ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ আষাঢ় ১৪২৬, ২৫ জুন ২০১৯
bangla news
আ’লীগ কর্মী খুন

ঝিনাইদহের ১১ গ্রামের ২শ’ বাড়ি ভাঙচুর

810 |
আপডেট: ২০১৪-০৬-১১ ৯:১৪:০০ এএম
ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

আওয়ামী লীগের এক কর্মীকে গুলি করে হত্যার জের ধরে ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ফুরসন্দি ইউনিয়নের ১১টি গ্রামের প্রায় ২শ’ বাড়িতে ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে।

ঝিনাইদহ: আওয়ামী লীগের এক কর্মীকে গুলি করে হত্যার জের ধরে ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ফুরসন্দি ইউনিয়নের ১১টি গ্রামের প্রায় ২শ’ বাড়িতে ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে।

বুধবার সকাল থেকে দিনব্যাপী ইউনিয়নের জিথড়, ধনঞ্জয়পুর, মাড়ন্দি, মিয়াকুন্ডু ও দোহকুলাসহ ১১টি গ্রামের অন্তত ২শ’ বাড়িতে ভাঙচুর ও লুটপাট চালায় নিহতের লোকজন ও দলীয় সমর্থকরা।

মঙ্গলবার রাতে সিরাজুল ইসলাম রিন্টু মুন্সি নামের ওই আওয়ামী লীগ সমর্থককে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। রিন্টু ওই ইউনিয়নের মাড়ন্দি গ্রামের বাসিন্দা।

এদিকে, বুধবার সন্ধ্যা পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুযায়ী, ১১ গ্রামের প্রায় ২শ’ বাড়ি থেকে গরু ও ছাগল লুট করে নেওয়া হয়েছে। কেটে নেওয়া হচ্ছে বাড়ির গাছপালা। ভয়ে ওইসব গ্রামের মানুষ আতঙ্কে বাড়িঘর ছেড়ে পালাতে শুরু করেছে।

স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন ধরে আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল মালেক ও  শহীদ শিকদারের মধ্যে বিরোধ চলছে।

আব্দুল মালেক জেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরী সদস্য ও ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক। অন্যদিকে, শহীদ শিকদার ফুরসন্দি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি।

ওই বিরোধের জের ধরে মঙ্গলবার রাতে রিন্টুকে ‍গুলি করে হত্যা করা হয়। এ খবর জানাজানি হলে ‌আব্দুল মালেকের লোকজন শহীদ শিকদারের বাড়িঘরসহ তার নিয়ন্ত্রিত ১১ গ্রামের হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটপাট চালায়।

হামলাকারীরা মিয়াকুন্ডু গ্রামের মিলন ও তার বাবা তোজাম হোসেন খাঁর বাড়ি থেকে গরু-ছাগল ও  আতাউর রহমানের পাওয়ার টিলার লুট করে নিয়ে যায়।

তারা জিথড় গ্রামের শহর আলী মোল্লা, সবদুল, আবু বকর, ইনসার আলী, গোলা সরদার ও মাসুদ মেম্বর, মাড়ন্দি গ্রামের কোহিনুর ও ধননঞ্জয়পুর গ্রামের আবু বকর মেম্বরসহ দুই শতাধিক ব্যক্তির বাড়ি লুটপাট করে।

আওয়ামী লীগ নেতা শহিদ শিকদার অভিযোগ করেন, রিন্টু হত্যার ঘটনার সূত্র ধরে আব্দুল মালেকের সমর্থকরা তার নিজের বাড়িঘর ও তার এলাকার গ্রামগুলোতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর ও লুটপাট করে সব নিয়ে গেছে।  

তিনি আরো জানান, আতঙ্কে মানুষ গ্রাম ছেড়ে পালাচ্ছে। নারীরা বাড়িতে লাঞ্ছিত করা হচ্ছে।

তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করে আওয়ামী লীগ নেত‍া আব্দুল মালেক বলেন, রিন্টুকে গুলি করে হত্যা করায় সাধারণ জনতা বিক্ষুব্ধ হয়ে এ হামলা করেছে।

এদিকে, স্থানীয় বিএনপি নেতা ওহিদুর রহমান মিয়া অভিযোগ করেন, আওয়ামী লীগের কর্মীরা এ সুযোগে ওইসব গ্রামের বিএনপির কর্মী-সমর্থকদের বাড়িতে হামলা ও লুটপাট চালিয়েছে।

এ বিষয়ে ঘটনাস্থলে দায়িত্ব পালনরত ঝিনাইদহ সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জিয়াউর রহমান বলেন, এতো বড় এলাকা স্বল্পসংখ্যক পুলিশ দিয়ে সামলানো সম্ভব নয়। এরপরও যতটুকু সম্ভব দায়িত্ব পালন করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৯০৭ ঘণ্টা, জুন ১১, ২০১৪

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
db 2014-06-11 09:14:00