাবোর্ডের কাছে ব্যাখা চেয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এমনকি এসব কলেজে পাঠদান বাতিলেও মত দিয়েছে মন্ত্রণালয়।

শিক্ষার্থী না পাওয়া কলেজগুলো হলো- নগরীর মিরা বাজারের নাইট স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার ঘিলাছড়া ইউনিয়নের জমিরুন্নেছা স্কুল অ্যান্ড কলেজ, বিশ্বনাথ উপজেলার মফিজ আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজ, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার জুবলী স্কুল অ্যান্ড কলেজ, মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার কমলগঞ্জ বালক উচ্চবিদ্যালয় অ্যান্ড কলেজ এবং কমলগঞ্জ বালিকা উচ্চবিদ্যালয় অ্যান্ড কলেজ।

মন্ত্রণালয় থেকে কলেজগুলো সম্পর্কে ব্যাখ্যা চাওয়ার বিষয়টির সত্যতা বাংলানিউজকে নিশ্চিত করেছেন সিলেট শিক্ষাবোর্ডের কলেজ পরিদর্শক মোস্তফা কামাল। এই ছয় কলেজের বাইরেও শিক্ষার্থী না পাওয়া কলেজ থাকতে পারে জানিয়ে তিনি বলেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

কলেজ পরিদর্শক আরও বলেন, ভর্তি প্রক্রিয়া চলাকালীন কয়েকটি কলেজ পরিচালনার অনুমোদন লাভ করে। যে কারণে শিক্ষার্থীরা এসব কলেজের ব্যাপারে অবগত নয়।

বোর্ড সূত্র জানায়, নতুন-পুরানো মিলিয়ে সিলেট শিক্ষাবোর্ডের অধীনে উচ্চবিদ্যালয় সংযুক্তসহ ২৭৮টি কলেজ রয়েছে। কলেজগুলোর অনুমোদন টিকিয়ে রাখতে গেলে বিভাগ প্রতি ২৫ জন করে শিক্ষার্থী থাকা আবশ্যক।
অথচ এসব কলেজ একাদশ শ্রেণিতে কোনও শিক্ষার্থী পায়নি। দ্বাদশ শ্রেণিতেও কোনও শিক্ষার্থী নেই।

যে কারণে শিক্ষার্থীবিহীন এসব কলেজের পাঠদান বন্ধ ও অনুমোদন বাতিলে প্রাথমিক প্রক্রিয়া হিসেবে বোর্ডের কাছে ব্যাখ্যা চেয়েছে মন্ত্রণালয়।

বাংলাদেশ সময়:  ০৮৪১ ঘণ্টা, আগস্ট ০৩, ২০১৫
এনইউ/এসইউ

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
db 2015-08-02 22:40:00