bangla news

বাবা-ভাইকে বাঁচাতে...

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১১-০৭-০৪ ১২:৩৪:০০ পিএম

বাবার দুই চোখ নষ্ট। অকেজো হয়ে গেছে ভাইয়ের একটি কিডনি। অপরটিও অকেজো হওয়ার পথে । এ অবস্থায় কী করতে পারে অসহায় কিশোরী মাম্পি সরকার? বয়স মাত্র ১২ বছর। দারিদ্র্য তাদের নিত্য সঙ্গী।

কল্যাণী: বাবার দুই চোখ নষ্ট। অকেজো হয়ে গেছে ভাইয়ের একটি কিডনি। অপরটিও অকেজো হওয়ার পথে । এ অবস্থায় কী করতে পারে অসহায় কিশোরী মাম্পি সরকার? বয়স মাত্র ১২ বছর। দারিদ্র্য তাদের নিত্য সঙ্গী।

নিরুপায় দিনমজুর বাবার ছলছল চোখ, রোগে শীর্ণ ভাইয়ের পার মুখ মাম্পি সহ্য করতে পারেনি। তাই দিশেহারা হয়ে জীবনাটাই উৎসর্গ করেছে বাবা আর ভাইয়ের জন্য।

আত্মহত্যা করেছে মাম্পি। তার আগে লিখে গেছে তার দু’টি চোখ সে দিয়ে গেলো বাবার জন্য আর দু’টি কিডনি রেখে গেলো ভাইটির জন্য।

এই মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের নদীয়া জেলার ঝড়পাড়া গ্রামে।

পুলিশ জানায়, মাম্পি তার দিনমজুর বাবা মৃদুল সরকারের চোখ এবং ভাই মনোজিত সরকারের কিডনি নষ্ট হওয়ার পর কোনো উপায় না থাকায় খুব বিষন্ন হয়ে পড়ে। সে মৃত্যুর পর তার চোখ এবং কিডনি বাবা ও ভাইকে দেবার জন্য অনুরোধ করে গেছে।
 
মাম্পি স্থানীয় একটি স্কুলে ষষ্ঠ শ্রেণীতে পড়ত। মৃত্যুর আগে তার লিখে যাওয়া ওই চিঠি খুঁজে পাওয়া যায় তার মৃত্যুর একদিন বাদে ২৭ জুন শেষকৃত্যের পরে।

স্থানীয় পঞ্চায়েত প্রধান তাপস তরফদার জানান, আত্মহত্যার আগে মাম্পি তার বোন মনিকাকেও একই সঙ্গে আত্মহত্যার প্রস্তাব দেয়। মৃত্যুর পর চোখ এবং কিডনি বাবা-ভাইকে দেওয়ার বিষয়েও তাদের মধ্যে কথা হয় বলে জানান তিনি।
 
পুলিশ জানায়, কিন্তু মনিকা এ প্রস্তাবে রাজি হয়নি। সে স্কুলে চলে গেলে মাম্পি পরিকল্পনা মতো আত্মহত্যা করে।
 
বাংলাদেশ সময়: ২২০৬ ঘণ্টা, জুলাই ০৪, ২০১১

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

ফিচার বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache_14 2011-07-04 12:34:00