ঢাকা, বুধবার, ২ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৭ জুলাই ২০১৯
bangla news

বিশ্বকাপে নিরুত্তাপ চীন

সেরাজুল ইসলাম সিরাজ, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৭-১১ ১১:২২:৩৬ এএম
সুউচ্চ ভবনগুলোর কোথাও কোনো দলের পতাকা চোখে পড়ে না

সুউচ্চ ভবনগুলোর কোথাও কোনো দলের পতাকা চোখে পড়ে না

চীন থেকে ফিরে: চীন সাগর ঘেরা সাংহাই, উত্তরে রাজধানী শহর বেইজিং, দক্ষিণ-পূর্বে গুয়াংজু সর্বত্র আকাশচুম্বী সুরম্য ভবনে ঠাসা। পথঘাট ও শৃঙ্খলা মনে রাখার মতো। এসব শহর যখন চক্কর দিচ্ছি তখন সীমান্তের ওপারে রাশিয়ার চলছে ফুটবলের দামামা।
 

কিন্তু মস্কোর সেই দামামার কোনো ছিটেফোঁটা চোখে পড়লো না। আবার কোনো ভবনের ছাদে প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া কোনো দেশের পতাকাও দৃশ্যমান নয়। এখানেই শেষ নয়, বাংলাদেশের মতো কোনো দলের জার্সি গায়ে দিয়ে কাউকে ঘুরতেও দেখা গেলো না। না বেইজিং, না সাংহাই, না গুয়াংজুতে। আবার খেলা শেষে মিছিল বের করা তাদের নাকি কল্পনার মধ্যেও আসে না।
 
কিন্তু বাংলাদেশে কি হচ্ছে, এখানে পতাকা উড়ানোর ধুম চলছে। কে কার চেয়ে বড় পতাকা উড়াতে পারে সেই প্রতিযোগিতা। কেউ আবার ‘সম্বলের’ জমি বিক্রি করে নাকি বড় পতাকার রেকর্ড গড়েছেন। এমনও ভবন দেখা গেছে যেখানে ছাদ ঢেকে গেছে বিভিন্ন দেশের পতাকায়, পতাকার রংয়ে। অথচ সেইসব ভবনে হয়তো অনেক জাতীয় দিবসে লাল-সবুজ পতাকা উড়ে না।
 আবার পছন্দের দলের জার্সি গায়ে জড়ানো নিয়েও বাঙালিদের জুড়ি নেই। রাস্তায় শতশত লোক পাওয়া যাবে যারা জার্সি গায়ে দিয়ে ঘুরছেন। কিন্তু চীনের যেসব এলাকায ঘোরা হয়েছে সেসব এলাকায় একজনও চোখে পড়লো না জার্সি গায়ে বেরিয়েছেন। মার্কেটগুলোতেও কোনো দলের জার্সি বিক্রি হতে দেখা গেলো না।

অথচ বাংলাদেশ বিশ্বকাপ ফুটবলে কখনই ছিলো না। আবার অদূর ভবিষ্যতে খেলতে যাচ্ছে এমন সম্ভাবনাও ক্ষীণ। অন্তত বর্তমান রেকর্ড সে কথাই বলে। ফিফার ২১১ সদস্যের মধ্যে বাংলাদেশের র‌্যাংকিং ১৯৪।
 
সে তুলনায় চীনের ফুটবল অনেক এগিয়ে রয়েছে। তাদের বর্তমান র‌্যাংকিং ৭৫। ১৯৫৮ সালে প্রথম বাছাই পর্বে অংশ নিয়ে ব্যর্থ হয়। এরপর ২০০২ সালে সফলতার সঙ্গে বাছাই পর্ব শেষ করে জাপান-কোরিয়া বিশ্বকাপে অংশ নেয়। তবে গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নিতে হয়। রাশিয়া বিশ্বকাপে বাছাই পর্বে পেরোতে ব্যর্থ হয় চীন।
 
তবে কাতার বিশ্বকাপে খেলতে এখনই কোমর বেঁধে নেমেছে চীন। তারা নামিদামি তারকাদের সঙ্গে চুক্তি করেছে। ব্রাজিলিয়ান তারকা পাওলিনহোর সঙ্গে চুক্তি করেছে গুয়াংজু এবারগ্রান্দে ক্লাব। এছাড়া ব্রাজিলিয়ান তারকা অস্কার, আর্জেন্টিনার তারকা মাসচেরানোকে দেশে টানছে। যাদের সান্নিধ্যে থেকে চীনা ফুটবল দল অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠতে চায়।
 
অর্থাৎ তারা বিশ্বকাপের ডামাডোলের আশপাশ দিয়ে ঘোরাফেরা করছে। কিন্তু তাদের দেশের সমর্থকদের মধ্যে তার কোনো রেশ নেই। আবার বাংলাদেশ কখনও বিশ্বকাপে খেলেনি, নিকট ভবিষ্যতেও সম্ভাবনা ক্ষীণ, সেখানেই উত্তেজনা উন্মাদনায় রূপ নিয়েছে। ফেসবুকে চলছে মল্লযুদ্ধ, প্রাণের বন্ধুর সঙ্গে ঘটেছে বিচ্ছেদ, শুধুই বিশ্বকাপকে কেন্দ্র করে।

একাধিক এলাকা থেকে পাওয়া গেছে মারামারির খবর। মিছিল করতে গিয়ে মর্মান্তিক বিয়োগান্তক ঘটনার নজিরও সৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু তারপরও যেনো থামবার জো নেই। পছন্দের দল আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল-জার্মানি নেই তো কি হয়েছে। রাতারাতি নতুন দলের সমর্থক বনে রাজা-উজির মারছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।
 
কিন্তু চীনাদের এমন অবস্থান বারবার মনে করে দিয়েছে সম্ভবত বাঙালির মতো এতো ‘হুজুগে পাগল’লোক খুঁজে পাওয়া কঠিন। যারা আগে পিছে না ভেবেই বর্তমান নিয়ে উন্মাদনায় মেতে ওঠেন! তবে সময় এসেছে এ নিয়ে শুভবুদ্ধির উদয় হওয়ার!

বাংলাদেশ সময়: ২১২০ ঘণ্টা, জুলাই ১১, ২০১৮
এসআই/জেডএস

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

ফিফা বিশ্বকাপ ২০১৮ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache_14 2018-07-11 11:22:36