ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ২৬ রবিউস সানি ১৪৪৩

পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য

‘সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ভাতের হোটেল নয়, ফুড কিয়স্ক হচ্ছে’

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯৩২ ঘণ্টা, মে ৮, ২০২১
‘সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ভাতের হোটেল নয়, ফুড কিয়স্ক হচ্ছে’ কাটা হয়েছে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের অসংখ্য গাছ/ ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা: সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঘুরতে আসা লোকদের টয়লেট বা স্যানিটেশন, সাময়িক বিশ্রাম এবং হালকা স্ন্যাক্স সুবিধার জন্য পুরো উদ্যানে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে ৭টি ‘ফুড কিয়স্ক’ তৈরি করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের যুগ্ম সচিব ও ‘ঢাকাস্থ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণ (৩য় পর্যায়)’ প্রকল্পের পরিচালক মো. হাবিবুল ইসলাম।

শনিবার (০৮ মে) বিকেলে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে গাছ কাটা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বাংলানিউজকে এসব কথা বলেন।

প্রকল্প পরিচালক হাবিবুল ইসলাম বলেন, একটা কথা বারবার বলা হচ্ছে যে, এখানে খাবারের দোকান করা হচ্ছে। এগুলো ভাত-রুটির দোকান না। এখানে কোনো রুটি বা ভাতের দোকান হচ্ছে না। উদ্যানে ঘুরতে এসে এখানকার নানা স্থাপনা দেখতে দেখতে একজন মানুষ ক্লান্ত হয়ে পড়তে পারেন, তার একটু পানির পিপাসা পেতে পারে বা তার টয়লেট ফ্যাসিলিটির প্রয়োজন হতে পারে। তখন যাতে তিনি একটা জায়গায় বসে বিশ্রাম নিতে পারেন। এজন্য পুরো উদ্যানে ৭টি ‘ফুড কিয়স্ক’ তৈরি করা হবে। যেখানে পানি ও হালকা স্ন্যাক্সেরও ব্যবস্থা থাকবে।

বাংলাদেশে কোথাও বেড়াতে গেলে অনেক সময় ভালো শৌচাগার থাকে না উল্লেখ করে তিনি বলেন, ফুড কিয়স্কগুলোর পেছনের দিকে নারী এবং পুরুষদের জন্য পৃথক টয়লেট ফ্যাসিলিটি থাকবে।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে মহান মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস সংরক্ষণ, আধুনিক নগর উপযোগী সবুজের আবহে আন্তর্জাতিক মানে গড়ে তোলা ও দেশি-বিদেশি পর্যটকদের আকৃষ্ট করার লক্ষ্যে ‘ঢাকাস্থ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণ’ (৩য় পর্যায়)’ শীর্ষক মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়িত হচ্ছে বলে জানান প্রকল্প পরিচালক।


হাবিবুল ইসলাম বলেন, বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ঘোরার পরিবেশ নেই। উদ্যানের একদিক দিয়ে প্রবেশ করে অন্য দিক দিয়ে নিরাপদে বের হয়ে যাওয়ার পরিবেশও নেই। এখানে ভবঘুরে ও নানা রকমের মতলববাজ লোকের আনাগোনা।

তিনি বলেন, আমরা চাইছি একটা মাস্টারপ্ল্যানের মাধ্যমে পুরো উদ্যানটাকে একটা আন্তর্জাতিক মানের করে গড়ে তুলতে। যেখানে পাকিস্তান শাসনবিরোধী ২৩ বছরের মুক্তিসংগ্রাম ও ৯ মাসের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সম্বলিত ভাস্কর্য স্থাপন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের স্থানে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য স্থাপন, পাকিস্তানের হানাদার বাহিনীর আত্মসমর্পণের স্থানে ভাস্কর্য স্থাপন, ইন্দিরা মঞ্চ নির্মাণ, ওয়াটার বডি ও ফাউন্টেইন নির্মাণ, ভূগর্ভস্থ ৫০০ গাড়ির কার পার্কিং ও শিশু পার্ক নির্মাণসহ বিভিন্ন নির্মাণ কাজ চলমান।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে গণহারে গাছ কাটা হবে না এবং মাস্টারপ্ল্যানের অংশ হিসেবে আগামী বর্ষায় সেখানে আরও অন্তত ১ হাজার গাছ লাগানো হবে বলে জানান হাবিবুল ইসলাম।  

গণহারে গাছ কাটা হবে- এমন প্রচারণা চালিয়ে পরিস্থিতি ঘোলাটে করতে অন্য কেউ লাইন ধরে বিভিন্ন গাছে ক্রস চিহ্ন দিয়ে রেখেছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

প্রকল্প পরিচালক বলেন, যতদূর আমরা জানতে পেরেছি আন্দোলনের স্বার্থে অনেকগুলো গাছে কে বা কারা ওই রকম ক্রস চিহ্ন দিয়ে রেখেছে। বিষয়টা এমনভাবে তুলে ধরা হচ্ছে এগুলো সব লাইন ধরে কাটার জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে। আসলে ঘটনা তা নয়।

গণহারে উদ্যানের গাছ কাটা হবে না জানিয়ে হাবিবুল ইসলাম বলেন, মাস্টারপ্ল্যান বাস্তবায়ন করতে গিয়ে স্বল্প সংখ্যক গাছ কাটা পড়বে। যখনই যেই গাছ কাটা পড়বে তার বিপরীতে ১০টা গাছ রোপণ করা হবে। আসছে বর্ষাতেই উদ্যানে গাছ লাগানো শুরু হবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৩২ ঘণ্টা, মে ০৮, ২০২১
এমইউএম/এইচএডি/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa