[x]
[x]
ঢাকা, শুক্রবার, ৬ আশ্বিন ১৪২৫, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮
bangla news

১৩২ বছর আগের ‘বোতল বার্তা’র রহস্য

অফবিট ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৩-০৭ ১:২৬:১৫ পিএম
বোতল

বোতল

ঢাকা: প্রাচীনকালে সমুদ্রে হারিয়ে যাওয়া মানুষরা সংকেত পাঠানোর জন্য ব্যবহার করতেন ‘বোতল বার্তা’। এক টুকরা কাগজে বার্তা লিখে তা বোতলে ভরে সমুদ্রে ভাসিয়ে দেওয়া হতো। স্রোতে ভাসতে ভাসতে তা কখনও কখনও পৌঁছে যেত অন্য কারো হাতে।

সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার পশ্চিম উপকূলে আবিষ্কৃত হলো ১৩২ বছরের পুরনো একটি বোতল বার্তা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ বোতল বার্তাটি একইসঙ্গে গবেষণা ও ঐতিহাসিক দিক থেকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। 

মঙ্গলবার (৬ মার্চ) একটি সংবাদ সম্মেলনে বোতল বার্তাটি আবিষ্কার ও এর রহস্য সমাধান বিষয়ক তথ্য জানায় ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়া মিউজিয়াম কর্তৃপক্ষ।

বোতল বার্তাটি আবিষ্কার করেন উত্তর পার্থের অধিবাসী টনিয়া ইলমান। গাঢ় সবুজ রঙের বোতলটি লম্বায় ৯ ইঞ্চি এবং ব্যাস ৩ ইঞ্চি। বন্ধুদের সঙ্গে সৈকতে ঘুড়ে বেড়ানোর সময় অদ্ভুত বোতলটি বালিয়ারির উপর পড়ে থাকতে দেখেন ইলমান।

ইলমান বলেন, সুন্দর দেখতে পুরনো বোতলটি দেখে আমি মুগ্ধ হয়ে যাই। ভেবেছিলাম এটা আমার বুক শেলফে সাজিয়ে রাখবো। আমার ছেলের বউ প্রথম এর ভেতরে রাখা কাগজটি আবিষ্কার করে। কাগজটি ছিল প্রচণ্ড স্যাঁতস্যাঁতে। 

কাগজে ছাপা অক্ষরে জার্মান ভাষার কিছু লেখা দেখতে পান ইলমান। এরসঙ্গে খুব আবছা কালিতে হাতে লেখা কিছু অক্ষরও ছিল। বিষয়টি নিয়ে অল্প-বিস্তর পড়ালেখা করে বুঝতে পারেন, বোতল বার্তাটি ঐতিহাসিকভাবে খুবই গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে। সঙ্গে সঙ্গে তিনি জাদুঘর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। 

জাদুঘরের গবেষকরা বোতল বার্তাটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে জানান, সমুদ্রে ভাসিয়ে দেওয়ার প্রায় এক বছরের মধ্যেই বোতলটি অস্ট্রেলিয়ার সৈকতে এসে পৌঁছায়। সেখানেই প্রায় শতাব্দীরও বেশি সময় অবস্থান করে বোতলটি।

জার্মান ভাষায় লেখা অক্ষরগুলো থেকে দু’টি গুরুত্বপূর্ণ সূত্র খুঁজে পান গবেষকরা। লেখার একটি অংশ নির্দেশ করে ‘১২ জুন ১৮৮৬ সাল’কে। এতে আরও পাওয়া যায় ‘পাউলা’ নামে একটি জাহাজের নাম।

আরও গভীর অনুসন্ধান চালিয়ে জানা যায়, বোতল বার্তাটি ছিল জার্মান নৌবাহিনীর একটি গবেষণার অংশ। বিশ্বের মহাসাগরগুলোর স্রোত পর্যবেক্ষণের উদ্দেশ্যে ভারত মহাসাগর থেকে এটি ভাসানো হয়েছিল। কাগজের অক্ষরগুলোও মিলে যায় পাউলার লগ বুকে লেখা ক্যাপ্টেনের হাতের লেখার সঙ্গে।

বিখ্যাত জার্মান বিজ্ঞানী ও অভিযাত্রী জর্জ ভন নিউমায়েরের একটি বৃহৎ গবেষণার অংশ হিসেবে ১৮৬৪ সাল থেকে ১৯৩৩ সালের মধ্যে বোতল বার্তাগুলো ভাসানো হয়েছিল। ওই সময় জার্মান জাহাজের ক্যাপ্টেনদের দায়িত্ব ছিল বোতল বার্তাগুলো পাওয়া গেলে তা হামবুর্গে অবস্থিত নৌ ঘাঁটিতে পৌঁছে দাওয়া।

এ পর্যন্ত ৬৬২টি বোতল বার্তা ফেরত গেছে হামবুর্গে। এধরনের বার্তা সর্বশেষ পাওয়া গিয়েছিল ১৯৩৪ সালে।

বাংলাদেশ সময়: ০০২২ ঘণ্টা, মার্চ ০৮, ২০১৮
এনএইচটি/এএ

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

ফিচার বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa