ঢাকা, রবিবার, ২ আষাঢ় ১৪৩১, ১৬ জুন ২০২৪, ০৮ জিলহজ ১৪৪৫

পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য

পায়রা বন্দরে জাহাজ চলাচল, নদীতে কমেছে ইলিশ: ধরা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২২১৭ ঘণ্টা, মে ২৮, ২০২৪
পায়রা বন্দরে জাহাজ চলাচল, নদীতে কমেছে ইলিশ: ধরা

ঢাকা: দেশের সার্বিক উন্নতির জন্য উন্নয়ন প্রয়োজন। কিন্তু উপকূলীয় এলাকায় পরিবেশ ধ্বংসকারী অপরিকল্পিত উন্নয়ন প্রকল্প সেখানকার মানুষের জীবন-জীবিকার ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে।

ক্ষতির মুখে পড়ছে সেখানকার কৃষি ও মৎস্য খাত। তাই উপকূলীয় এলাকার মৎস্য ও কৃষি এবং সেখানকার মানুষের জীবন-জীবিকা রক্ষায় ক্ষতিকর উন্নয়ন প্রকল্প উপকূলীয় এলাকা থেকে অপসারণের পরামর্শ দিয়েছেন পরিবেশবিদরা।

মঙ্গলবার (২৮ মে) ‘উপকূলের কৃষি ও মৎস সম্পদ সংরক্ষণ ও উন্নয়নে করণীয়’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় তারা এই পরামর্শ দেন। রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে এই আলোচনা সভার আয়োজন করে পরিবেশবাদী সংগঠন ‘ধরিত্রী রক্ষায় আমরা (ধরা)’ এবং ‘ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশ’।

বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনের বেসরকারি উপদেষ্টা এবং ধরিত্রী রক্ষায় আমরা (ধরা) এর সহ-আহ্বয়ক এমএস সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে ও ধরার সদস্য সচিব ও ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশের সমন্বয়ক শরীফ জামিলের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ধরিত্রী রক্ষায় আমরা (ধরা) এর উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ও ঢাকা আর্চ ডায়োসিস এর আর্চবিশপ বিজয় নিসফরাস ডি’ক্রুজ, সাবেক সংসদ সদস্য এবং আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য অ্যাড. গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার, জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের সাবেক সদস্য এবং ব্রতী সমাজকল্যাণ সংস্থার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন মুরশিদ।

সভায় পায়রা বন্দর এবং পটুয়াখালী পাওয়ার প্ল্যান্টের কারণে কৃষি ও মৎস্য খাতে কেমন প্রভাব পড়েছে সেই বিষয়ে তিনটি পৃথক গবেষণা তুলে ধরা হয়। এর মধ্যে ইলিশ এর উপর জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব শীর্ষক গবেষণালব্ধ ফলাফল উপস্থাপন করেন ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশ এর গবেষণা প্রধান মো. ইকবাল ফারুক, তরমুজ চাষে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব শীর্ষক গবেষণালব্ধ ফলাফল উপস্থাপন করেন এফএসএল পরিবেশ বিশেষজ্ঞ রফিকুল ইসলাম, এবং কৃষি ক্ষেত্রে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব শীষর্ক গবেষণালব্ধ ফলাফল উপস্থাপন করেন পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. আশিকুর রহমান।

পৃথক তিনটি গবেষণায় দেখা গেছে, পায়রা বন্দরে বড় বড় জাহাজ চলাচলের কারণে নদীতে ইলিশের পরিমাণ কমে গেছে। জেলেরা আগের মতো মাছ পাচ্ছেন না। পটুয়াখালী পাওয়ার প্ল্যান্টের কারণে নদীর পানির গুণগতমান কমে গেছে। কৃষি জমিতে তরমুজের ফলন অনেক কমে গেছে। নতুন রোগবালাইয়ে ক্ষতির মুখে পড়ছেন চাষিরা। পাওয়ার প্ল্যান্টের আশপাশ এলাকায় গাছের পাতার ওপর কালো বর্জ্যের আস্তরণ পড়ছে। এতে সামগ্রিকভাবে ওই অঞ্চলের মানুষের স্বাস্থ্যঝুঁকিও তৈরি হচ্ছে।

স্বাগত বক্তব্যে ধরার সদস্য সচিব ও ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশের সমন্বয়ক শরীফ জামিল বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণ সাইক্লোনগুলো আরো শক্তিশালী হবে আর ঘনঘন আসবে বলে ধারণা করা হয়। কিন্তু এই ঘূর্ণিঝড় রিমাল থেকে আমরা দেখতে পেলাম আগের চেয়ে ধীর গতিতে চলছে আর দীর্ঘ সময় ধরে অবস্থান করছে। এটাও জলবায়ু পরিবর্তনের একটি অভিঘাত। পায়রা বন্দর এবং তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে কয়লাবাহী জাহাজ যাতায়াতের কারণে মৎসজীবীরা মাছ শিকার করতে পারছে না। বিরূপ প্রভাব পড়ছে এলাকার তরমুজসহ সমগ্র কৃষিখাতের উপর।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের সাবেক সদস্য এবং ব্রতী সমাজকল্যাণ সংস্থার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন মুরশিদ বলেন, উন্নয়নকাজে সরকারকে কমিউনিটির মতামত নিতে হবে। উপকূলের জন্য কৌশল ঠিক করতে হবে। নতুন করে পরিকল্পনা করতে হবে। আমরা দেখেছি বাধের জন্য অর্থ বরাদ্দ হলো কিন্তু কাজ দেখতে পেলাম না। উপকূলের মানুষ যাতে নিশ্চিন্তে ঘুমাতে পারে তার জন্য অবশ্যই বাধ নিশ্চিত করতে হবে।

সাবেক সংসদ সদস্য এবং আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য অ্যাড. গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার বলেন, সকল উন্নয়ন কর্মকান্ড মানুষের জন্য। তবে উন্নয়ন করতে গিয়ে যদি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয় তবে প্রধানমন্ত্রী তা হতে দেবেন না। গঠনমূলক সমালোচনা থাকলে সরকার আন্তরিকতার সাথে গ্রহণ করেন। আমি উপকূলের মানুষ, কৃষির মানুষ। সরকার কাজ করছে, বরাদ্দ দিচ্ছে। কিন্তু এই বরাদ্দ ব্যয়ে যাতে স্থানীয়ভাবে দুর্নীতি না হয় তা খেয়াল রাখতে হবে। সরকারের পাশাপাশি আমরাও ভুক্তভোগী। তাই আমাদের সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।

ধরা'‌র উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ও ঢাকা আর্চ ডায়োসিস এর আর্চবিশপ বিজয় নিসফরাস ডি’ক্রুজ বলেন, উপকূলবাসীর কূল নেই। মানুষ বঞ্চিত হবে, শিক্ষা পাবে না, খাবার পাবে না এটা হতে পারে না।

সভাপতির বক্তব্যে বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনের বেসরকারি উপদেষ্টা এবং ধরিত্রী রক্ষায় আমরা (ধরা) এর সহ-আহ্বয়ক এমএস সিদ্দিকী বলেন, উন্নয়ন হতে হবে কিন্তু উন্নয়ন কর্মকান্ডের লাভ-ক্ষতির গবেষণা করতে হবে এবং গবেষণালব্ধ ফলাফল প্রকাশ করতে হবে। আমরা জেনেছি, মে থেকে জুন ৬৫ দিন, অক্টোবরে ২২ দিন প্রজননক্ষম মা ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ থাকে। কিন্তু সেই সময়ে ভারতের জেলেদের উপর কোন নিষেধাজ্ঞা না থাকায় তাঁরা বঙ্গোপসাগরে উভয় এলাকার ইলিশ মাছ অবাধে শিকার করছে। তাতে আমাদের দেশের মৎস সম্পদ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। সরকারকে এই বিষয়ে দৃষ্টি দেওয়ার জন্য অনুরোধ করছি যাতে দুই দেশের মাছ ধরা নিষিদ্ধের সময়কাল সমন্বয় করা যায়।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন উপকূল রক্ষায় আমরা আন্দোলনের সমন্বয়ক নিখিল চন্দ্র ভদ্র, সুন্দরবন রক্ষায় আমরা আন্দোলনের সমন্বয়ক নূর আলম শেখ, কক্সবাজারের পরিবেশকর্মী ফরিদুল আলাম শাহীন, কলাপাড়া পটুয়াখালীর কৃষিজীবী ফরিদ উদ্দিন, পেকুয়া কক্সবাজারের পরিবেশকর্মী দেলোয়ার হোসেন, দাকোপ খুলনার কৃষিজীবী হিরন্ময় রায়, কলাপাড়া পটুয়াখালীর পরিবেশকর্মী মেজবাউদ্দিন মান্নু, বরগুনার পরিবেশকর্মী মুশফিক আরিফ, মোংলার মৎসজীবী রশিদ হাওলাদার, এবং কলাপাড়া পটুয়াখালীর মৎসজীবী ইমরান জমাদ্দার, পাথরঘাটার পরিবেশকর্মী শফিকুল ইসলাম খোকন প্রমুখ।

 

বাংলাদেশ সময়: ১০১৩ ঘণ্টা, মে ২৮, ২০২৪

এসসি/এমএম 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।