ঢাকা, শনিবার, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৩ আগস্ট ২০২২, ১৪ মহররম ১৪৪৪

পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য

গাছের সুস্বাস্থ্যের রক্ষক ‘খয়রালেজ-কাঠশালিক’

বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য বাপন, ডিভিশনাল সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১২৪৭ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৭, ২০১৯
গাছের সুস্বাস্থ্যের রক্ষক ‘খয়রালেজ-কাঠশালিক’ গাছে গাছে শিকারের সন্ধানে ঘুরে বেড়ায় খয়রালেজ-কাঠশালিক | ছবি: আবু বকর সিদ্দিক

মৌলভীবাজার: চা বাগানের সকালটা উজ্জ্বল হয়েছে সবেমাত্র। তাতে ঝিঝি সুমন্দ-বাতাস। চায়ের ছায়াবৃক্ষতে তখন পাখিদের প্রাতঃসভা। যুক্তিতর্কের বাকবিতণ্ডায় মুখর এরা। এক প্রজাতি পাখি একটি দলে একত্রিত হয়ে সাতসকালে বোঝাপড়ায় মেতেছে।

শিরিষ নামক ছায়াবৃক্ষতে প্রভাতীসভার এই আয়োজকরা ‘খয়রালেজ-কাঠশালিক’। চিৎকার-চেঁচামেচি করে সারাদিনের কর্মসূচি নির্ধারণে ব্যস্ত।

এরা পরিবেশবান্ধব এক প্রজাতির উপকারী পাখি।

খয়রালেজ-কাঠশালিক আমাদের দেশের সুলভ আবাসিক পাখি। এর ইংরেজি নাম Chestnut-tailed Starling এবং বৈজ্ঞানিক নাম Sturnia malabarica।

বাংলাদেশ বার্ড ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রখ্যাত পাখি বিশেষজ্ঞ ইনাম আল হক বাংলানিউজকে বলেন, খয়রালেজ-কাঠশালিক গাছের পাতার ফাঁকে ফাঁকে ঘুরে পোকা ধরে খায়। তারা আমাদের দেশের গাছের বড় বন্ধু। চা বাগানের ছোট ছোট গাছে বা আমাদের সবজি ক্ষেতে আমরা নানা জাতে কীটনাশক দিয়ে পাতাগুলোকে রক্ষা করি। কিন্তু আমাদের চারপাশের বড় বড় গাছগুলোতে তো আমরা কীটনাশক দিতে পারি না। এই যে এতো এতো গাছ রয়েছে; যারা অক্সিজেন তৈরি করে বলে আমরা বেঁচে আছি। সেইসব অক্সিজেন সরবরাহকারী গাছদের প্রধান শত্রু হলো পাতার নিচে ঘুরে বেড়ানো নানা জাতের পোকা-কীটপতঙ্গ। কারণ এ সব পোকাই প্রতিদিন তাদের পাতা খেয়ে ফেলে। সেই সব ক্ষতিকর পোকাদের ধ্বংস করার জন্য প্রকৃতিতে পাখিদের যে বিশাল বাহিনী রয়েছে তার মধ্যে অন্যতম ‘খয়রালেজ-কাঠশালিক’।

ফুলের মধু আহরণ প্রসঙ্গে ইনাম আল হক বলেন, এই পাখিগুলো একেকটা ছোট ছোট দলে ভাগ হয়ে একেকটা গাছে এসে নামে। সব পাতার ফাঁক দিয়ে ঘুরে ঘুরে বেড়ায়। যেন একটি পোকাও বাদ না যায়। এভাবেই তারা বড় বড় গাছের জীবন রক্ষা করে চলেছে। আপনি দেখবেন- আমাদের যে ফুলের গাছগুলো রয়েছে, বিশেষ করে শিমুল ফুল, পলাশ ফুল এগুলো ফুটলেই এ পাখিগুলো চলে আসে। এরা ফুলে এসে কিন্তু মধু খায় না। ফুলের পাশে দেখবেন পোকা ধরার জন্য ঘুরে বেড়াচ্ছে। ফুলের কারণে বহু পোকারাও আসে। সেই সব পোকাদের ধরার জন্য এই পাখিরা সদা তৎপর থাকে। বন এবং বাগানের বড় বড় গাছের সুস্বাস্থ্যের এ পাখিগুলো বড় সেবা দিয়ে যাচ্ছে।

সবজি ক্ষেতের পোকা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ওরা সবজি ক্ষেতেও পোকা ধরার জন্য নামে। সিমগাছের মাচায় ওদের সব সময় পাওয়া যায়। ওরা সিমের ফুলের পাশে পোকা ধরে খায়। কারণ সিমের ফুলে অনেক পোকা হয়। আমরা যারা সিম গাছ লাগাই তাদেরও কিন্তু একটা সেবা সে দিচ্ছে। ফুল গাছেও এসে পড়ে ওরা। এটাও পোকা ধরার কারণে।

এদের স্বভাব প্রসঙ্গে তিনি বলেন, খয়রালেজ-কাঠশালিক দলবদ্ধ পাখি। সচরাচর ৫ থেকে ২০টি পাখি একত্রিত হয়ে খাবারের সন্ধানে ঘুরে বেড়ায়। এরা গাছের কোঠরে বাসা করে। ঝুঁটি-শালিক, ভাত-শালিক, গাঙ-শালিক প্রভৃতি পাখি কিন্তু মানুষের বানানো কাঠামোতে বাসা করে। কিন্তু এরা গাছের গর্তে বাসা করে।

এরা উচ্চতায় প্রায় ২০ সেন্টিমিটার। ধূসর বাদামি দেহ। তবে মাথা, কপাল, গাল ও গলা সাদাটে। এদের হালকা খয়েরি রঙের লেজ থাকে বলে জানান প্রখ্যাত পাখি গবেষক ইনাম আল হক।

বাংলাদেশ সময়: ০৮৪৭ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৭, ২০১৯
বিবিবি/এসএইচ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa