ঢাকা, শুক্রবার, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

ফুটবল

বন্ধুরাও মহিলা কোচ বলে টিজ করতো: ছোটন

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, স্পোর্টস | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০০৩২ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২০, ২০২২
বন্ধুরাও মহিলা কোচ বলে টিজ করতো: ছোটন

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে মেয়েদের ফুটবলার হওয়ার প্রতিবন্ধকতা, বাধার গল্পের সঙ্গে আমরা সকলেই কম-বেশি পরিচিত। আমরা সকলেই জানি কত প্রতিকূলতার সঙ্গে লড়াই করে ফুটবল খেলতে হয় মেয়েদের।

সেই মেয়েরাই আজ বিশ্ব দরবারে দেশকে নিয়ে গেছে অন্য উচ্চতায়। সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশিপে শিরোপা জয় করেছে তারা। তবে সেই নারী ফুটবলারদের সাফল্যে মূল নেপথ্য কারিগর গোলাম রব্বানী ছোটনকে পাড়ি দিতে হয়েছে বন্ধুর পথ।

এক যুগেরও বেশি সময় ধরে বাংলাদেশের নারী দলের কোচের দায়িত্ব পালন করছেন ছোটন। তবে শুরুর গল্পটা ছিল ভিন্ন। পুরুষ দলের ফুটবলেই যেখানে বলার মতন তেমন কোনও সাফল্য নেই, সেখানে নারী দলের কোচ হওয়ার সিদ্ধান্ত সত্যিই দুঃসাহসিকতার। যখন প্রথম দিকে নারী ফুটবল দলের কোচের দায়িত্ব নিয়েছেন আশেপাশের লোকজন মহিলা কোচ টিজ করতেন বলে জানিয়েছেন কোচ ছোটন। তিনি বলেন, ‘শুরুতে যখন দায়িত্ব নিলাম আশেপাশের মানুষরা আমাকে মহিলা কোচ বলে টিজ করতো। আমার বন্ধুবান্ধবরাও আমাকে মহিলা কোচ বলে টিজ করতো। ’ আজ সব সমালোচকদের কড়া জবাবই দিলেন ছোটন। আজ তার সফলতায় সকলেই গর্বের সঙ্গে তার নাম উচ্চারণ করবে এটা হলফ করে বলা যায়।

শিরোপা জয়ের পর সাবিনাকে ধন্যবাদ দিয়েছেন ছোটন। তিনি বলেন, ‘নেপালের বিপক্ষে জয়টা সহজ ছিল না। যখন ২-১ গোলে আমরা এগিয়ে গেলাম তখন স্টেডিয়ামে নেপালের সমর্থকরা অনেক আওয়াজ করছিলেন। কোনও ইনসট্রাকশনই মাঠে খেলোয়াড়রা শুনতে পাচ্ছিল না। এক্ষেত্রে সাবিনা অনেক বড় ভূমিকা পালন করেছেন। তাকে আলাদা করে ধন্যবাদ দিতেই হয়। ’

শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সকলেই নিজেদের সেরাটা দিয়েছেন। দলের লক্ষ্য পূরণ হয়েছে বলে জানিয়েছেন ছোটন। তিনি বলেন, ‘পুরো আসরেই মেয়েরা ভালো খেলেছে। আমরা আমরাদের লক্ষ্য পূরণ করতে পেরেছি। আমরা এখন দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সেরা ফুটবল দল। ’

বাংলাদেশ সময়: ১২৩১ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২০, ২০২২
এআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa