bangla news

বিশ্বকাপ চলাকালে বেড়ে যায় পারিবারিক কলহ

ওয়ার্ল্ড কাপ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৭-১২ ২:৩২:০৬ এএম
পারিবারিক কলহ প্রতিরোধে ইংল্যান্ডে ব্যবহৃত একটি পোস্টার- ছবি: সংগৃহীত

পারিবারিক কলহ প্রতিরোধে ইংল্যান্ডে ব্যবহৃত একটি পোস্টার- ছবি: সংগৃহীত

বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে হেরে বিদায় নিয়েছে ইংল্যান্ড। ম্যাচটির আগে পারিবারিক কলহ নিয়ে কাজ করা ইংল্যান্ডের বিভিন্ন সংস্থা ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী বিশেষ প্রস্তুতি নিয়েছিল। কারণ, বিশ্বকাপ চলাকালে দল হারুক বা জিতুক দেশটিতে পারিবারিক কলহ মাত্রা ছাড়িয়ে যাচ্ছিল।

অবস্থা এমন দাঁড়ায় যে, পারিবারিক কলহ প্রতিরোধে ইংল্যান্ডের ‘ন্যাশনাল সেন্টার অফ ডোমেস্টিক ভায়োলেন্স’ বিশেষ প্রচারণা শুরু করে। প্রচারণায় ‘নট সো বিউটিফুল গেম’ স্লোগানে বেশ কিছু হতবাক করে দেওয়ার মতো ছবি যুক্ত করা হয়।
 
গ্রাফিক্স ব্যবহার করে তৈরি করা ছবিগুলোতে ইংল্যান্ডের পতাকাকে রক্তাক্ত, ক্ষত-বিক্ষত অবস্থায় দেখানো হয়েছে। ছবির ক্যাপশনে লেখা ‘যদি ইংল্যান্ড হেরে যায়, তাহলে সেও  (নারী) হেরে যাবে’। ছবিগুলো সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার পাশাপাশি বিলবোর্ডেও ব্যবহৃত হয়।
 
প্রচারণায় দেখানো হয়েছে— কিভাবে বিশ্বকাপ চলাকালে ইংল্যান্ডের পরাজয়ে পারিবারিক কলহ ৩৮ শতাংশ বেড়ে যায়। যদিও এর আগে এক গবেষণায় দেখা গেছে, খেলার ফলাফল যাই হোক না কেন পারিবারিক কলহ বেড়েই চলেছে।
 
লেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক দল ল্যাঙ্কাশায়ার অঞ্চলে ২০০২, ২০০৬ ও ২০১০ সালের বিশ্বকাপে গবেষণা করে দেখেছেন যে, ইংল্যান্ড দল হেরে গেলে পারিবারিক কলহ ৩৮ শতাংশ বেড়ে যায়। যেদিন ইংল্যান্ডের খেলা থাকে না সেদিনের চেয়ে যেদিন খেলা থাকে এবং ইংল্যান্ড জিতে যায় কিংবা ড্র করে সেদিন কলহ-বিবাদের ঘটনা ২৬ শতাংশ বেড়ে যায়। এমনকি ম্যাচের পরদিনও ১১ শতাংশ বেড়ে যায়।
 
সমস্যাটা শুধু যুক্তরাজ্যেই নয়, বিশ্বকাপ চলাকালে সারা পৃথিবীতেই এই সমস্যা দেখা দেয়। সারা বিশ্বেই এই সময়ে শুধু নারী নন, পুরুষরাও নিগ্রহের শিকার হন। এসব ঘটনা নিয়ে খুব বেশি উচ্চবাচ্য নেই। এমনকি পুলিশের কাছে রিপোর্ট করতেও দেখা যায় খুব কম ক্ষেত্রেই।
 
বিশ্বকাপের সময় তীব্র আবেগ আর হতাশায়  অন্ধ ফুটবল সমর্থকরা তাদের বন্ধু/সঙ্গী/সঙ্গিনীর সঙ্গে বিবাদে জড়িয়ে পড়েন, কখনো কখনো নির্যাতনও করেন। কলহ কখনো হাতাহাতি থেকে খুন পর্যন্তও গড়াতে পারে।
 
অন্য কোনো টুর্নামেন্ট ফুটবল বিশ্বকাপের মতো এত আবেগ আর হতাশার মিশেল ঘটায় না। অন্যসব খেলার ক্ষেত্রে অপরাধীরা নিজ উদ্যোগে অপরাধকর্মে জড়ায়।
 
ফুটবল বিশ্বকাপ চলাকালে কলহ-দ্বন্দ্ব শুধু বিশ্বকাপ সংশ্লিষ্ট দলই নয়, আবেগ আর উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে বিশ্বজুড়ে। বাংলাদেশেও বিশ্বকাপের উন্মাদনার শিকার হতে দেখা যায় অনেককে। এখানেও বিশ্বকাপ নিয়ে উত্তেজনায় বন্ধুত্বের মতো সম্পর্ক নষ্ট হওয়া থেকে শুরু করে জীবন নেওয়ার মতো ঘটনাও ঘটতে দেখা যায়। পারিবারিক কলহের ঘটনাও কম হয় না। ভবিষ্যতের জন্য এ এক সতর্কবার্তা।

বাংলাদেশ সময়: ১২০৩ ঘণ্টা, জুলাই ১২, ২০১৮
এমএইচএম/এমজেএফ

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

ফিফা বিশ্বকাপ ২০১৮ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache_14 2018-07-12 02:32:06