ঢাকা, শনিবার, ১ কার্তিক ১৪২৮, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

বিনোদন

‘মুকুটহীন সম্রাট’ আনোয়ার হোসেন নেই ৮ বছর

বিনোদন ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪৫৯ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২১
‘মুকুটহীন সম্রাট’ আনোয়ার হোসেন নেই ৮ বছর আনোয়ার হোসেন

বাংলার ‘মুকুটহীন সম্রাট’খ্যাত কিংবদন্তি অভিনেতা আনোয়ার হোসেনকে হারানোর ৮ বছর পূর্ণ হলো। ২০১৩ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করেন তিনি।

বরেণ্য এই অভিনয়শিল্পী ১৯৩১ সালের ৬ নভেম্বর জামালপুর জেলার সরুলিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম নজির হোসেন ও মায়ের নাম সাঈদা খাতুন। তিনি ছিলেন বাবা-মায়ের তৃতীয় সন্তান।

১৯৫১ সালে আনোয়ার হোসেন জামালপুর স্কুল থেকে ম্যাট্রিক পাস করেন। এরপর তিনি ময়মনসিংহ আনন্দমোহন কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন।

আনোয়ার হোসেন স্কুলজীবনে প্রথম অভিনয় শুরু করেন। তার অভিনীত প্রথম নাটক- ‘পদক্ষেপ’ (আসকার ইবনে সাইকের লেখা)।

১৯৫৭ সালে আনোয়ার হোসেন ঢাকায় চলে আসেন। ওই বছরই পরিচয় ঘটে পরিচালক মহিউদ্দিনের সঙ্গে। এরপরই তিনি অভিনয় শিল্পে জড়িয়ে পড়েন। তার অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্রের নাম- ‘তোমার আমার’। প্রথম চলচ্চিত্র দিয়েই তাক লাগিয়ে দেন ‘নবাব’। সেই থেকে একের পর এক চলচ্চিত্রে অভিনয় করতে থাকেন এই বরেণ্য শিল্পী।

আনোয়ার হোসেন অভিনীত চলচ্চিত্রগুলোর মধ্যে রয়েছে- ‘নবাব সিরাজউদ্দৌল্লাহ`, ‘নাগর দোলা’, ‘জীবন থেকে নেয়া’, ‘সূর্যস্নান’, ‘লাঠিয়াল’, ‘জোয়ার এলো’, ‘কাঁচের দেয়াল’, ‘নাচঘর’, ‘দুই দিগন্ত’, ‘বন্ধন’, ‘পালঙ্ক’, ‘অপরাজেয়’, ‘পরশমণি’, ‘শহীদ তিতুমীর’, ‘ঈশা খাঁ’, ‘অরুণ বরুণ কিরণমালা’, ‘গোলাপী এখন ট্রেনে’, ‘রংবাজ’, ‘নয়নমনি’, ‘রূপালী সৈকতে’, ‘ধীরে বহে মেঘনা’, ‘ভাত দে’ উল্লেখযোগ্য। নায়ক হিসেবে তার শেষ চলচ্চিত্র ‘সূর্য সংগ্রাম’।  

‘নবাব সিরাজউদ্দৌল্লাহ’ চলচ্চিত্রে নাম ভূমিকায় অভিনয় করে আনোয়ার হোসেন ‘মুকুটহীন সম্রাট’ অভিধা পেয়েছিলেন।

প্রায় পাঁচ শতাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করা এই কিংবদন্তি কাজের স্বীকৃতি সরূপ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১০, আজীবন সম্মাননা, পাকিস্তানের নিগার ও বাচসাস পুরস্কারসহ অসংখ্য সম্মাননা পেয়েছেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৫৮ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২১
জেআইএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa