ঢাকা, শনিবার, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৫ মে ২০২৪, ১৬ জিলকদ ১৪৪৫

পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য

লোকালয়ে আসা মায়া হরিণ লাউয়াছড়ায় অবমুক্ত

ডিভিশনাল সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০০৩১ ঘণ্টা, মার্চ ১০, ২০২৪
লোকালয়ে আসা মায়া হরিণ লাউয়াছড়ায় অবমুক্ত লাউয়াছড়ায় অবমুক্তকৃত মায়া হরিণ। ছবি: বাংলানিউজ

মৌলভীবাজার: জেলার কমলগঞ্জের বন থেকে লোকালয়ে বেরিয়ে আসা একটি মায়া হরিণ (Barking Deer) উদ্ধার করে বন বিভাগের কাছে হস্তান্তর করেছেন স্থানীয় কয়েকজন তরুণ।

শনিবার (০৯ মার্চ) দুপুরে উপজেলার আলীনগর ইউনিয়নের কালীপুর এলাকার একটি ধানের জমিতে মায়া হরিণটি ধরা পড়ে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান নিয়াজ মোর্শেদ রাজু।

আলীনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নিয়াজ মোর্শেদ রাজু বাংলানিউজকে বলেন, শনিবার দুপুরে ইউনিয়নের কালীপুর গ্রামে লোকালয়ে বেরিয়ে আসা একটি মায়া হরিণ ধানের জমি থেকে ধরে উদ্ধার করেন কয়েকজন যুবক। পরে বিষয়টি তাকে জানালে তিনি কমলগঞ্জ রাজকান্দি বন রেঞ্জ ও স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।

পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় মায়া হরিণটি রাজকান্দি রেঞ্জ বনে নিয়ে আসেন। সেখান থেকে মৌলভীবাজার বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ হরিণটিকে নিয়ে যায়।

রাজকান্দি বন রেঞ্জ কর্মকর্তা তৌহিদুল ইসলাম বলেন, ইউপি চেয়ারম্যানের মাধ্যমে খবর পেয়ে মায়া হরিণটি উদ্ধার করে রেঞ্জ অফিসে নেওয়া হয়। পরে মৌলভীবাজার বন্যপ্রাণি ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের কাছে মায়া হরিণটি হস্তান্তর করা হয়।

বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের শ্রীমঙ্গল বন্যপ্রাণী-রেঞ্জের রেঞ্জ কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম বলেন, উদ্ধার করা হরিণটি সুস্থ থাকায় শনিবার বিকালে কমলগঞ্জের লাউয়াছড়া বনে অবমুক্ত করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, হরিণটি রাজকান্দি রেঞ্জের কামারছড়া বন বিট এলাকা থেকে খাবারের সন্ধানে লোকালয়ে বেরিয়ে এসেছিল।

মায়া হরিণ ভয় পেলে বা শিকারী প্রাণী দেখতে পেলে কুকুরের মত ‘ঘেউ ঘেউ’ করে বলে তাদের ইংরেজিতে ‘বার্কিং ডিয়ার ’ বলে। মায়া হরিণের গড় ওজন ১৭ কেজি ও উচ্চতা ২২ ইঞ্চি পর্যন্ত হয়। এরা খাটো লালচে বাদামী লোম দ্বারা এরা আবৃত। বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা আইন-২০১২ সালে এই প্রজাতিটি সংরক্ষিত।

বাংলাদেশ সময়: ০০২৭ ঘণ্টা, মার্চ ১০, ২০২৪
বিবিবি/এফআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।