ঢাকা, রবিবার, ১০ চৈত্র ১৪২৫, ২৪ মার্চ ২০১৯
bangla news

মন্ত্রীর দুঃখ প্রকাশে সিলেটে সাংবাদিকদের ক্ষোভ

814 |
আপডেট: ২০১৪-০৮-১১ ৭:১৫:০০ এএম

মন্ত্রীর দুঃখ প্রকাশের বিবৃতি নিয়ে সিলেটে সাংবাদিকরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। মন্ত্রীর দেওয়া বিবৃতিতে কয়েকজন সাংবাদিককে দোষী সাব্যস্ত করায় এ ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটে।

সিলেট: মন্ত্রীর দুঃখ প্রকাশের বিবৃতি নিয়ে সিলেটে সাংবাদিকরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। মন্ত্রীর দেওয়া বিবৃতিতে কয়েকজন সাংবাদিককে দোষী সাব্যস্ত করায় এ ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটে।

গালাগালের জন্য দুঃখ প্রকাশ করে সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসীন আলী বলেন- ‘শনিবার অনুষ্ঠান চলাকালে মঞ্চের সামনে উপবিষ্ট কতিপয় সাংবাদিক প্রধানমন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রীকে নিয়ে টিপ্পনী কাটছিলেন। ওইসব কথা শুনে সইতে না পেরে তিনি হঠাৎ কিছুটা রেগে যান এবং রাগান্বিত অবস্থায় স্থানীয় সাংবাদিকদের উদ্দেশে কিছু কথা বলেন।

মন্ত্রীর এ মিথ্যাচারে সাংবাদিকরা আবারো ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তারা বলেছেন মন্ত্রী নিজে দোষ করে সাংবাদিকদের ওপর চাপিয়ে চেওয়ার চেষ্টা করছেন। এমন অহেতুক বাজে বক্তব্য প্রত্যাহার ও মন্ত্রিসভা থেকে তাকে সরিয়ে দেওয়ার দাবি সাংবাদিকদের।

চ্যানেল- নাইন এর সিলেট ব্যুরো প্রধান দেবাশীষ দেবু বাংলানিউজকে বলেন, ‘ওইদিন আমিও ছিলাম অনুষ্ঠানস্থলে। কিন্তু দুঃখ প্রকাশের বিবৃতির মাধ্যমে সমাজকল্যাণমন্ত্রী নিজের কদর্যরূপ আড়াল করতে প্রধামন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রীকে টেনে এনে মিথ্যচার করেছেন।

তিনি বলেন, এরকম মিথ্যাবাদী, কাণ্ডজ্ঞানহীন ব্যক্তি মন্ত্রিসভায় থাকলে সরকারের ভাবমুর্তি আরো সংকটে পড়বে। তিনি বারবার বেফাঁস অশ্লীল বক্তব্য ও অঙ্গভঙ্গীর মাধ্যমে সরকারকে বিব্রতকর অবস্থায় ফেলছেন। তাই তাকে মন্ত্রিসভা থেকে সরিয়ে দেওয়া হবে সবচেয়ে সময়োযোগী সিদ্ধান্ত।

স্থানীয় দৈনিক শ্যামল সিলেট’র বার্তা সম্পাদক আবুল মোহাম্মদ বাংলানিউজকে বলেন, ‘গালিগালাজ করার পরও সমাজকল্যাণমন্ত্রী দুঃখ প্রকাশের বিবৃতিতে মিথ্যাচার করে স্থানীয় সাংবাদিকদের গায়ে কালিমা লেপনের চেষ্টা করছেন।

তিনি বলেন, সৈয়দ মহসীন আলীর দেওয়া বিবৃতি মন্ত্রীত্ব রক্ষার জন্যই। নতুবা সম্প্রচার নীতিমালার কথা উল্লেখ করে তিনি বেফাঁস কথাবার্তা বলে যে দৃষ্টতা দেখিয়েছেন। আর দোষ দিচ্ছেন স্থানীয় সাংবাদিকদের ওপর। তিনি মিথ্যাচার করলেও মিডিয়ার কল্যাণেই দেশের মানুষ তার অশ্রাব্য ভাষার গালিগালাজ দেখেছে। এ ঘটনার পর সমাজকল্যাণ মন্ত্রীকে যে কোনো অনুষ্ঠানে অতিথি করতেও ভয় পাবেন আয়োজকরা।

শনিবার অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত ছিলেন সময় টিভি’র ব্যুরো প্রধান ইকরামুল কবীর। তিনি ফেসবুক স্ট্যাটার্সে লিখেছেন-‘সিলেটের সাংবাদিকরা প্রকাশ্যে প্রধানমন্ত্রী আর অর্থমন্ত্রীর বিরুদ্ধে সমালোচনা করেন- সিলেটের সাংবাদিকদের বিতর্কিত করে মন্ত্রী মহসিন এই বক্তব্য দিয়ে নিজে বাঁচার অপচেষ্টাকে ধীক্কার জানাই।

এদিকে, সমাজকল্যাণমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ক্ষোভ ঝাড়ছেন ফেসবুক ব্যবহারকারীরাও। এম এ মালেক তার ফেসবুক স্ট্যাটার্সে ‘সামাজিকতাও ভুলে গেলেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী’ একটি পত্রিকার প্রধান শিরোনাম তুলে ধরেছেন।

সাকিব আহমদ মিটু তার ফেসবুক স্ট্যাটার্সে লিখেছেন, ‘সমাজ কল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলীকে মন্ত্রিসভা থেকে বাদ দেওয়া হোক।’

বাংলাদেশ সময়: ১৭১৫ ঘন্টা, আগস্ট ১১, ২০১৪

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14