bangla news

উচ্চ আদালতে যাওয়ার সুযোগ নেই খালেদার

425 |
আপডেট: ২০১৫-০২-২৭ ২:১৮:০০ এএম
ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

সাবেক আইন প্রতিমন্ত্রী ও বর্তমান খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেছেন, গ্রেফতারি পরোয়ানার বিষয় নিয়ে খালেদা জিয়ার উচ্চ আদালতে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। যে আদালত গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন সেখানেই আত্মসমর্পন করে তাকে জামিন চাইতে হবে।

ঢাকা: সাবেক আইন প্রতিমন্ত্রী ও বর্তমান খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেছেন, গ্রেফতারি পরোয়ানার বিষয় নিয়ে খালেদা জিয়ার উচ্চ আদালতে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। যে আদালত গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন সেখানেই আত্মসমর্পন করে তাকে জামিন চাইতে হবে।
 
শুক্রবার রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমির নৃত্যশালায় আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

চলচ্চিত্রকার আলমগীর কুমকুমের তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এ আলোচনা সভা আয়োজন করে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট।
 
অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেন, আদলত আইন অনুযায়ী যা করার তাই করছেন। আইন মেনেই খালেদা জিয়ার প্রতি গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন। কোনো মামলার বিচারকাজের সময় হয় আসামিকে আদালতে হাজির থাকতে হয়, না হয় আইনজীবীর মাধ্যমে আদালতে উপস্থিত হতে হয়। কিন্তু তিনি আইনের প্রতি নূন্যতম শ্রদ্ধাবোধ দেখাননি। ৬৩ দিন আদালতে অনুপস্থিত থেকেছেন। উপস্থিত ছিলেন মাত্র ৭ দিন। কাজেই তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা ছাড়া উপায় ছিলো না। এটা রুটিন নির্দেশ। মামলাটিকে এগিয়ে নেয়ার স্বার্থেই আদালতের এ ছাড়া কিছু করার ছিলো না।
 
তাই বিশ্বাস করি, আদালতের প্রতি তাঁর শ্রদ্ধাবোধ জাগ্রত হবে। আদালতে উপস্থিত হয়ে মামলা লড়বেন- যোগ করেন মন্ত্রী।

গ্রেফতারি পরোয়ানা নিয়ে বিএনপি নেতাদের বৈঠকের বিষয়টি উল্লেখ করে এই তিনি বলেন, পত্রিকায় দেখলাম তারা উচ্চ আদালতে যাওয়ার বিষয়ে ভাবছেন। কিন্তু একজন আইনজীবী হিসেবে স্পট বলছি, উচ্চ আদালতে যাওয়ার আর কোনো সুযোগ নেই। এই আদালতেই আত্মসমর্পন করে জামিন চাইতে হবে। এটা নিয়ে মাঠ গরম করারও কোনো সুযোগ নেই।
 
জামায়াতের সঙ্গ ত্যাগ করে সন্ত্রাসের পথ পরিহারের জন্য খালেদা জিয়ার প্রতি আহ্বান জানান কামরুল ইসলাম। তিনি বলেন, নির্বাচনের কথা বলেন? কিন্তু এখন নির্বাচন হবে না। যথাসময়েই নির্বাচন হবে।
 
সুশীলদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, দয়া করে ষড়ডন্ত্র করবেন না। ষড়যন্ত্র করে কাউকে ক্ষমতায় বসাতে পারবেন না। মান্না সাহেব স্বপ্ন দেখেছিলেন, কিন্তু ধরা খেয়ে গেছেন। মান্না সাহেবের চেহারা উন্মোচিত হয়ে গেছে। এরকম আরো যারা মান্না সাহেবের মতো কথোপকথন করেছেন তাদের চেহারাও উন্মোচন হবে।
 
মন্ত্রী বলেন, মানুষ হত্যা করে এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছেন যে মানুষ আপনাদের ধিক্কার দিচ্ছে। আগামীতে মানুষের কাছে ভোট চাইতেও পারবেন না। তাই জামায়াতের সঙ্গ ত্যাগ করে অমানুষ থেকে মানুষ হওয়ার চেষ্টা করুন।

আয়োজক সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ড. এনামুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় সাংস্কৃতিক কর্মী ও স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী মনোরঞ্জন ঘোষাল, আওয়ামী লীগের উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক অ্যাডভোকেট বলরাম পোদ্দার, এমএ করিম, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহ আলম মুরাদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
 
বাংলাদেশ সময়: ১৩১৯ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০১৫

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
db 2015-02-27 02:18:00