bangla news

উচ্চ শিক্ষিতরাই উপজেলায় বেশি নির্বাচিত

111 |
আপডেট: ২০১৪-০৫-২৯ ৩:৫৪:০০ এএম
ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

উপজেলা নির্বাচনে উচ্চ শিক্ষিতদের (স্নাতক ও স্নাতকোত্তর) নির্বাচিত হওয়ার হার স্বল্প শিক্ষিতদের (এসএসসি বা তার চেয়ে কম) চেয়ে বেশি।

ঢাকা: উপজেলা নির্বাচনে উচ্চ শিক্ষিতদের (স্নাতক ও স্নাতকোত্তর) নির্বাচিত হওয়ার হার স্বল্প শিক্ষিতদের (এসএসসি বা তার চেয়ে কম) চেয়ে বেশি।

বৃহস্পতিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) এ তথ্য প্রকাশ করে।

সুজনের সমন্বয়কারী দিলীপ কুমার নির্বাচনী ফলাফল বিশ্লেষণ করে বলেন, ৪৬৫ জন নির্বাচিত চেয়ারম্যানের মধ্যে স্বল্পশিক্ষিত প্রার্থী ১১৯ জন (২৫.৫৯ শতাংশ)। নির্বাচিত প্রার্থীদের মধ্যে বিদ্যালয়ের গণ্ডি পেরুতে পারেননি ৫৯ জন (১২.৬৮ শতাংশ) ।

প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের ক্ষেত্রে বিদ্যালয়ের গণ্ডি পেরুতে না পারার হার ছিল ১৭.৯৬ শতাংশ (২,২৮৮ জনের মধ্যে ৪১১ জন)।

নির্বাচনের ফলাফল বিশ্লেষণ করে বলা যায়, ভোটাররা উচ্চ শিক্ষিত প্রার্থীদের বেশি হারে নির্বাচিত করেছেন এবং স্বল্প শিক্ষিতদের কিছুটা হলেও বর্জন করেছেন।

ফলাফল বিশ্লেষণে বলা হয়, ৪৬৫ জন নির্বাচিত চেয়ারম্যানের মধ্যে ৩০২ ধারায় (হত্যা মামলা) মামলা রয়েছে ২৫ জনের বিরুদ্ধে। বর্তমানে মামলা রয়েছে এমন প্রার্থী দু’জন এবং অতীতে থাকা প্রার্থী ছিলেন ৫৪ জন।

নির্বাচিত চেয়ারম্যানদের মধ্যে ২৮৮ জনের পেশাই ব্যবসা। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের ক্ষেত্রে এ হার ছিল দুই হাজার ২৮৮ জনের মধ্যে এক হাজার ২৭৫ জন। হলফনামায় পেশার বিষয়টি উল্লেখ না করা নির্বাচিত চেয়ারম্যান ১৬ জন।       

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) বক্তব্য গ্রহণযোগ্য নয় বলে মন্তব্য করেছেন সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার।
 
সুজন প্রধান ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, দুদক কোনোভাবেই কাউকে হুমকি দিতে পারে না, কিংবা হয়রানি করতে পারে না। কারণ, এটি একটি বিধিবদ্ধ প্রতিষ্ঠান।  

তিনি বলেন, উপজেলা নির্বাচনের প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপে নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হলেও পরবর্তীতে এ ধারা অব্যাহত থাকেনি। অনেকেই হলফনামায় সম্পদের হিসেবে মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন। দুদক চাইলে এদের তথ্য যাচাই-বাছাই করে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে পারে।

সংবাদ সম্মেলনে সুজন স্থানীয় সরকার কমিশন গঠনের দাবি জানায়। স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোকে আমলাতন্ত্রের খবরদারি মুক্ত করতেই এ কমিশন গঠনের দাবি জানানো হয়। 

বদিউল আলম মজুমদার দক্ষ, যোগ্য, নিরপেক্ষ ও ব্যক্তিত্বের অধিকারী ব্যক্তিদের সমন্বয়ে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনের দাবি জানান। তিনি নির্বাচন কমিশনকে মেরুদণ্ড সোজা করে অবাধ, নিরপেক্ষ ও অর্থবহ করার লক্ষ্যে যথাযথভাবে ক্ষমতা প্রয়োগের আহ্বান জানান। 

এ সময় তিনি স্থানীয় সরকার নির্বাচনগুলোকে দলভিত্তিক না করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, দলভিত্তিক নির্বাচন হলে তা মর্যাদার লড়াইয়ে পরিণত হবে। ফলে জয়ের জন্য দলগুলোর মরিয়া প্রচেষ্টায় সংঘর্ষের জন্ম দেবে। ক্ষমতাসীনরা জয়ের জন্য বিভিন্নভাবে নির্বাচনকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করে। আর রাজনৈতিক দলগুলো যদি দলভিত্তিক নির্বাচন করতেই চায় তাহলে এজন্য আইন প্রণয়ন করতে হবে।

সুজনের নির্বাহী সদস্য তোফায়েল আহমেদ বলেন, আমরা একটি সুন্দর নির্বাচনী সংস্কৃতি তৈরি করতে সক্ষম হয়েছিলাম। কিন্তু এখন তা হারিয়ে যাচ্ছে। এ অবস্থা যদি চলতে থাকে তবে গণতন্ত্র হুমকির মুখে পড়বে।

তিনি অবিলম্বে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুলসহ সাত ‘খুনের’ ঘটনার আসামি কাউন্সিলর নূর হোসেন ও অপর কাউন্সিলর নীলার সম্পদ ও হলফনামার তথ্য যাচাই-বাছাই করে ব্যবস্থা নিতে নির্বাচন কমিশনের প্রতি আহ্বান জানান।  

** দুদক টিআইবিকে হুমকি দিতে পারে না

বাংলাদেশ সময়: ১৩৪৮ ঘণ্টা, মে ২৯, ২০১৪ 

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
db 2014-05-29 03:54:00